ভালোবাসার মানুষের জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস

ভালোবাসার মানুষের জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস

জন্মদিন মানুষের জীবনে একটি বিশেষ দিন। বিভিন্ন মানুষ বিভিন্নভাবে জন্মদিন উদযাপন করে। সবচেয়ে আকর্ষণীয় জন্মদিনের উপহার হল জন্মদিনের শুভেচ্ছা। আর সেটা যদি প্রিয়জনের জন্মদিনে প্রিয়জনের কাছ থেকে হয়, তাহলে তো আনন্দের শেষ নাই। আজ আপনার প্রিয়জনের জন্মদিন? তাকে একটি বিশেষ জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে চান? তাহলে এই অনুচ্ছেদটি তোমার জন্যে। ধরুন আপনি আপনার প্রিয়তমা বা প্রিয়তম …

Read more

গর্ভাবস্থার ৮ম মাসে শারীরিক পরিবর্তন কেমন হয় দেখে নিন।

গর্ভাবস্থার ৮ম মাসে শারীরিক পরিবর্তন কেমন হয় দেখে নিন

-:গর্ভাবস্থার অষ্টম মাসে শারীরিক পরিবর্তন:-

গর্ভাবস্থার ৮ম মাসে শারীরিক পরিবর্তন কেমন হয় দেখে নিন।

গর্ভাবস্থার অষ্টম মাসের মধ্যে শরীরে একাধিক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। সাধারণ কিছু পরিবর্তণের ব্যাপারে এখানে ধাপে ধাপে আলোচনা করা হলো –

 

১- গর্ভধারনের অষ্টম মাসে পেটের স্ফীতি স্পষ্ট হয়ে ওঠে। এই সময় থেকেই গর্ভস্থ শিশুটির মাথা নীচের দিকে নেমে আসে।

২- হরমোনের পরিবর্তনজনিত কারণে চুল ওঠা অনেকটাই কমে যায় এই সময়। যার ফলে মাথায় চুল কম এমনটা মনে হয়না।

৩- এই সময় স্তন থেকে কোলোস্ট্রাম নামক একটি হলুদ বর্ণের তরল পদার্থ নির্গত হয়। এই দুধই মা প্রথম তার শিশুকে পান করায়।

৪- হরমোনের পরিবর্তনজনিত কারণে পিগমেন্টেশান হয় যার ফলে স্তন বৃন্ত গাঢ় রঙের হয়ে যায়।

৫- জরায়ুর স্ফীতির ফলে ত্বকে স্ট্রেচ মার্ক বা ফাটা দাগের সৃষ্টি হয়।

৬- তলপেটের নিম্নাংশ থেকে পিউবিক হেয়ার লাইন (যোনীকেশ রেখা) এর মধ্যেকার কালো রেখা আরো গাঢ় বর্ণের হয়ে যায়।

Read more

গর্ভাবস্থায় আপনি ৮তম মাসে যে অভিজ্ঞতা ও সমস্য গুলির সম্মুখীন দেখে নিন।

অষ্টম মাসের গর্ভাবস্থায়

 


আপনি যে যে অভিজ্ঞতা গুলির সম্মুখীন হবেন সেগুলি হলো নিম্নরূপ :


১. ওজন বৃদ্ধি: এটি নির্ভর করে মূলত বি.এম.আই  এর ওপর

২. শ্বাসকষ্ট:  ডায়াফ্রাম বা মধ্যচ্ছদার উপর জরায়ুর চাপ শ্বাস-প্রশ্বাস কে কঠিন করে তোলতে পারে।

৩. ক্লান্তি:  গর্ভের ভ্রূণের আকার বাড়াতে শুরু করলে খুব শীঘ্রই শরীর ক্লান্ত হয়ে যায়।

৪. নাক বন্ধ:  ইস্টোজেন ক্ষরণের মাত্রা বৃদ্ধিতে নাসিকা ঝিল্লি বৃদ্ধি পায়। ফলে বেশি মিউকাস নাসারন্ধ্র দিয়ে নাসিকা গহ্বরে প্রবেশ করে।এবং নাক বন্ধ ভাব অনুভূতি হয়।

৫. বুক জ্বালা বা হার্ট বার্ন : ক্রমবর্দ্ধমান জরায়ু পাকস্থলীকে ওপরের দিকে ঠেলে তোলে। ফলে গ্যাস্ট্রিক অ্যাসিড ইসোফেগাসের মধ্যে প্রবেশ করে এবং একটা অস্বস্তিকর জ্বালাভাব অনুভূত আনে।

৬. ফোলা ভাব বা ব্লটিং: এই সময় প্রজেস্টেরনের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। যার ফলে পরিপাক বা হজম প্রক্রিয়া মন্থর হয়ে যায় এবং পেট ফেঁপে বা ফোলে যায় আর পেটে গ্যাসীয় পদার্থ ভরে যেতে পারে।

৭. কোষ্ঠ্য কাঠিন্য হজম: প্রক্রিয়া মন্থর হয়ে যাওয়ার ফলে অন্ত্রে খাদ্য দীর্ঘ সময় পর্যন্ত থাকে। যার ফলে স্বরূপ কোষ্ঠ্য কাঠিন্য দেখা যায়।
  ৮. ব্র্যাক্সটন হিক্স সংকোচন – তলপেটে অনূভূতি হওয়া একটা ব্যথাহীন সংকোচন। এটা খুবই স্বাভাবিক একটা লক্ষণ যা প্রসবের জন্য শরীরকে প্রস্তুত করে তোলতে সহায়তা করে।

  ৯. অর্শ রোগ : ক্রমবর্দ্ধমান জরায়ুর চাপে ভেনা কাভা (শরীরের বৃহত্তম শিরা) রক্ত প্রবাহকে সীমাবদ্ধ করে তোলার ফলে শিরায় রক্তের পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়ে যায়। যা মলদ্বার অঞ্চলের কাছাকাছি রক্তনালীর সম্প্রসারণ ঘটিয়ে দেয়। ফলস্বরূপ ব্যথা যন্ত্রনা ও চুলকুনির সৃষ্টি হয়।

  ১০. বর্দ্ধিত শিরা:  প্রসারিত জরায়ুগুলির কারণে, ভেনা কাভাতে রক্ত প্রবাহের চাপ রয়েছে। এটি পায়ে শিরাগুলিতে রক্ত প্রবাহকে বাধা দেয় এবং রক্তনালীগুলি dilates করে। এটি বর্দ্ধিত শিরা নামে পরিচিত।

  ১১. এডিমা বা শোথ: শরীরের জল ধারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় গোড়ালি এবং পা ফুলে যায়।

  ১২. পিঠ ব্যথা: ক্রমবর্দ্ধমান জরায়ু শরীরের নীচের দিকে চাপ সৃষ্টি করে ফলে  পিঠের ব্যথা দেখা যায়।

  ১৩. অনিদ্রা: বার বার শৌচালয়ে যাওয়ার জন্য এবং একটা শারীরিক অস্বস্তির ফলে শান্তির ঘুমের বিঘ্নিত ঘটে।


১৪. পায়ে খিঁচ  ওজন বৃদ্ধি
, শরীরে প্রয়োজনীয় ভিটামিনের ঘাটতি, অতিরিক্ত সক্রিয় এবং নিস্ক্রিয় শরীর পা খিঁচ ধরার জন্য মুলত দায়ী।

  ১৫. যোনিস্রাব বৃদ্ধি: গর্ভবস্থায় জরায়ু এবং যোনীর দেওয়াল নরম হয়। যার ফলে সাদা স্রাব নিঃসৃত হয়। এই সাদা স্রাব যোনীপথে জরায়ুতে সব ধরনের ব্যাক্টেরিয়া প্রবেশে বাধা দিয়ে থাকে।

  ১৬. তলপেটে চাপ:  এই সময় গর্ভস্থ ভ্রুণের আয়তন বৃদ্ধির ফলে তলপেটে অতিরিক্ত চাপের অনুভতি হয়।

পোস্ট সবার মাঝে শেয়ার করুন

আরও পড়ুনঃ  

Read more

গর্ভবস্থার ৭ম মাসে শিশু শুনতে ও লাফতে পারে

গর্ভবস্থার ৭ম মাসে শিশু শুনতে ও লাফতে পারে

#সাহায্য_বিডির  গর্ভাবতী মহিলাদের সাহায্য ডেস্ক: প্রসবের পরিকল্পনা কর কিভাবে কোথায় করলে ভালো হবে : ৭ মাস বর্গাবস্থায় বাচ্চা এখন চোখ খুলতে পারে এবং আলোর দিকে মাথা ঘোরাতে পারে, এমনকি গর্ভের অভ্যন্তর থেকে এখন সে শব্দ শোনতে পায় এবং জোরে শোরগোল শুনলে পেটে লাফিয়ে লাথি মারতে পারে , আর তুমি ওকে গান গেয়ে বা কোরআন তেলায়াত শোনালে বা ওর সঙ্গে কথা বললে শান্ত হয়ে যেতে পারে।

শীঘ্রই সে মাথা নীচে দিকে ঘুরিয়ে দেবে। তার মাথাটি প্রথমে বেরিয়ে আসবে, এখন সে মুখ ফিরিয়ে প্রসবের জন্য প্রস্তুত।

 


ঘুমোতে অসুবিধে: বর্ভবতী নারীর পেট যত বড় হবে তত অস্বস্তি হবে এবং ঘুমোতে অসুবিধে হবে। পাশ ফিরে শোও আর দু পায়ের মাঝখানে একটা বালিশ যাতে তার উপরে পেটের ভারটা রাখা যায়। বর্ভবতী নারীর হয়তো কোমরে ব্যথা শুরু হতে পারে কারণ কোমর আর তলপেটের মধ্যেকার স্থিতিস্থাপক কোষগুলো হয়তো ঢিলে হচ্ছে। এটা হল তোমার শরীরের প্রসবের জন্য তৈরি হওয়ার লক্ষন। তাই বর্ভবতী নারীরা  হাতে এবং হাঁটুতর  উপরে ওজন বসলে বা দিয়ে হাঁটু মাটিতে গেড়ে বসলে উপকার হতে পারে।কাজে যাওয়ার সময় আপনার সাথে কিছু খাবার নিন

 
গর্ভবস্থার ৭ম মাসে ডাক্তারের কাছে যাওয়া: এবং যদি পেটে ব্যথা হয় তবে আপনার ডাক্তারের কাছে যাওয়ার  দরকার। এখনই সেখানে কী করে সেখানে যাওয়া যায় তা আপনার সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত এবং কোনও বন্ধু বা আত্মীয়ের কাছে সাহায্য পাওয়া যাবে কি কিনা তা নিয়ে কথা বলা উচিত। বাড়ির লোকদের ডেলিভারির বিষয়ে আলোচনা কর এবং নিশ্চিত করো যাতে তারা তোমাকে কোথায় নিয়ে যাবে তা স্থির করতে পারে।
গর্ভাবস্থার শেষের দিকে স্বাস্থ্য কেন্দ্রে যেতে হবে যাতে নার্স বা স্বাস্থ্যকর্মী বর্ভবতী নারীর ও সেই সঙ্গে বাচ্চাকেও পরীক্ষা করে দেখতে পারে। ওরা ই বলতে পারবে প্রসবের জন্য  কী কী লাগবে এবং ব্যথা উঠলে কখন ক্লিনিকে যেতে হবে।

পা ফুলে যাওয়া কী স্বাভাবিক?

গর্ভবস্থার ৭ম মাসে আপনার পা দুটি কী ফুলে গিয়েছে? হ্যাঁ, বিশেষত গর্ভাবস্থার শেষ ৩ মাসের  প্রায়শই এটি দেখা যায়। উষ্ণ আবহাওয়া এই সমস্যাটিকে আরও খারাপ করে দেবে ভয় বা  আশঙ্কার কিছু নেই

গর্ভাবস্থায় র্ভবতী নারীশরীর বাড়তি তরল তৈরী করে এবং কখনও অতিরিক্ত তরল জমা করে রাখে৷ দিন এগিয়ে চলার সাথে সাথে আপনার পা এবং পায়ের পাতায় এই তরল জমা হওয়ার প্রবণতা দেখা যেতে পারে৷

বর্ভবতী নারী হয়ত দেখবেন ক্রমশ এই ফোলাভাব বাড়তে থাকে৷ বিছানায় শুয়ে থাকার পরে, সকালের দিকে এই সমস্যা একটু কমে যেতে থাকে৷

গর্ভবস্থার ৭ম মাসে ফোলা ভাবের উপশম করতে, দিনের বেলায় কিছুক্ষণ পা উপরদিকে তুলে রেখে বিশ্রাম  করুন৷ অনেকক্ষণ ধরে একভাবে দাঁড়িয়ে থাকলে ফোলাভাব বেড়ে যাবে, তাই কিছু কাজ বসে করার চেষ্টা করুন৷

গর্ভাবস্থার শেষে, আপনার হাত দুটিও ক্রমশ ফুলে উঠতে পারে৷ হয়ত আপনার আংটি আঁটো মনে হতে পারে৷ ঐগুলি খুলে গলায় একটা চেন পরে নিতে পারেন৷

গর্ভবস্থার ৭ম  মাসে বিপদ সঙ্কেত  কি?  

যদি আপনার হঠাৎ ফোলাভাব বা ঝাপসা দৃষ্টি আসে বা ঝাপসা দেখেন তবে আপনার সাথে সাথেই একজন ডাক্তারের সাথে দেখা করা উচিত এটি কোনও গুরুতর রোগের অবস্থার লক্ষণ হতে পারে যা ফিট করে রোগের দিকে নিয়ে যেতে পারে।

 

 আরও পড়ুন:- গর্ভাবস্থার ৮ম মাসে শারীরিক পরিবর্তন কেমন হয় দেখে নিন। 

 

Read more

গর্ভাবস্থায় যে কাজ করা একেবারেই করা ঠিক নয়

বেশ কিছু কাজ আছে যা আমরা অন্য সময় অনায়াসে করতে পারলেও গর্ভাবস্থায় তা করা মোটেও ঠিক নয়। কারণ সেই সময় এই কাজগুলি করলে গর্ভবতী মহিলাদের গর্ভস্থ সন্তানের ক্ষতি হওয়ার সম্ভবনা ৯০% থাকে। তাই দেখে নিন গর্ভাবস্থায় কী কী কাজ করবেন না। #সাহায্য_বিডি’র  “গর্ভাবতী মহিলাদের সাহায্য” ডেস্ক: “গর্ভাবস্থায়” একজন নারির জীবনের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সময়। এই সময় …

Read more

যমজ নবজাতকের যত্ন

যমজ নবজাতকের যত্ন যমজ সন্তানের বিভিন্ন ধরণের জটিলতা দেখা যায়। এই জাতীয় শিশুদের শিশুমৃত্যুর হার ৪ গুণ বেশি। তাদের জন্মের ওজন সাধারণত কম থাকে। প্রসবোত্তর বৃদ্ধির হারও কম হতে পারে। এছাড়াও, তারা তাদের অঙ্গগুলির যৌথ অবস্থা বা হার্টের ত্রুটি নিয়েও জন্মগ্রহণ করতে পারে। এবং যে মায়েদের একসাথে একাধিক সন্তান থাকে তাদের প্রসবের সময় উচ্চ রক্তচাপ …

Read more

শিশুর খাদ্য তালিকায় কি রেখেছেন? কি খাওয়ানো উচিত?

শিশুর খাদ্য তালিকায় কি রেখেছেন? কি খাওয়ানো উচিত?

ছয় মাস পর্যন্ত শুধু বুকের দুধই যথেষ্ট। একটু পানিও প্রয়োজন নেই। তাই ছয় মাস পর্যন্ত শিশুর খাদ্যতালিকা হলো শুধু বুকের দুধ। ৬-৮ মাস বয়স সকাল ৭টা-৮টা বুকের দুধ অথবা ৬-৮ আউন্স দুধ সকাল ১০টা, ৪-৬ টেবিল চামচ সুজি/খিচুড়ি, ৪-৬ টেবিল চামচ চটকানো ফল। দুপুরে বুকের দুধ অথবা ৬ আউন্স দুধ, ১-৩ টেবিল চামচ খিচুড়ি/সুজি। বিকেলে …

Read more