রসুনের স্বাস্থ্য উপকারিতা

রসুনে কি কি ভিটামিন রয়েছে ?

রসুন আমাদের দৈনন্দিন খাদ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান; রসুনে রয়েছে থায়ামিন (ভিটামিন বি১), রিবোফ্লাভিন (ভিটামিন বি ২), নিয়াসিন (ভিটামিন বি ৩), প্যান্টোথেনিক অ্যাসিড (ভিটামিন বি ৫), ভিটামিন বি ৬, ফোলেট (ভিটামিন বি ৯) এবং সেলেনিয়াম।

সেলেনিয়াম ক্যান্সার প্রতিরোধে দারুণ কাজ করে। রসুনে রয়েছে অ্যালিসিন নামক গুরুত্বপূর্ণ ও গুরুত্বপূর্ণ উপাদান, যা ক্যান্সারসহ বিভিন্ন শারীরিক সমস্যার চিকিৎসায় কার্যকর। রসুনে পাওয়া অ্যালিসিন নামক যৌগের কারণে রসুনকে সুপারফুডের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। আশা করি আজকের রসুনের স্বাস্থ্য উপকারিতা পোস্টটি বিস্তারিত পড়বেন।

রসুনের স্বাস্থ্য উপকারিতা

রান্নার জন্য রসুন একটি অপরিহার্য উপাদান। রসুন সাধারণত রান্নার জন্য ব্যবহৃত হয়। তবে রসুনের গুণাগুণ সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানি না। সকালে খালি পেটে এক কোয়া রসুন খেলে অনেক রোগ সেরে যায়।

রসুন একটি সাধারণ রান্নার উপাদান হলেও এর স্বাস্থ্য উপকারিতা অস্বীকার করা যায় না। এটি পুষ্টির পাওয়ার হাউস হিসাবে পরিচিত। এটি নিম্ন রক্তচাপ এবং সাধারণ সর্দি-কাশির ঘরোয়া প্রতিকার হিসেবে কাজ করে। এটি পেটের চর্বি ঝরাতেও ভালো কাজ করে।

কিভাবে ওজন কমায় রসুন: এতে রয়েছে ভিটামিন বি৬ এবং সি, ফাইবার, ম্যাঙ্গানিজ, ক্যালসিয়াম। এগুলো ক্যালরি কমাতে ভূমিকা রাখে। ২০১১ সালের পুষ্টি জার্নাল অনুসারে জানা যায় যে রসুন মহিলাদের ও ওজন কমাতে সাহায্য করে।

এছাড়াও রসুন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে, রক্ত পরিষ্কার করে এবং সর্দি ও ফ্লু প্রতিরোধে সাহায্য করে। নিয়মিত রসুন খেলে শরীরে শক্তি বৃদ্ধি পায় এবং হজমশক্তির উন্নতি ঘটে।

রসুনের স্বাস্থ্য উপকারিতা
রসুনের স্বাস্থ্য উপকারিতা

খালি পেটে রসুন খেলে প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধি পায়

রসুন কীভাবে খাবেন

গোলমরিচ-রসুন: এক গ্লাস পানিতে ২-৩ কোয়া রসুন সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। সকালে রসুনের কুঁচিগুলো তুলে ফেলুন। তারপর এতে এক চিমটি কালো গোলমরিচের গুঁড়ো মিশিয়ে খালি পেটে পান করুন।

রসুন-মধু: একটি স্কোয়াশের খোসা ছাড়িয়ে নিন এবং রস চেপে নিন। এই রসুনের সাথে কয়েক ফোঁটা মধু মিশিয়ে নিন। 15-20 মিনিট পর মিশ্রণটি দিনে একবার খান।

রসুন-লেবুর রস: এক গ্লাস কুসুম গরম পানিতে রসুনের ২-৩ কোয়া রেখে কিছুক্ষণ রাখুন। এবার এতে এক টেবিল চামচ লেবুর রস ভালো করে মিশিয়ে নিন। সকালে খালি পেটে এই মিশ্রণটি পান করুন।

যুগ যুগ ধরে সু- স্বাস্থ্যের জন্য রসুন খেয়ে আসছে মানুষ । এটি ১৫০০ খ্রিস্টাব্ধ ও আগের থেকে চীন এবং ভারতে রক্ত পাতলা রাখার জন্য ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের জনক হিপোক্রেটিসও এটি সার্ভিকাল ক্যান্সারের চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করেছিলেন। লুই পাস্তুর এর অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এর বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে খবর জানান। সময়ের সাথে সাথে আরও রসুনের স্বাস্থ্য উপকারিতার কথা মানব জাতী জানতে পেরেছে ।

আধুনিক বিজ্ঞানীরা হৃদরোগ প্রতিরোধে রসুনের ভূমিকার কথা জানিয়েছেন। ইউনিভার্সিটি অফ কানেকটিকাটের স্কুল অফ মেডিসিনের কার্ডিওভাসকুলার রিসার্চ টিমের বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন যে কাঁচা রসুন খাওয়া হার্টের অনেক বেশি উপকারীতা করে। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণেও এর ভূমিকা রয়েছে অসিম।

কোভিডের জটিলতা বাড়াতে হৃদরোগ এবং উচ্চ রক্তচাপের অনেক বশি যোগসূত্র আছে। তাই নিয়মিত রসুন খেলে হার্ট ও রক্তচাপ ঠিক থাকলে কোভিডের জটিলতাও কম হবে। এছাড়াও আরও অনেক রসুনের স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে। যা আমরা আজ এক এক আলোচনা করব।

খালি পেটে রসুন খেলে প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়

সকালে খালি পেটে এক কোয়া রসুন খাওয়া যে কতটা স্বাস্থ্যের জন্য অপকারী তা আলোচনা করা হলো।

খালি পেটে রসুন খাওয়া কি সত্যিই উপকার আছে? সত্যিই কি তাই? এই মশলা কেন ? এমন হাজারো প্রশ্ন আপনার মনে আসতে পারে তাই পোস্টটি শেষ পর্যন্ত পড়া অনুরোধ করছি।

এ রসুন বিষয়ে আলোচনা করেছেন পুষ্টিবিদ অন্তরা মজুমদার। অন্তরা বলেন, রসুন খাওয়ার এই প্রচলিত ধারণাটি সম্পুর্ন সঠিক। এটি সত্যিই খুব উপকারী খাবার মসলা। প্রাকৃতিকভাবে অ্যান্টিবায়োটিক এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ রসুন খুবই উপকারী।

এর রস খালি পেটে খেলে সহজেই শরীরকে অনেকক্ষণ ডিটক্সিফাই করে। সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর মেটাবলিক রেটও একটু বেশি থাকে। তাই এই মসলা খালি পেটে খেলে উপকার পাওয়া যায়। আসুন জেনে নেই সকালে খালি পেটে এক কোয়া রসুন খাওয়ার উপকারিতা কি-

১. অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর রসুন রক্তকে বিশুদ্ধ করে। রসুন রক্তে উপস্থিত চিনির পরিমাণও নিয়ন্ত্রণ করে।

২. সকালে খালি পেটে রসুনের কোয়া খেলে মেটাবলিজমের উন্নতি ঘটে যা সারা রাত স্থায়ী হয়। এছাড়াও, দূষিত টক্সিন প্রস্রাবের মাধ্যমে নির্গত হয়

৩. বর্তমানে শীত আসছে আর এই শীতকালে ঠান্ডা লাগলে খালি পেটে এক কোয়া রসুন খেলে উপকার পাওয়া যায়। দুই সপ্তাহ সকালে রসুন খেলে ঠান্ডা লাগার প্রবণতা অনেকটাই কমে যায়।

৪. হৃদরোগীদের ক্ষেত্রে রসুন বিশেষভাবে কার্যকরী একটি অসুধ বলতে পারেন। কারন হৃদস্পন্দন নিয়ন্ত্রণ করতে এবং হৃদপিন্ডের পেশীর দেয়ালে চাপ কমাতে সাহায্য করে।

৫. রসুন সঠিক রক্ত সঞ্চালন বজায় রাখে। রক্তনালীতে রক্তচাপ কমায়। তাই উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত রোগীদের খাবারে রসুন রাখটি জরুরী।

৬. রসুন লিভার এবং মূত্রাশয়কে তাদের কাজ করতে সাহায্য করে। এছাড়া পেটের বিভিন্ন সমস্যা এবং হজমের সমস্যা সারাতেও রসুন ভালো কাজ করে।

৭. ভাইরাস এবং সংক্রামক রোগ যেমন ব্রঙ্কাইটিস, নিউমোনিয়া, হাঁপানি, হুপিং কাশি ইত্যাদি প্রতিরোধ করতে রসুন কার্যকরী।

৮. রসুন নার্ভাস স্ট্রেস কমিয়ে মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম।

রসুন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

রসুনের অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য পূর্ন এটিকে অনেকটা ওষুধের মতই তৈরী করেছে, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। খালি পেটে রসুন খেলে আরও বেশি উপকার পাওয়া যায়। বর্তমানে এই চরম অবস্থায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো খুবই জরুরী তাই প্রতিদিন দুই কোয়া রসুন খেতে পারেন।

প্রতিদিন সকালে খালি পেটে দুই কোয়া রসুন খেলে আপনার শরীরের রক্ত সঞ্চালন বহু গুনে বৃদ্ধি পায়, যে কারণে রক্ত জমাট বাঁধার রোগগুলো থেকেউ মুক্তি পাওয়া যায়।

রসুন পুরুষের যৌন ক্ষমতা বাড়ায়
রসুন পুরুষের যৌন ক্ষমতা বাড়ায়

রসুন পুরুষের যৌন ক্ষমতা বাড়ায়

বিভিন্ন কারণে পুরুষের যৌন ক্ষমতা কমে যেতে পারে, সেক্ষেত্রে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে দুই কোয়া রসুন খেলে ধীরে ধীরে যৌন ক্ষমতা বাড়বে। এ নিয়ে দুই ধরনের মত থাকলেও পুরুষ শক্তির মূল উৎস রক্তের মসৃণ প্রবাহ। রসুনকে যৌন ক্ষমতা উৎস বলা হয় কারণ এটি মসৃণ প্রবাহ বৃদ্ধি করে।

যারা হার্টের ছোটখাটো সমস্যায় ভুগছেন, বুকের বাম দিকে মাঝে মাঝে ব্যথা অনুভব করেন। সিঁড়ি বেয়ে উঠতে অসুবিধা হয়, তাদের জন্য প্রতিদিন সকালে খালি পেটে পানির সাথে দুই কোয়া রসুন গিলে খেতে হবে, এতে হার্ট মজবুত হবে, রক্ত সঞ্চালন বাড়বে।

এবং হার্টের ব্লক গুলো বাড়তে পারবে না এবং ব্যাঘাত ঘটবে না, বুকের ব্যথা কমে যাবে, সিঁড়ি বেয়ে উঠতে অসুবিধা হবে না।

রসুন উচ্চ রক্তচাপ কমায়

উচ্চ রক্তচাপ কমাতে অনেক খাবারের মধ্যে রসুন হলো অন্যতম। এলডিএল বাড়ার কারণে শরীরের রক্তচাপ বেড়ে যায়, তাই প্রতিদিন সকালে খালি পেটে দুই কোয়া রসুন খেলে উচ্চ রক্তচাপ থেকে মুক্তি পাওয়া য়ায়।

যেকোনো সময় মানবদেহে সংক্রমণ হতে পারে। সংক্রামক রোগ এমন একটি অবস্থা যার কোনো উপসর্গ নেই। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে দুই কোয়া রসুন খেলে সংক্রমণ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

আরও পড়ুন: গোল আলুর উপকারিতা ও বৈজ্ঞানিক নাম

রসুন-ফুসফুসের-সংক্রমণ-প্রতিরোধ-করেরসুন ফুসফুসের সংক্রমণ প্রতিরোধ করে

ফুসফুসের সংক্রমণ বিভিন্ন কারণে হতে পারে। অ্যালার্জির সমস্যা, ঠান্ডা লাগার প্রবণতা থেকে ফুসফুসে সংক্রমণ হতে পারে। এর থেকে পরিত্রাণ পেতে, রসুন গুঁড়ো করে রস পান করুন যাতে সংক্রমণের বিস্তার রোধ হয়। আর প্রতিদিন খালি পেটে দুই কোয়া রসুন খাওয়া ফুসফুসের সংক্রমণ প্রতিরোধে খুবই কার্যকরী।

প্রতিদিন খালি পেটে দুই কোয়া রসুন খেলে রক্ত পরিশোধন ক্ষমতা বাড়ে এবং শরীরে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক হয়।

রসুন মুখের যেকোনো দাগ দুর করে

আপনার মুখে যদি যে কোন ধরনের দাগ থাকে আর আপনি যাদি সেটা নিয়ে চিন্তিত থাকেন এবং বিভিন্ন অসুধের না কমাতে পারেন তাহলে রসুর এর সাহায্য নিতে পারেন। কারন প্রতিদিন খালি পেটে দুই কোয়া রসুন খেলে ত্বক সুস্থ থাকে, ত্বকে বার্ধক্যের ছাপ পড়ে না এবং মুখের যেকোনো দাগ কমে যায়।

রসুন শরীরে অবাঞ্ছিত ফোলা বা গোটা দূর করে

অনেকের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ফোলা গোটা দেখা যায়, যেগুলো বাড়েও না আবার সেরেও যায় নায়, ব্যথা করে না, কিন্তু ফোলার স্থানটা দেখতে বিস্রি লাগে। তারা যদি প্রতিদিন সকালে ৬-৮ করে রসুনের কোয় খালি পেটে খায় এবং দুপুর ও রাতে খাবার পর ২টি করে কোয়া খান তাহলে ফোলা গোটা স্থানটি ধীরে ধীরে মিশে যাবে। যদি কাচা রসুন খেতে না পারেন তাহলে দুই কোয়া রসুন হালকা ভাজা করে খেতে পারেন।

রসুনে উপস্থিত অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট কোষের ক্ষতি এবং বার্ধক্য রোধ করে। মস্তিষ্কের কোষের ক্ষতি হ্রাস পায় এবং আলঝেইমার এবং ডিমেনশিয়ার মতো রোগ প্রতিরোধ করা যায়।

রসুন মুখের যেকোনো দাগ দুর করেরসুন মহিলাদের হাড়ের শক্তি বাড়ায়

একটি নির্দিষ্ট বয়সের পর বিভিন্ন কারণে মহিলাদের হাড়ের শক্তি কমে যায়। যেসব মহিলারা প্রতিদিন 2 গ্রাম রসুন খান তাদের শরীরে ইস্ট্রোজেনের মাত্রা ভারসাম্য বজায় থাকে, যাদের কম থাকে, তাদের সামান্য বৃদ্ধি পায়। ফলে হাড়ের সমস্যা অনেকটাই কমে যায়। এমনকি মেনোপজের মধ্য দিয়ে যাওয়া মহিলারাও নিয়মিত রসুন খেলে উপকার পাবেন।

রসুনের বিভিন্ন ডোজ রয়েছে, রসুন রান্নায় এবং বিভিন্ন ফিলিংয়ে উপস্থিত থাকে। রসুনের গুণাগুণ পেতে সকালে খালি পেটে রসুন খাওয়া ভালো। আমাদের গ্রাম বাংলায় রসুন খাওয়ার প্রবণতা রয়েছে।

আরও পড়ুন: ইংরেজিতে কথা বলার সহজ উপায়

সতর্কতা

অনেকেই মনে করেন রসুন হাঁপানির জন্যও উপকারী, তবে ব্যাপারটা আসলে তা নয়, এক্ষেত্রে অ্যান্টিফাঙ্গাল সক্রিয়ভাবে কাজ করে, তবে অ্যালার্জি জনিত অ্যাজমার ক্ষেত্রে রসুন কিছু কিছু ক্ষেত্রে সমস্যা তৈরী করতে পারে। অ্যালার্জি বাড়িয়ে দিতে পারে। আর একারনেই বিশেষজ্ঞরা অস্ত্রোপচারের আগে বা পরে রসুন এড়ানোর পরামর্শ দেন।

রসুনে অনেকেরই অ্যালার্জি থাকে এবং নিয়মিত খাওয়ার পর যদি কোনো অস্বস্তি অনুভব করেন তাহলে রসুন না খাওয়াই ভালো, তবে প্রাপ্তবয়স্করা তাদের স্বাস্থ্য রক্ষার জন্য নিয়মিত খাদ্যতালিকায় রাখতে পারেন।
বাজারে অনেক ধরনের আপনি রসুন পাওয়া যায়, এগুলোর মধ্যে এককোষী রসুন অনেকটা ভালো।

আরও পড়ুন কিভাবে ফেসবুক থেকে ভিডিও ডাউনলোড করবেন?

2 thoughts on “রসুনের স্বাস্থ্য উপকারিতা”

Leave a Comment