গর্ভবতী মায়ের খাবার তালিকা

নিয়মিত পর্যাপ্ত পরিমাণে খাওয়া প্রত্যেকের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং এটি গর্ভাবস্থায় আরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এ সময় খাবারে পর্যাপ্ত পরিমাণে পুষ্টি, ভিটামিন থাকা উচিত যা থেকে গর্ভের শিশু পর্যাপ্ত পুষ্টি, খনিজ ও ভিটামিন পায়। আর অনেক সময় আমরা অজান্তেই বিভিন্ন ধরনের খাবার খেয়ে ফেলি যা বাচ্চা ও মা উভয়েরই ক্ষতি করে।

এই পৃথিবীর প্রতিটি শিশুর জন্য মা জীবন বাঁচানোর ঢালের মতো। মায়ের সীমাহীন স্নেহ ও ভালোবাসায় শিশুরা নিরাপদে বেড়ে ওঠে। তাই সবার আগে মায়ের পুষ্টির দিকটি বিবেচনায় নিতে হবে।

আরও পড়ুনঃ  দীপিকা পাডুকোন-Deepika Padukone

গর্ভবতী মায়ের খাবার তালিকা
গর্ভবতী মায়ের খাবার তালিকা

গর্ভবতী মায়ের সঠিক পরিচর্যাই একটি সুস্থ স্বাভাবিক শিশুর জন্ম দেওয়ার প্রধান শর্ত। গর্ভাবস্থার প্রথম তিন মাস অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। এই সময়ে, গর্ভবতী মহিলারা অনেক ক্ষেত্রে ক্ষুধা হ্রাস, বমি বমি ভাব, ওজন হ্রাস এবং রক্তশূন্যতা অনুভব করেন। তাই পরিবারের সদস্যদের গর্ভবতী মায়ের স্বাস্থ্য ও সুষম খাদ্য নিশ্চিত করতে হবে। বিশেষ করে পাঁচ মাস থেকে গর্ভের শিশুর সঠিক বৃদ্ধির জন্য মায়ের খাবার সুষম হতে হবে। সঙ্গে আমিষ, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন, মিনারেল এবং পর্যাপ্ত পানি। সেই সঙ্গে পর্যাপ্ত ঘুম বা বিশ্রাম নিশ্চিত করতে হবে।

গর্ভাবস্থা যেকোনো দম্পতি এবং তাদের প্রিয়জনের জন্য একটি খুব উত্তেজনাপূর্ণ সময় হতে পারে। এ সময় মা ও অনাগত সন্তান উভয়েরই অনেক যত্নের প্রয়োজন হয়। Covid-19 আতঙ্ক বর্তমানে বিশ্বজুড়ে বিরাজ করছে। এমন পরিবেশে গর্ভবতী মায়ের স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়া খুবই জরুরি হয়ে পড়েছে।

গর্ভবতী মায়ের খাদ্য তালিকা, ব্যায়াম ও বিশ্রামের সঠিক নির্দেশনা সম্পর্কে সচেতন হওয়া খুবই জরুরি। একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্য তালিকা বজায় রাখা সংক্রমণ এড়ানোর একমাত্র উপায় নয়। পাশাপাশি মানসিক দিকও আনবে প্রফুল্লতা। গর্ভাবস্থার আগে, গর্ভাবস্থায় এবং পরে একটি পুষ্টিকর খাদ্য তালিকা অনুসরণ করার প্রয়োজনীয়তা জীবনের অন্যান্য সময়ের চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি গর্ভবতী হওয়ার পরিকল্পনা করেন বা গর্ভবতী হন, তাহলে আমরা এই নিবন্ধে আপনার জন্য নির্দিষ্ট খাবারের তালিকা তুলে ধরব। অনেক কথা বলে ফেললাম এবার মূল আলোচনায় চাই-

আরও পড়ুনঃ  প্রেমিকার জন্য রোমান্টিক কথা

গর্ভাবস্থায় যেসব খাবার খেতে হবে

ফল এবং সবজি
দিনে পাঁচ বার ফল এবং সবজি খাওয়ার চেষ্টা করুন। ফলের চেয়ে শাকসবজি বেশি খান। আপনি জুস এবং স্মুদিও পান করতে পারেন। তবে এগুলো চিনি রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়াতে পারে এবং দাঁতেরও নষ্ট হওয়ার কারন হতে পারে। তাই এগুলো একটুু কম পরিমাণে পান করাই স্রেয়। আর তাজা ফল এবং শাকসবজি খাওয়া প্রতিটা মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

দুগ্ধজাত খাবার
দুধ, পনির, দই ইত্যাদি ক্যালসিয়ামের উৎকৃষ্ট উৎস। খেয়াল রাখতে হবে এগুলোতে যেন চিনি ও চর্বির পরিমাণ কম থাকে। চর্বিযুক্ত খাবার শিশুর মস্তিষ্কের কোষ তৈরি করতে সাহায্য করে।

স্টার্চি খাবার
স্টার্চযুক্ত খাবার যেমন আলু, লাল ভাত, রুটি, পাস্তা ইত্যাদি আপনার প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করুন। কার্বোহাইড্রেট শরীরে শক্তি জোগাতে সাহায্য করে।

প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার
প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার যেমন চর্বিহীন মাংস, মুরগি, মাছ, ডিম, ডাল (মটর, মসুর) খান। সপ্তাহে দুই দিন বা তার বেশি মাছ খাওয়ার চেষ্টা করুন। তৈলাক্ত মাছ বা সামুদ্রিক মাছ যেমন সার্ডিন, স্যামন সপ্তাহে এক দিন খেতে পারেন। আমিষ খাবার ভ্রূণে নতুন টিস্যু গঠনে সাহায্য করে।

অনেকের শরীরে আয়োডিনের ঘাটতি থাকে। আয়োডিন একটি খনিজ যা শিশুর মস্তিষ্ক গঠনের জন্য অপরিহার্য। দুগ্ধজাত খাবার এবং সামুদ্রিক খাবার আয়োডিনের চমৎকার উৎস।

গর্ভাবস্থায় মায়ের শরীর অনেক বেশি কাজ করে। যাইহোক, আপনার সাধারণত প্রথম ছয় মাসে অতিরিক্ত ক্যালোরির প্রয়োজন হয় না। সর্বোত্তম উপায় হল যখনই ক্ষুধার্ত তখনই খাওয়া।

আরও পড়ুনঃ  এমিবিক আমাশয় কোন অনুজীবের কারণে হয়

গর্ভবতী মায়ের ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার

গর্ভবতী মায়েদের প্রথম তিন মাস তাদের খাদ্যতালিকায় ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। গর্ভবতী মায়েদের জন্য ভিটামিন সি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভিটামিন সি আছে এমন খাবার-

মাল্টা বা কমলা
কমলার ভিটামিন সি ফলমুলটা বা কলমায় পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে। এই দুটি রঙিন ফল ভিটামিন সি-এর একটি ভালো উৎস। গর্ভবতী মায়েদের প্রতিদিনের খাবারে অন্তত দুটি রঙিন ফল রাখার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা। তিনি মালটা বা কমলা পছন্দ করেন।

গর্ভাবস্থার প্রথম পিরিয়ডের সময় অনেক মায়ের বেশি বমি বা বমি হয়। যার কারণে এই সব মায়েরা সহজেই মাল্টা কমলা ফল খেতে পারেন। মাল্টা ফল সারা বছরই পাওয়া যায়। যার অর্থ এটি বছরের সবচেয়ে বিভ্রান্তিকর সময়ও হতে চলেছে।

সবুজ মরিচ
কাঁচা মরিচ থেকে ভিটামিন সিও নিতে পারেন। প্রতিদিনের খাবারের সাথে একটি করে কাঁচা মরিচ খেতে পারেন। যাইহোক, গর্ভাবস্থায় অনেকের খাওয়ার সমস্যা হয়, তাই আপনি নিজেই সিদ্ধান্ত নিন কোন খাবার আপনার জন্য ভাল।

আম ও পেয়ারা
আপনি যেকোনো আচারযুক্ত ফল থেকে ভিটামিন সি নিতে পারেন। আম ও পেয়ারা থেকেও পর্যাপ্ত ভিটামিন সি পাওয়া যায়। আম মৌসুমি আম হলেও পেয়ারা প্রায় সারা বছরই পাওয়া যায়। তবে গর্ভাবস্থায় বেশি করে মৌসুমি ফল খেতে পারেন। সব মৌসুমি ফল থেকেই আপনি পেতে পারেন পরিপূর্ণ পুষ্টি।

এছাড়াও আপনি ফুলকপি এবং ক্যাপসিকাম থেকে ভিটামিন-সি পাবেন। বিভিন্ন রঙের সবজি মিশিয়ে প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় রাখুন। তবে প্রতিদিনের খাদ্য তালিকা থেকে ভিটামিন সি যেন বাদ না পড়ে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

আরও পড়ুনঃ  আমার সোনার ময়না পাখি

গর্ভবতী মায়ের জন্য ফলিক এসিড যুক্ত খাবার

ফলে পাওয়া অ্যাসিড বা ভিটামিন B9 গর্ভবতী মা এবং শিশু উভয়ের জন্যই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। জন্মগত ত্রুটি এড়াতে এর ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অতএব, গর্ভধারণের তিন মাস আগে থেকে প্রতিদিন 400 মাইক্রো গ্রাম ফলিক অ্যাসিড গ্রহণ করা গুরুত্বপূর্ণ। তবে প্রাকৃতিক খাবার থেকে নেওয়া ভালো। যেসব খাবারে ফলিক অ্যাসিড থাকে

মাল্টা
মালটা ভিটামিন সি এর পাশাপাশি ফলিক এসিড সমৃদ্ধ। এই ফল প্রায় সারা বছরই পাওয়া যায়। এটি একটি সুস্বাদু এবং সহজলভ্য ফল। গর্ভবতী মায়েরা চাইলে জুস বানিয়ে খেতে পারেন। একটি 100 গ্রাম মাল্টায় 55 মাইক্রো গ্রাম ফলিক অ্যাসিড থাকে। যা একজন গর্ভবতী মায়ের জন্য প্রয়োজনীয় ফলিক অ্যাসিডের 14% পর্যন্ত পূরণ করতে পারে।

এতে প্রয়োজনীয় মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টও রয়েছে, যা শরীরকে বিভিন্ন রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করে।

পাকা কলা
কলা একটি সহজলভ্য ফল এবং সারা বছরই পাওয়া যায়। কলাতে রয়েছে পটাশিয়াম, ভিটামিন বি৬। পাকা কলায় প্রায় সব ধরনের ভিটামিন ও মিনারেল থাকে। অন্যান্য ফলের তুলনায় পাকা কলাতে ফলিক অ্যাসিডের পরিমাণ বেশি থাকে। যা গর্ভবতী মায়েদের দৈনন্দিন চাহিদার অধিকাংশ পূরণ করে।

একশ গ্রাম পাকা কলায় 23.6 মাইক্রো গ্রাম ফলিক অ্যাসিড থাকে। এছাড়াও আপনি দুধ, মধু, সবুজ শাক-সবজি এবং রঙিন, ডাল এবং বিভিন্ন বীজে পর্যাপ্ত পরিমাণে ফলিক অ্যাসিড পাবেন।

আরও পড়ুনঃ ভোটার আইডি কার্ড চেক

গর্ভবতী মায়ের জন্য আয়রন সমৃদ্ধ খাবার

গর্ভবতী মায়েদের অনেক বেশি আয়রন প্রয়োজন। এ সময় আয়রন সমৃদ্ধ খাবারের প্রতি বিশেষ নজর দিতে হবে, যাতে প্রতিদিনের খাদ্য তালিকা থেকে আয়রন বাদ না পড়ে।

আয়রন আপনার অনাগত শিশুর বিকাশ এবং প্রসবের সময় আপনার রক্তপাত কমাতে সাহায্য করবে। আয়রনের ঘাটতি হলে শরীর পর্যাপ্ত অক্সিজেন পায় না।

খেজুর, কিসমিস, পালং শাক, সামুদ্রিক মাছ, পালং শাক, ডাল, ডার্ক চকলেট, বাদাম, আপেল ইত্যাদি অনেক খাবারেই আয়রন পাওয়া যায়।

প্রতিদিনের খাবারের সাথে দুই থেকে তিনটি খেজুর ও কিছু কিশমিশ খেতে পারেন। এতে আপনার আয়রনের চাহিদা পূরণ হবে। এতে পর্যাপ্ত পরিমাণে ক্যালসিয়ামও রয়েছে।

এছাড়াও আপনি আপনার দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় পালং শাক, ডাল, ডার্ক চকলেট, মুরগির মাংস, মাছ, ডিম অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। সারাদিন বা রাতে একটি আপেল খেলে আপনার আয়রনের চাহিদা পূরণ হবে।

গর্ভবতী মায়ের ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার

গর্ভবতী মায়েদের প্রথম ত্রৈমাসিকের জন্য তাদের ডায়েটে আরও রঙিন শাকসবজি এবং ফল খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। যদি বিভিন্ন ধরনের রঙিন শাকসবজি একসঙ্গে মিশিয়ে খাওয়া যায়, তাহলে তা ভিটামিন এ-এর চাহিদা পূরণ করে। এর সঙ্গে খেতে হবে রঙিন ফল। এছাড়াও যকৃতে প্রচুর পরিমাণে আয়রন এবং ভিটামিন এ থাকে।

তবে লিভারে প্রচুর ভিটামিন এ থাকার কারণে গর্ভাবস্থায় এটি খাওয়া নিষিদ্ধ। কারণ ভিটামিনের পরিমাণ বেশি হলেও গর্ভাবস্থায় সমস্যা দেখা দিতে পারে।

আরও পড়ুনঃ  কিভাবে ফেসবুকে প্রতিদিন 500 আয় করা যায়

গর্ভবতী মায়ের প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার

গর্ভবতী মায়েদের খাদ্যতালিকায় প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার অন্তর্ভুক্ত করা খুবই জরুরি। প্রথম তিন মাসে মায়েদের প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় স্থানীয় মাছ, মাংস, ডিম, মুরগির মাংস এবং ডাল অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

যারা মাছ মাংস কম খেতে পারেন তারা অন্তত একটি ডিম খাওয়ার চেষ্টা করবেন। সম্ভব হলে প্রতিদিন ২টি করে ডিম খান। যারা এই সময়ে সেদ্ধ ডিম খেতে পারেন না, তারা এর মধ্যে ফোরটিফাইড খেতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ, আপনি ডিমের সাথে আলু মেশাতে পারেন, সেগুলি ম্যাশ করে খেতে পারেন বা আপনি ডিম ভাজতে পারেন। অথবা ডিমের পুডিং বানিয়ে খেতে পারেন।

এ সময় বেশি করে ছোট মাছ খান। ছোট মাছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম পাওয়া যায়। কম খাবারে বেশি ক্যালরি পেতে একটু আলু, ডিম, ডাল মিশিয়ে খান। মাছ বা মাংসের সঙ্গে দুই-তিন রঙের সবজি মিশিয়ে খেতে পারেন। এই মিশ্র খাবারকে বলা হয় হক ফরটিফিকেশন।

আরও পড়ুনঃ চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

গর্ভবতী মায়ের ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার

দুধ, দই, পনির ইত্যাদিতে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম থাকে। চর্বিযুক্ত খাবার শিশুর দাঁত, হাড় এবং মস্তিষ্কের কোষ তৈরি করতে সাহায্য করে।

গর্ভবতী মায়েদের প্রতিদিন এক গ্লাস দুধ খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। দুধ পান করতে সমস্যা হলে দই বা দুধ দিয়ে তৈরি অন্যান্য খাবার খেতে পারেন। তবে, আপনার খাদ্যতালিকায় ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার অন্তর্ভুক্ত করতে ভুলবেন না। ক্যালসিয়াম ছাড়াও দুগ্ধজাত খাবারে যথেষ্ট আয়রন থাকে, যা গর্ভবতী মায়েদের জন্য অপরিহার্য।

একজন মায়ের গর্ভাবস্থায় অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি ক্যালোরি এবং পুষ্টির প্রয়োজন। অতএব, গর্ভবতী মায়েদের খাবার খাওয়ার সর্বোত্তম উপায় হল যখনই তারা ক্ষুধার্ত হয় তখনই খাওয়া এবং কম ঘন ঘন খাওয়া।

আরও পড়ুনঃটেলিটকসহ সকল সিমের নাম্বার দেখার উপায়

গর্ভবতী মায়ের স্টার্চি খাবার

আলু, লাল আটার রুটি, লাল ভাত, পাস্তা ইত্যাদি এসব খাবারে প্রচুর পরিমাণে স্টার্চ থাকে। এসব খাবার গর্ভবতী মায়েদের খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা উচিত।

আপনি চাইলে সকালের নাস্তায় লাল আটার রুটি, পাস্তা, আলু খেতে পারেন। লাল ভাতের সঙ্গে বেশি করে সবজি খেলে মায়ের শরীরে পর্যাপ্ত পুষ্টি পাওয়া যাবে।

গর্ভাবস্থার এই সময়ে, আপনার নিজের পরীক্ষা অনুযায়ী আপনার খাবারের চার্ট তৈরি করুন। যতটা সম্ভব আপনার নিজের খাবার তৈরি করার চেষ্টা করুন।

গর্ভবতী মায়ের তরল খাবার গ্রহণ

তরল খাবারে গর্ভাবস্থায় পর্যাপ্ত পরিমাণে বিশুদ্ধ পানি পান করা জরুরি। বেশি পানি পান করতে সমস্যা হলে নারকেল পানি ও স্যালাইন যোগ করতে পারেন।

এছাড়াও উদ্ভিজ্জ স্যুপ, মুরগির স্যুপ এবং অন্যান্য তরল খাবার খান। একজন গর্ভবতী মাকে প্রতিদিন 18 থেকে 20 গ্লাস পানি পান করতে বলা হয়। শিশুর হরমোনের বৃদ্ধি ও বিকাশের জন্য এটি অনেক বেশি প্রয়োজন।

গর্ভবতী মায়ের ভিটামিন ডি গ্রহণ

গর্ভাবস্থায় শিশুর জন্য ভিটামিন-ডি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভিটামিন-ডি শিশুর মস্তিষ্কের বিকাশে সাহায্য করে। একজন গর্ভবতী মায়ের জন্য তার শিশুর বুদ্ধিমত্তা বিকাশের জন্য তার গর্ভাবস্থার শুরু থেকেই ভিটামিন ডি গ্রহণ করা গুরুত্বপূর্ণ।

ভিটামিন ডি এর প্রধান উৎস হল সূর্যালোক। আমরা আমাদের ভিটামিন ডি এর 60 শতাংশ পর্যন্ত সূর্যের আলো থেকে পাই। পর্যাপ্ত ভিটামিন ডি পাওয়ার জন্য, মায়েদের গর্ভাবস্থায় কমপক্ষে 30 মিনিটের জন্য যতটা সম্ভব সূর্যের আলোতে পর্দা উন্মুক্ত করা উচিত। এটি শিশুর হাড় গঠনের পাশাপাশি বুদ্ধিমত্তার বিকাশে সাহায্য করবে।

আরও পড়ুনঃ কিভাবে ফেসবুকে প্রতিদিন 500 আয় করা যায়

গর্ভাবস্থায় যে খাবারগুলি খাওয়া উচিত নয়:

গর্ভাবস্থার প্রথম ত্রৈমাসিকের খাদ্য তালিকা একজন মায়ের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। ভুল খাবারের কারণে এ সময় শিশুর গর্ভপাত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। এ কারণে গর্ভবতী মায়েদের খাদ্যাভ্যাসের প্রতি বিশেষ নজর দিতে হবে।

কাঁচা ডিম
ডিম একটি পুষ্টিকর খাবার। অনেকেরই কাঁচা ডিম খাওয়ার অভ্যাস আছে। তবে গর্ভাবস্থায় কাঁচা ডিম খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। কারণ কাঁচা ডিমে সালমোনেলা নামক ব্যাকটেরিয়া থাকে যা ভ্রূণের জন্য ভালো নয়। তাই ভালোভাবে সিদ্ধ না করে ডিম খাওয়া যাবে না।

 অর্ধেক রান্না করা মাংস
অর্ধেক রান্না করা মাংসে ব্যাকটেরিয়া থাকতে পারে। এছাড়াও আপনি সসেজের মতো প্যাকেটজাত মাংস খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। মাংস ভালো করে সেদ্ধ করতে হবে।

পাস্তুরিত দুধ
পাস্তুরিত দুধ বা কাঁচা দুধে লিস্টেরিয়া নামক ব্যাকটেরিয়া থাকে। তাই ভালো না করে সিদ্ধ দুধ পান করা যাবে না। পাস্তুরিত দুধ দিয়ে তৈরি খাবার যেমন নরম পনির এড়িয়ে চলতে হবে।

যকৃত এবং যকৃতের তৈরি খাবার
লিভারে রেটিনল থাকে, যা একটি প্রাণীজ ভিটামিন এ। এর অতিরিক্ত ভ্রূণের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

ক্যাফেইন

একজন গর্ভবতী মা 200 গ্রামের বেশি ক্যাফিন খেতে পারবেন না। বেশি খেলে মা ও শিশু উভয়েরই ক্ষতি হতে পারে। তবে অনেকের মতে গর্ভবতী মায়েদের খাবারে ক্যাফেইন থাকা উচিত নয়।

ক্লান্তি দূর করতে কফি কার্যকর হলেও গর্ভাবস্থায় তা পরিমিতভাবে গ্রহণ করা উচিত। চা, কফি ইত্যাদিতে ক্যাফেইন থাকে। প্রতিদিন 200 গ্রামের বেশি ক্যাফেইন গ্রহণ করা ঠিক নয়। অতিরিক্ত ক্যাফেইন কম ওজনের শিশুদের জন্ম দিতে পারে। গর্ভপাতের মতো ঘটনাও ঘটতে পারে।

সামুদ্রিক মাছ
সামুদ্রিক মাছ স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। কিন্তু বেশি খেলে ভ্রূণের স্নায়ুতন্ত্রের ক্ষতি হতে পারে। কারণ সামুদ্রিক মাছে পারদ থাকে।

কাঁচা বা আধা পাকা পেঁপে
গর্ভবতী মহিলাদের জন্য কাঁচা বা আধা পাকা পেঁপে খাওয়া বিপজ্জনক। এর ফলে গর্ভপাত হতে পারে।

হার্ভার্ড স্কুল অফ পাবলিক হেলথ গর্ভবতী মহিলাদের জন্য হার্ভার্ড হেলদি ইটিং প্লেট নামে একটি নির্দেশিকা প্রকাশ করেছে। যেখানে তারা গোটা শস্য জাতীয় খাবার খাওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। স্বাস্থ্যকর উদ্ভিজ্জ তেল গ্রহণ করার পরামর্শ দেওয়া হয়। দুধ এবং দুগ্ধজাত খাবার সীমিত পরিমাণে অর্থাৎ দিনে 1/2 বার খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। লাল মাংস সীমিত পরিমাণে এবং প্রক্রিয়াজাত মাংস এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেওয়া হয়। মিহি দানা এবং সাদা ভাত দিয়ে তৈরি সাদা রুটিও এড়িয়ে যেতে বলা হয়। এটি প্রচুর পরিমাণে জল পান করার এবং চিনিযুক্ত পানীয় এড়ানো এবং নিয়মিত ব্যায়াম করার পরামর্শ দেয়।

 আনারস এবং আঙ্গুর
গর্ভাবস্থায় আনারস খাবেন না। এটি গর্ভপাত ঘটাতে পারে। বেশি পরিমাণে জাম্বুরা খেলে হজমের সমস্যা হয়। যা গর্ভাবস্থায় মায়েদের বেশি খাওয়া উচিত নয়।

মূলত দিনে দুই কাপ চা বা এক কাপ কফিতে 200 গ্রাম ক্যাফেইন নেওয়া হয়। অতিরিক্ত ক্যাফেইন কম ওজনের শিশুদের জন্ম দিতে পারে।

আনপাস্তুরাইজড দুধ
পাস্তুরিত দুধে লিস্টেরিয়া নামক ব্যাকটেরিয়া থাকে। যা গর্ভাবস্থায় মা ও শিশুর ক্ষতি করতে পারে। তাই ভালো করে সিদ্ধ করতে হবে।

কলিজা এবং সামুদ্রিক মাছ
লিভারে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ থাকে। অতিরিক্ত ভিটামিন এ শিশুর ক্ষতি করতে পারে। যার কারণে প্রথম তিন মাস মায়েদের এটি খেতে নিষেধ করা হয়।

সামুদ্রিক মাছে আয়রন ও ওমেগা-৩ বেশি থাকে, তবে সামুদ্রিক মাছে পারদ বেশি থাকে। যা শিশুর স্নায়ুতন্ত্রের ক্ষতি করে। তাই গর্ভাবস্থায় সামুদ্রিক মাছের পরিবর্তে বেশি করে দেশি মাছ খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। অন্যান্য সামুদ্রিক মাছের মধ্যে ইলিশ মাছ খেতে পারেন।

Sharing Is Caring:

1 thought on “গর্ভবতী মায়ের খাবার তালিকা”

Leave a Comment