ইসলামিক নাম ও নামের অর্থ

সন্তান প্রতিটা পিতামাতার জন্য মূল্যবান সম্পদ ও বিশ্বের সৌন্দর্য স্বরূপ। এই অমূল্য সম্পদকে যেভাবে প্রতিপালন করা হবে ঠিক সেভাবেই গড়ে উঠবে। ছেলে-মেয়েকে ইসলামী আদর্শে লালন-পালন করা হলে তারা ইহকালে যেমন কাজে আসবে তেমনি পরকালে পিতা-মাতার জন্য মুক্তির কারণ হয়ে দাড়াবে।

কোন ব্যক্তি জান্নাতের সর্বোচ্চ মর্যাদায় উপবিষ্ট হলে সে অবাক হয়ে বলবে, আমি কি আমলের বিনিময়ে এমন মর্যাদা পেলাম? আমি এমন ভালো কাজ করিনি। বলা হবে আপনার জন্য আপনার সন্তানের দোয়ার কারণেই তোমাকে এই মর্যাদা দেওয়া হয়েছে। তাই শুরুতে সন্তানের জন্য একটি ইসলামি নির্বাচন করা উচিৎ,

যাই হোক আমাদের সাহায্যবিডি ডট কম ব্লোগের ইসলামিক নাম পেজে আমরা অধুনিক ইসলামিক নামের তালিকা ধুরে ধরার চেষ্টা করি। আশ করি আমারে এই পেজের পোস্ট গুলো থেকে যে কোন নামের অর্থ এবং নতুন নাম নির্বাচরন করতে সহায়তা করবে।

ইসলামিক নাম – নামের অর্থ কি

একটি নাম একটি নবজাত শিশুর আজীবন পরিচয় বহন করে। আর তাই প্রত্যেক পিতা-মাতা তাদের নবজাতক শিশুকে একটি আকর্ষণীয়, সুন্দর এবং সুসম্পর্কিত ইসলামিক নাম দেওয়ার চেষ্টা করেন।

তাই আজ আমি আপনাকে 2022 সালের সবচেয়ে জনপ্রিয় মুসলিম শিশুদের নাম বলতে যাচ্ছি যেগুলি পিতামাতার শীর্ষ পছন্দ। আমরা সেই মুসলিম শিশুদের নাম সংকলন করেছি এবং তাদের তালিকাভুক্ত করেছি যাতে আপনি আপনার নবজাতকের জন্য একটি ভাল অর্থের নাম চয়ন করতে পারেন।

এই তালিকায় উল্লেখিত অধিকাংশ নামই পবিত্র কোরআনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে উল্লেখ করা হয়েছে। 2022 সালের এই কুরআনের নামগুলির মধ্যে, ছেলে এবং মেয়ে এবং উভয় লিঙ্গের জন্য ব্যবহৃত নামগুলি স্থান পেয়েছে। এই নিবন্ধে, আমরা বাংলা, আরবি এবং ইংরেজিতে মুসলিম ছেলে-মেয়েদের ইসলামিক নামের বানান তুলে ধরেছি। তাহলে আসুন 2022 সালের মুসলিম নামগুলি অধ্যয়ন করি ..

সন্তানের জন্মের পর তার একটি সুন্দর ইসলামিক নাম রাখা প্রতিটি মুসলিম পিতা-মাতার কর্তব্য। মুসলিম বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের মুসলমানদের মতো, বাংলাদেশের মুসলমানরাও ইসলামিক সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের সাথে মিল রেখে শিশুর নাম বেছে নিতে আগ্রহী। এ কারণে নবজাতকের নাম নির্বাচনের জন্য পরিচিত আলেমদের শরণাপন্ন হন তারা।

তবে, সত্যি কথা বলতে, এই বিষয়ে আমাদের গবেষণা একেবারেই অপর্যাপ্ত। তাই যদিও আমরা ইসলামিক নাম রাখতে আগ্রহী, তবুও আমরা অজান্তেই এমন নাম বেছে নিই যেগুলো আদৌ ইসলামিক নামের অন্তর্ভুক্ত নয়। শব্দটি আরবি বা কোরান শব্দ হলে নামটি ইসলামিক হবে না। কোরানে বিশ্বের নিকৃষ্টতম কাফেরদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। ইবলিস, ফেরাউন, হামান, কারুন, আবু লাহাব ইত্যাদির নাম কোরআনে উল্লেখ আছে; তাহলে এই নামের মধ্যে নাম বা ডাক নাম রাখা কি সঙ্গত হবে!?

বলা হয় যে ব্যক্তির নাম তার চরিত্রে ইতিবাচক বা নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। শেখ বকর আবু জায়েদ বলেন, “প্রসঙ্গক্রমে একজন ব্যক্তির নামের সাথে তার স্বভাব ও বৈশিষ্ট্যের মিল রয়েছে। এটা আল্লাহর প্রজ্ঞার দাবি। যে ব্যক্তির নামের মধ্যে চপলতা রয়েছে তার চরিত্রেও ক্ষিপ্রতা পাওয়া যায়। যার নামের মধ্যে গাম্ভীর্য আছে তার চরিত্রে সিরিয়াসনেস পাওয়া যায়। বদনামের লোকের চরিত্রও খারাপ হয়ে যায়। একজন ভালো নামধারী ব্যক্তিও ভালো চরিত্রের অধিকারী। “

কারো ভালো নাম শুনলেই নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) আশাবাদী হতেন। হুদায়বিয়ার সন্ধির সময়, কাফেরদের প্রতিনিধিত্বকারী সুহাইল ইবনে আমর নামে এক ব্যক্তি মুসলমান ও কাফেরদের মধ্যে উত্তেজনার এক পর্যায়ে আলোচনার জন্য এগিয়ে আসেন। সাহলুন (সরল) শব্দটি শব্দের একটি ক্ষুদ্র রূপ। যার অর্থ- খুব সহজ। বিভিন্ন গোত্রের উত্তম শব্দার্থের নামে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আশাবাদী হওয়ার উদাহরণ রয়েছে। তিনি বললেন: “আল্লাহ গিফার গোত্রের লোকদের ক্ষমা করুন (ক্ষমা)। আল্লাহ আসলাম (আত্মসমর্পণ/শান্তিপূর্ণ) গোত্র বা গোত্রের লোকদের শান্তি দান করুন।

নবজাতকের নামকরণের জন্য এখানে কিছু নির্দেশিকা রয়েছে:

এক: নবজাতকের নাম রাখার সময় সম্পর্কে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে তিনটি বর্ণনা রয়েছে। জন্মের পরপরই শিশুর নাম রাখুন। শিশুর জন্মের তৃতীয় দিনে তার নাম রাখুন। জন্মের সপ্তম দিনে শিশুর নাম রাখুন। এ থেকে প্রতীয়মান হয় যে, ইসলাম এ ব্যাপারে মুসলমানদের অবকাশ দিয়েছে। যে কোন কিছুর উপর আমল করা যেতে পারে। এমনকি কোরানে কিছু নবীর নামও তাদের জন্মের আগে উল্লেখ করা হয়েছে।

দুই: আল্লাহর কাছে শ্রেষ্ঠ নাম হল আবদুল্লাহ ও আব্দুর রহমান। সহীহ মুসলিমে বর্ণিত আছে যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন:

حِنَّ حَحَبَّ َْسْمَائِكُمْ لَِلَى اللَّهِ عَبْدُ اللَّهِ وَعَبْدُ الرَّحْمَنِ

অর্থ: “তোমাদের নামের মধ্যে আল্লাহর কাছে সবচেয়ে প্রিয় হলেন আব্দুল্লাহ (আল্লাহর বান্দা)

এবং আব্দুর রহমান (রহমানের বান্দা)।

এই দুটি নাম আল্লাহর কাছে প্রিয় হওয়ার কারণ

এই দুটি নাম আল্লাহর দাসত্বকে স্বীকার করে।

তাছাড়া আল্লাহর সবচেয়ে সুন্দর দুটি নাম এই দুটি নামের সাথে সম্পর্কিত। একই কারণে আল্লাহর অন্যান্য নামের সাথে আরবি শব্দ ‘আব্দ’ (দাস বা দাস) যুক্ত করা উত্তম।

তিন: যেকোনো নবীর নাম রাখা উত্তম। যেহেতু তারা আল্লাহর মনোনীত বান্দা। হাদিসে বর্ণিত আছে যে, নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেনঃ “তোমার নামে আমার নাম রাখ। আমার কুনিয়াতে কুনিয়াত রাখো না (ছবি)। ” রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কুনিয়াত ছিলেন আবুল কাসিম। নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার নিজের সন্তানের নাম রেখেছেন ইব্রাহীম। আলেমরা উল্লেখ করেছেন যে, কোরানে ২৫ জন নবী-রাসূলের নাম উল্লেখ আছে। এ থেকে নবজাতকের জন্য পছন্দের যেকোনো নাম বেছে নেওয়া যেতে পারে।

চার: ভালো মানুষের নাম রাখা ভালো। ফলে প্রাসঙ্গিক নামের ব্যক্তির চরিত্র নবজাতকের ওপর প্রভাবের ব্যাপারে আশাবাদী হতে পারে। এ ধরনের আশাবাদ ইসলামে বৈধ। একে তাফাউল (تَفَاؤُلٌ) বলে। পরহেযগার ব্যক্তিদের মধ্যে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাহাবীগণ রয়েছেন। তারপর তাবেয়ীন। তারপর তাবে-তাবেঈন। তারপর আলেম সমাজ।

পাঁচ: আমাদের দেশে সন্তানের জন্মের পর নাম রাখার প্রতিযোগিতা চলে আত্মীয়স্বজনের মধ্যে। দাদার একটি নাম থাকলে নানা অন্য নাম পছন্দ করেন। বাবা-মা সন্তানকে এক নামে ডাকেন। খালা বা মামারা একেক নামে ডাকে। এইভাবে একটি বিব্রত প্রায়ই দেখা যায়। এ প্রসঙ্গে শেখ বকর আবু জায়েদ বলেন, নামকরণ নিয়ে বাবা-মায়ের মধ্যে বিরোধ দেখা দিলে নামকরণে শিশুর বাবা অগ্রাধিকার পাবেন। “তাদের পূর্বপুরুষের নামে ডাক। আল্লাহর দৃষ্টিতে এটাই সঠিক। ” [সূরা আল-আহযাব 33:5] আত্মীয়স্বজন বা অন্য কোনো ব্যক্তি সন্তানের পিতার অনুমোদনের পর সন্তানের নাম রাখতে পারেন। তবে শিশুর জন্য যে নাম বেছে নেওয়া হয় সেই নামেই ডাকতে হবে। আর বিরোধ থাকলে বাবা অগ্রাধিকার পাবেন।

ছয়: একজন ব্যক্তির প্রতি সম্মান প্রদর্শনের জন্য, তাকে তার সন্তানের নামের দ্বারা গঠিত ডাকনাম বা উপনাম দ্বারা ডাকা যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে বড় সন্তানের নামের আগে আবু বা পিতা শব্দটি সংযুক্ত করে কুনিয়াত লাগানো উত্তম। যেমন, কারো বড় ছেলের নাম “উমর” হলে তার ডাকনাম হবে আবু উমর (উমরের পিতা)। এক্ষেত্রে জ্যেষ্ঠ সন্তানের নাম নির্বাচনের উদাহরণ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর আমলে পাওয়া যায়। সাহাবীদের একজন ছিলেন আবুল হাকাম। যেহেতু হাকাম আল্লাহর বিশেষ নাম তাই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তা পরিবর্তন করেছেন। তিনি জিজ্ঞেস করলেনঃ তোমার কি ছেলে নেই? সাহাবীগণ বললেনঃ শুরাইহ, মুসলিম ও আব্দুল্লাহ।

তিনি বললেনঃ তাদের মধ্যে সবচেয়ে বড় কে? সাহাবীগণ বললেনঃ শুরাইহ। তখন নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ তোমার নাম হবেঃ আবু শুরাইহ। “

সাত: কারো নাম ইসলামী না হলে; ইসলামি শরীয়তে নিষিদ্ধ কোনো নাম থাকলে এমন নাম পরিবর্তন করা উচিত। যেমন, পূর্বে উল্লেখিত হাদিস থেকে আমরা জানি যে, ‘হাকাম’ শব্দটি একজন সাহাবীর সাথে যুক্ত ছিল, তবে হাকাম আল্লাহর বিশেষ নামের একটি; তাই নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) তা পরিবর্তন করে আবূ শুরাইহ রা. মহিলা সাহাবী জয়নাব (রা.)-এর নাম ছিল বাররা (بَرَّةٌ – পূর্ণবতী)। একথা শুনে নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) তাকে বললেন, তুমি কি ভান করছ? অতঃপর নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) তাঁর নাম পরিবর্তন করে যয়নাব রাখেন।

আট: ইদানীং আমাদের দেশে বাংলা শব্দে নাম রাখার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। ইসলামী নীতিমালা লঙ্ঘন না করলে এবং এ অঞ্চলের মুসলমানদের ঐতিহ্যের সাথে সাংঘর্ষিক না হলে এমন নাম রাখায় দোষের কিছু নেই। আল-মাওসুআ আল-ফিকহিয়া কুয়েত, বা কুয়েতের ফিকহের বিশ্বকোষে বলা হয়েছে: “নামকরণের নীতি হল যে কোনও নবজাতকের নাম রাখা জায়েজ; যদি না এ বিষয়ে শরীয়তে কোনো নিষেধাজ্ঞা না থাকে। কারণ নশ্বর সৃষ্টিকে অমর স্রষ্টা আল্লাহর গুণাবলী দ্বারা দান করা জায়েজ নয়।

ছয়: একজন ব্যক্তির প্রতি সম্মান প্রদর্শনের জন্য, তাকে তার সন্তানের নামের দ্বারা গঠিত ডাকনাম বা উপনাম দ্বারা ডাকা যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে বড় সন্তানের নামের আগে আবু বা পিতা শব্দটি সংযুক্ত করে কুনিয়াত লাগানো উত্তম। যেমন, কারো বড় ছেলের নাম “উমর” হলে তার ডাকনাম হবে আবু উমর (উমরের পিতা)।

এক্ষেত্রে জ্যেষ্ঠ সন্তানের নাম নির্বাচনের উদাহরণ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর আমলে পাওয়া যায়। সাহাবীদের একজন ছিলেন আবুল হাকাম। যেহেতু হাকাম আল্লাহর বিশেষ নাম তাই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তা পরিবর্তন করেছেন। তিনি জিজ্ঞেস করলেনঃ তোমার কি ছেলে নেই? সাহাবীগণ বললেনঃ শুরাইহ, মুসলিম ও আব্দুল্লাহ।

তিনি বললেনঃ তাদের মধ্যে সবচেয়ে বড় কে? সাহাবীগণ বললেনঃ শুরাইহ। তখন নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ তোমার নাম হবেঃ আবু শুরাইহ। “

সাত: কারো নাম ইসলামী না হলে; ইসলামি শরীয়তে নিষিদ্ধ কোনো নাম থাকলে এমন নাম পরিবর্তন করা উচিত। যেমন, পূর্বে উল্লেখিত হাদিস থেকে আমরা জানি যে, ‘হাকাম’ শব্দটি একজন সাহাবীর সাথে যুক্ত ছিল, তবে হাকাম আল্লাহর বিশেষ নামের একটি; তাই নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) তা পরিবর্তন করে আবূ শুরাইহ রা. মহিলা সাহাবী জয়নাব (রা.)-এর নাম ছিল বাররা (بَرَّةٌ – পূর্ণবতী)। একথা শুনে নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) তাকে বললেন, তুমি কি ভান করছ? অতঃপর নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) তাঁর নাম পরিবর্তন করে যয়নাব রাখেন।

আট: ইদানীং আমাদের দেশে বাংলা শব্দে নাম রাখার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। ইসলামী নীতিমালা লঙ্ঘন না করলে এবং এ অঞ্চলের মুসলমানদের ঐতিহ্যের সাথে সাংঘর্ষিক না হলে এমন নাম রাখায় দোষের কিছু নেই। আল-মাওসুআ আল-ফিকহিয়া কুয়েত, বা কুয়েতের ফিকহের বিশ্বকোষে বলা হয়েছে: “নামকরণের নীতি হল যে কোনও নবজাতকের নাম রাখা জায়েজ; যদি না এ বিষয়ে শরীয়তে কোনো নিষেধাজ্ঞা না থাকে। কারণ নশ্বর সৃষ্টিকে অমর স্রষ্টা আল্লাহর গুণাবলী দ্বারা দান করা জায়েজ নয়।

ছয়: একজন ব্যক্তির প্রতি সম্মান প্রদর্শনের জন্য, তাকে তার সন্তানের নামের দ্বারা গঠিত ডাকনাম বা উপনাম দ্বারা ডাকা যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে বড় সন্তানের নামের আগে আবু বা পিতা শব্দটি সংযুক্ত করে কুনিয়াত লাগানো উত্তম।

যেমন, কারো বড় ছেলের নাম “উমর” হলে তার ডাকনাম হবে আবু উমর (উমরের পিতা)। এক্ষেত্রে জ্যেষ্ঠ সন্তানের নাম নির্বাচনের উদাহরণ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর আমলে পাওয়া যায়। সাহাবীদের একজন ছিলেন আবুল হাকাম।

যেহেতু হাকাম আল্লাহর বিশেষ নাম তাই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তা পরিবর্তন করেছেন। তিনি জিজ্ঞেস করলেনঃ তোমার কি ছেলে নেই? সাহাবীগণ বললেনঃ শুরাইহ, মুসলিম ও আব্দুল্লাহ।

তিনি বললেনঃ তাদের মধ্যে সবচেয়ে বড় কে? সাহাবীগণ বললেনঃ শুরাইহ। তখন নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ তোমার নাম হবেঃ আবু শুরাইহ। “

সাত: কারো নাম ইসলামী না হলে; ইসলামি শরীয়তে নিষিদ্ধ কোনো নাম থাকলে এমন নাম পরিবর্তন করা উচিত। যেমন, পূর্বে উল্লেখিত হাদিস থেকে আমরা জানি যে, ‘হাকাম’ শব্দটি একজন সাহাবীর সাথে যুক্ত ছিল, তবে হাকাম আল্লাহর বিশেষ নামের একটি; তাই নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) তা পরিবর্তন করে আবূ শুরাইহ রা. মহিলা সাহাবী জয়নাব (রা.)-এর নাম ছিল বাররা (بَرَّةٌ – পূর্ণবতী)।

একথা শুনে নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) তাকে বললেন, তুমি কি ভান করছ? অতঃপর নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) তাঁর নাম পরিবর্তন করে যয়নাব রাখেন।
আট: ইদানীং আমাদের দেশে বাংলা শব্দে নাম রাখার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে।

ইসলামী নীতিমালা লঙ্ঘন না করলে এবং এ অঞ্চলের মুসলমানদের ঐতিহ্যের সাথে সাংঘর্ষিক না হলে এমন নাম রাখায় দোষের কিছু নেই। আল-মাওসুআ আল-ফিকহিয়া কুয়েত, বা কুয়েতের ফিকহের বিশ্বকোষে বলা হয়েছে: “নামকরণের নীতি হল যে কোনও নবজাতকের নাম রাখা জায়েজ; যদি না এ বিষয়ে শরীয়তে কোনো নিষেধাজ্ঞা না থাকে। কারণ নশ্বর সৃষ্টিকে অমর স্রষ্টা আল্লাহর গুণাবলী দ্বারা দান করা জায়েজ নয়।