মানবতাকে বাঁচিয়ে রাখতে মানুষকে অন্য গ্রহে যাওয়া উচিৎ

মানবতাকে বাঁচিয়ে রাখতে মানুষকে অন্য গ্রহে যাওয়া উচিৎ

বিশ্বের সর্বাধিক ধনী ব্যক্তি ওয়াশিংটনবাসী “এলন মাস্ক” :  জানালেন মানুষ যত দ্রুত সম্ভব পৃথিবী ছেড়ে অন্য গ্রহের দিকে না যায় তবে মানবতার অবসান অনিবার্জ। স্পেসএক্স সংস্থার মালিক বহুদিন ধরে দাবি করে আসছেন, মানবতার ভবিষ্যত রক্ষার জন্য মানুষকে দ্রুত অন্য গ্রহে পাঠানো উচিৎ। আমেরিকার অ্যাপোলো যান চাঁদে নেমেছে আজ থেকে প্রায় ৪৯ বছর আগে। এত সময় ধরেও মানুষ এখনও চাঁদে বা অন্য কোনও জায়গায় বসতি স্থাপন করতে পারেনি না কেন কারন কি? মাস্ক-এর  বর্তমান পরিকল্পনা হল, আগামী ১০ বছরের মধ্যে পৃথিবীর প্রতিবেশী গ্রহ মঙ্গলে বসতি স্থাপন করা।

অন্য গ্রহ ভবিষ্যৎ পৃর্থীবির মানুষের নিকটতম একটি গ্রহ ও উপগ্রহ মঙ্গল এবং চাঁদ। বুধ ও শুক্রে থাকার মতো পরিবেশ নেই মঙ্গল ছাড়াও বৃহস্পতি এবং শনি গ্রহ রয়েছে যেখানে বায়ুমণ্ডল গ্যাসে পূর্ণ আছে। এলান মাস্ক এই গ্রহে শুধুমাত্র যেতেই চান না, তিনি চান ওই গ্রহগুলিতে মানুষ স্থায়ীভাবে বসবাস করুক।

তিনি আরও বলছেন, মানবতাকে বাঁচিয়ে রাখতে এসব করতে হবে। কিছু দিন আগে এলন মাস্ক সোশ্যাল মিডিয়ায় মানবতার ভবিষ্যৎ ও নিজের প্ল্যান সম্পর্কে জানিয়ে পোস্ট করেন। তিনি বলেছেন, এমন ভাবে বসতি স্থাপন করেই আমরা দীর্ঘসময়ের জন্য মানবতাকে বাঁচিয়ে রাখতে পারব।

তিনি এও বলেন, সব সভ্যতা আসলে একটি বৃত্ত সম্পন্ন করে। প্রথমে তার বিকাশ হয়, এরপর প্রযুক্তির সাহায্যে তাঁরা বৃদ্ধি পেতে থাকে এবং পতন শুরু হয় ও ধীরে ধীরে সেই সভ্যতার অবসান ঘটে। এটিই হয়ে আসছে। হয়ত চলবে…..

মিশরীয় পিরামিড ও রোমান সাম্রাজ্যপৃথিবীর সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি মিশরের উদাহরণ দিয়ে বলেন, “আপনি মিশরকে দেখুন প্রায় ৫০০০ বছর আগে মানুষ পিরামিড বানিয়েছিল”। কিন্তু এরপর কোনও ভাবে সেখানকার মানুষ পিরামিড বানাওর কৌশল ভুলে যায়। রোমান সাম্রাজ্য, সুমেরীয় সভ্যতা এবং ব্যাবিলনীয় সভ্যতা থেকেও শিক্ষা নেওয়া যেতে পারে আমাদের বলে দাবি করেন তিনি। তাঁর বক্তব্য, আমরাও এমন একটি বৃত্তের মধ্যে রয়েছি, যেখানে পতন অনিবার্জ।

তিনি পৃথিবীর বাহ্যিক বিপদের কথাও বলেন। এপ্রসঙ্গে ডাইনোসরদের বিলুপ্ত হবার উল্কাপিণ্ড পড়ার কথা সবাইকে বলেন তিনি।

পৃথিবীর ইতিহাসে এখন অবধি ৫ প্রলয় বিজ্ঞানীরা বিশ্বাস করেন, এখন পর্যন্ত পৃথিবীর ইতিহাসে ৫ বার মহাপ্রলয় ঘটেছে। যার জেরে সবকিছু “ধ্বংস” হয়ে গেছে। কিছু গবেষণা বলেছে, এটা একটা চক্রের অংশ। মার্কিন মহাকাশ সং;স্থা “নাসা” এমন কাধিক সুরক্ষা পরিকল্পনা করছে বলে দাবি করে।

আমাদের পোস্ট গুলো শেয়ার করুন……

Leave a Comment