খেজুর খাওয়ার উপকারিতা

খেজুর খাওয়ার উপকারিতা :-

খেজুর মানব সভ্যতার ইতিহাসে একটি সুমিষ্ট ফল হিসেবে গ্রহণের কারণে এটি বহু বছর ধরে চাষ করা হচ্ছে। খেজুর গাছ প্রধানত মরু বা বালু পাহার এলাকায় ভাল জন্মে। এর বৈজ্ঞানিক নাম Phoenix dactylifera একটি মাঝারি আকারের গাছ হিসাবে, খেজুর গাছের গড় উচ্চতা 15 মিটার থেকে 25 মিটার। এর লম্বা পাতা আছে যা পাখির পালকের মতো আকৃতির। পাতার দৈর্ঘ্য 3 থেকে 5 মিটার। পাতায় দৃশ্যমান পেটিওল রয়েছে। এ গাছে এক বা একাধিক ডালপালা রয়েছে যা একটি একক শাখা থেকে আসে।

খেজুরে পুষ্টি উপাদান

খেজুর একটি খুব সুস্বাদু এবং সুপরিচিত ফল। যা ফ্রুক্টোজ এবং গ্লাইসেমিক সমৃদ্ধ। এটি রক্তে চিনির পরিমাণ বাড়ায়। খেজুর চিনির বিকল্প হিসেবে বিবেচিত হয়। খেজুর মানব দেহের শক্তির একটি ভালো উৎস। তাই খেজুর খাওয়ার পরপরই শরীরের ক্লান্তি দূর হয়। প্রচুর ভিটামিন বি আছে ভিটামিন বি 6 মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।

খেজুর খাওয়ার উপকারিতা
খেজুর খাওয়ার উপকারিতা

খেজুর প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন

খেজুর ভিটামিন সমৃদ্ধ বিশেষ করে ভিটামিন বি 1, বি 2, বি 3 এবং বি 5। ভিটামিন এ এবং ভিটামিন সি -এর চাহিদা পূরণের জন্য খেজুর একটি সহজ উপায়।

খেজুরে কোলেস্টেরল এবং চর্বি

খেজুরে অতিরিক্ত চর্বি এবং কোলেস্টেরল থাকে না তাই খেজুর খেলে আপনার ওজন বাড়ার সম্ভাবনা নেই। যাদের অজন বাড়ার ভয় আছে তাড়া খেজুর খেতে পারে।

খেজুরের রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে ক্যালসিয়াম

খেজুরের রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে ক্যালসিয়াম যা মানুষের হাড় গঠনে সহায়তা করে থাকে। খেজুরের ক্যালসিয়াম শিশুদের জন্য খুবই উপকারী যা শিশুদের দাতেরমারি শক্তিশালী করতে সহায়তা করে। তাই আপনার সন্তানকে আরো বেশী খেজুর খেতে উৎসাহিত করুন।

খেজুরে ফাইবার বেশি থাকে

খেজুরে ফাইবার বেশি থাকে এবং একটি গবেষণায় দেখা গেছে যারা নিয়মিত খেজুর খেয়েছেন তাদের পেটের ক্যান্সারের ঝুঁকি  অনেক কম থাকে।

Read the post in English: What are the benefits of eating dates daily

খেজুরের আরও ১৪টি উপকারীতাঃ

১। খেজুর প্রচুর পরিমানে পানি থাকে তাই খেজুর খেলে পানিশূন্যতা বা ডিহাইড্রেশন থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে ।

২। খেজুর খেলে আপনার শরীরে সোডিয়াম এবং পটাশিয়ামের সমতা নিয়ত্রন করে।

৩। খেজুরে থাকা ক্যালসিয়াম মানব দেহের হাড়কে মজবুত করে।

৪। খেজুর খেলে মানব দেহের হৃৎপিণ্ডক শক্তিশালী হয়।

৫। খেজুর শরীরের শক্তি বর্ধক হিসেবে কাজ করে। এতে রয়েছে শতকরা ৮০ ভাগ চিনি। সে কারনেই শুকনো খেজুরকে বা খোরমাকে বলা হয় মরুভূমির গ্লুকোজ।

৬। খেজুরে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের পুষ্টি উপাদান যা থেকে সেরোটোনিন নামক হরমোন উৎপাদন করতে শতভাগ সহায়তা করে। যা মানুষকে মানসিক প্রফুলতা দান করে। এবং মন ভাল রাখতে সহায়তা করে।

৭। খেজুরে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ফাইবার। আর এই ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়তা করে। তবে শর্ত হচ্ছে খেজুর খাওয়ার সাথে প্রচুর পানিও পান করাও জরুরী। তবেই উপযুক্ত ফলাফল পাওয়া যাবে।

খেজুর খাওয়ার উপকারিতা
খেজুর খাওয়ার উপকারিতা

এই খেজুর ফলটি দীর্ঘদিন ধরে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে, প্রধানত মধ্যপ্রাচ্য এবং দক্ষিণ এশিয়ার কিছু অংশে মানুষের প্রধান উপাদেয়তা হিসাবে বিবেচিত হয়ে আসছে। তবে খেজুর চাষ বা খেজুরের উৎপত্তি সম্পর্কে কোন সঠিক তথ্য জানা যায় না। পারস্য উপসাগর সীমান্তবর্তী দেশগুলিতে এটি প্রথম চাষ করা হয়েছিল বলে মনে করা হয়। সম্ভবত মেসোপটেমিয়া থেকে প্রাগৈতিহাসিক মিশরের অধিবাসীরা 4000 খ্রিস্টপূর্বাব্দ থেকে এই গাছের বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে সচেতন। প্রাচীন মিশরীয়রা এর ফল থেকে ওয়াইন (মদজাতীয় পানিয়) তৈরি করত এবং ফসলের সময় পান করত। ৬০০০ সালের প্রত্নতাত্ত্বিক প্রমাণ দেখায় যে এটি পূর্ব আরবেও চাষ করা হয়েছিল।

পশ্চিম পাকিস্তানের মেরগড় এলাকায় খেজুর চাষের প্রত্নতাত্ত্বিক রেকর্ডও লিপিবদ্ধ রয়েছে। দক্ষিণ এশীয় সভ্যতা হিসেবে বিবেচিত হরপ্পা অঞ্চল খ্রিস্টপূর্ব 2600 থেকে 1900 খ্রিস্টপূর্বাব্দ পর্যন্ত।

সকালে খালি পেটে খেজুর খাওয়ার উপকারিতা

এছাড়াও মুসলিমদের রোজা শেষে শরীরে প্রয়োজনীয় ভিটামিন জোগাতে এবং ক্লান্তি দূর করতে খেজুরের গুরুত্ব অপরিসীম। জেনে নিন সকালে খালি পেটে খেজুর খাওয়ার উপকারিতা ……

খেজুর শক্তি, অ্যামিনো অ্যাসিড, শর্করা, ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ। রোজার সময় প্রতিদিন আমাদের দীর্ঘ সময় খালি পেটে থাকতে হয় যার কারণে আমাদের শরীরে প্রচুর গ্লুকোজের অভাব হয়। তাহলে এই খেজুরগুলি আমাদের শরীরে প্রয়োজনীয় গ্লুকোজের ঘাটতি সরবরাহ করতে সাহায্য করে। আসুন খেজুরের পুষ্টি এবং স্বাস্থ্য উপকারিতা দেখে নেওয়া যাক-

কোলেস্টেরল এবং ফ্যাট – খেজুরে কোন কোলেস্টেরল বা অতিরিক্ত চর্বি থাকে না। এটি আপনাকে অন্যান্য ক্ষতিকারক এবং চর্বিযুক্ত খাবার থেকে দূরে থাকতে দেয় যখন আপনি সহজেই খেজুর খাওয়া শুরু করেন।

প্রোটিন – প্রোটিন আমাদের শরীরের জন্য একটি অপরিহার্য উপাদান। খেজুর প্রোটিন সমৃদ্ধ। ফলাফল আমাদের পেশী তৈরি করতে সাহায্য করে এবং শরীরের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় প্রোটিন সরবরাহ করে।

ভিটামিন – খেজুরে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন যা আমাদের শরীরের জন্য অপরিহার্য। যেমন B1, B2, B3 এবং B5। খেজুর ভিটামিন এ 1 এবং সি পাওয়ার আরেকটি সহজ উপায় একই সাথে খেজুর দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়। একই সাথে, রাতের অন্ধত্ব রোগীদের খেজুর দারুন উপকারী একটি ফল।

আয়রন – আয়রন মানব দেহের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। খেজুর সমৃদ্ধ আয়রন। ফলে এটি হার্টের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে। তাই যাদের হৃদয় দুর্বল তাদের জন্য খেজুর হতে পারে সবচেয়ে নিরাপদ ষধ।

ক্যালসিয়াম – ক্যালসিয়াম হাড় গঠনে সাহায্য করে। আর খেজুরে আছে প্রচুর ক্যালসিয়াম। যা হাড়কে মজবুত করে। খেজুর শিশুদের মাড়ি শক্তিশালী করতে সাহায্য করে।

আজ এপর্যন্তই কথা হয়ে নতুন কোন বিষয় নিয়েনতুন কোন পোস্টে ধন্যবাদ।

আরও পড়ুরঃ ইংরেজিতে কথা বলার সহজ উপায়

যৌন উত্তেজক ঔষধে কিডনি লিভারসহ অনেক সমস্যা

গোল আলুর উপকারিতা ও বৈজ্ঞানিক নাম

Leave a Comment