নগদ একাউন্ট দেখার নিয়ম

নগদ, বাংলাদেশ ডাক বিভাগ ডিজিটাল ইকোনমিক সার্ভিসেস। মাত্র দুই বছর আগে, ২৬ মার্চ, ২০১৯ তারিখে এই ডিজিটাল পরিষেবাটি যাত্রা শুরু করেছিল। মাত্র দুই বছরে সেবাটি এদেশের মানুষের মনে অনেক জাযগা করে নিয়েছে এবং গ্রহণযোগ্যতাও পেয়েছে। এর গুণমান এবং মূল্যের কারণে, নগদ দেশের অনেক মোবাইল ব্যাংকিং পরিষেবাকে ছাড়িয়ে গেছে।

নগদ একাউন্ট সম্পর্কে বিস্তারিত

নগদ একাউন্ট দেখার নিয়ম
নগদ একাউন্ট দেখার নিয়ম

আপনি যদি নগদ অ্যাকাউন্ট ব্যবহারকারী হন বা নগদ সম্পর্কে শুনে থাকেন তবে আপনি নগদ অ্যাকাউন্টের সুবিধাগুলি সম্পর্কে জানতে চাইবেন। বাংলাদেশে যে ধরনের মোবাইল ব্যাঙ্কিং অ্যাকাউন্টই থাকুক না কেন, নগদ অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করার সময় আপনি কী ধরনের সুবিধা উপভোগ করতে পারেন তা আপনার জানা প্রয়োজন বলে আমি মনে করি। আর এই মনে করা থেকে আপনাদের জন্য আমার আজকের এই পোষ্ট যেখানে নগদ একাউন্ট সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারছেন –

নগদে ক্যাশ আউট চার্জ কত

নগদ বিকাশকে চ্যালেঞ্জ করতে পারে যেই বিকাশ ২০১৪ সাল থেকে বাংলাদেশী মোবাইল ব্যাংকিং হিসাবে দেশে আধিপত্য বিস্তার করেছিল। নগদের দক্ষতার চাবিকাঠি হল এর কম ক্যাশ আউট ফি। বর্তমানে দেশের সর্বনিম্ন নগদ ক্যাশ আউট ফি প্রতি হাজারে মাত্র ৯.৯৯ টাকা। অনেক মানুষ এখন বড় লেনদেন নগদে করছেন। মাত্র আড়াই বছরে নগদ প্রায় ৫.৫ কোটি মানুষকে আর্থিক লেনদেন নগদে কভার করেছে। খুব অল্প সময়ে নগদ একটি জনপ্রিয় মোবাইল ব্যাংকিংয়ে সুনাম অর্জন করেছে।

ঠিক তাদের মতো, আপনি চাইলে একজন নগদ গ্রাহক হতে পারেন এবং সেজন্য আপনি একটি নগদ অ্যাকাউন্ট তৈরী করতে পারেন। যাই হোক আমাদের আজকে আলোচনার বিষয় নগদ অ্যাকাউন্ট তৈরী নয় আজ আমরা জানতে যাচ্ছি “নগদ একাউন্ট দেখার নিয়ম” সেই একাউন্ট করা নিয়ম নিয়েও শেষে দিকে আলোচনা করব।

নগদ একাউন্ট ব্যালেন্স দেখার নিয়ম

আপনি দুই টি পদ্ধিতিতে আপনার নগদ একাউন্ট দেখতে পারবেন।

১। ইউএসএসডি *167# কোড ডায়াল করে নগদ একাউন্ট দেখাতে পারেন।

২। নগদ অ্যাপের মাধ্যমে নগদ একাউন্ট দেখাতে পারেন।

আমাদের মাঝে অনেকেই যেহেতু স্মাট বা এনড্রয়েড মোবাইল ফোন ব্যবহার করি না সেহেতু আগে ইউএসএসডি *167# কোড ডায়াল করে কিভাবে নগদ একাউন্ট দেখতে হয় তা আলোচনা করব।

কোড ডায়াল করে নগদ একাউন্ট দেখার নিয়ম

শুধুমাত্র নগদ ussd কোড ডায়াল করে মোবাইল রিচার্জ, ক্যাশ আউট, সেন্ড মানি, পেমেন্ট, বিল পে, ইএমআই পেমেন্ট সহ নগদের সমস্ত সুবিধা ব্যবহার করা যায়।

নগদ একাউন্ট দেখার কোড

নগদ অ্যাকাউন্ট দেখার জন্য USSD কোড হল – *১৬৭#

আপনি যেকোনো মোবাইল ফোনে *১৬৭# USSD কোড ডায়াল করে নগদ অ্যাকাউন্ট দেখতে পারেন। অর্থাৎ নগদ অ্যাকাউন্ট দেখার USSD কোড নম্বর হল *১৬৭#। যারা Android মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন না এবং যারা ব্যবহার করেন সবাই নগদ অ্যাকাউন্ট পরিচালনা করার জন্য এই মেনু কোডটি ব্যবহার করতে পারবেন। এই *167# কোড ডায়াল করে আপনি নগদ মোবাইল ব্যাঙ্কিং ব্যালেন্স চেক সহ সমস্ত সুবিধা পেতে সক্ষম হবেন।

Nagad Code *167# ডায়াল করলে নিচের ছবিটির মতো ৮ টি ম্যানু অপশন দেখতে পাবেন।

নগদ একাউন্ট দেখার নিয়ম

১. Cash Out

২. Send Money

৩. Mobile Recharge

৪. Payment

৫. Bill Pay.

৬ EMI Payment

৭. My Nagad

৮. Pin Reset

নগদ ক্যাশ আউট/Cash Out: এই অপশন ব্যবহার করে নগদ উদ্ধোক্তা বা দোকান থেকে হতে টাকা উত্তলন করার অপশন। আপনি যদি এই অপশনে ১ ডায়েল করে ঢুকে উদ্ধোক্তা মোবাইল নাম্বার দিয়ে, টাকার পরিমান ডায়েল করে আপনার নগদ পিন ডায়েল করেন তাহলে তা কোনাদার অর্থাৎ নগদ উদ্ধোক্তার একাউন্টে চলে যাবে।

 

নগদ সেন্ড মানি/Send Money: এই অপশন টি ব্যবহার করে এক নগদ গ্রাহক (পার্সনাল একাউন্ট) হতে অন্য এক নগদ গ্রাহকের (পার্সনাল একাউন্ট) কাছে টাকা পাঠানোর অপশন। এটিও একই ভাবে ব্যবহার করতে হয়। ২ ডায়েল করে ঢুকে রিসিভার মোবাইল নাম্বার দিয়ে, টাকার পরিমান ডায়েল করে আপনার নগদ পিন ডায়েল করেন তাহলে তা অন্য এক নগদ গ্রাহকের একাউন্টে চলে যাবে।

নগদ একাউন্ট থেকে মোবাইল রিচার্জ

নগদ মোবাইল রিচার্জ/Mobile Recharge এই অপশনটি ব্যবহার করে আপনি আপনার অথবা যে কোন ব্যক্তির যে কোন মোবাইল অপারেটরে ফেক্সিলোড করতে পারবেন। ৩ ডায়েল করে ঢুকে ১/২/৩/৪ ডায়েল করে অপারেট নির্বাচন করতে হবে, পরের ধাবে আপনার প্রিপেইড বা পোসপেইড নির্বাচন করতে ১/২ ডায়েল করতে হবে। মোবাইল নাম্বার দিয়ে, টাকার পরিমান ডায়েল করে আপনার নগদ পিন ডায়েল করলেই আপনার কাঙ্খিত নাম্বারে রিচার্জের টাকা চলে যাবে ।

নগদ পেমেন্ট/Payment : এই অপশন ববহার করে অনলাইন সপিং সহ যে কোন পেমেন্ট করতে পারবেন। ৪ ডায়েল করে ঢুকে মার্চেন্ট মোবাইল নাম্বার দিয়ে, টাকার পরিমান ডায়েল করে আপনার নগদ পিন ডায়েল করেন তাহলে তা মার্চেন্ট একাউন্টে চলে যাবে।

নগদে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার নিয়ম

নগদ বিল পে/Bill Pay: এই অপশন ব্যবহার করে আপনি বিদ্যুৎ বিল, গ্যাস বিল, ইনসুরেন্স, পানি বিল, ইন্টারনেট সহ বিভিন্ন বিল পরিশোধ করতে পারবেন।  আপনাকে ৫ ডায়েল করে বিদ্যুৎ বিল, গ্যাস বিল, ইনসুরেন্স, পানি বিল, ইন্টারনেট এই অপশন গুলো থেকে আপনার কাঙ্খিত বিলটি নির্বাচন করতে হবে, পরের ধাবে আপনার প্রিপেইড বা পোসপেইড নির্বাচন করতে ১/২ ডায়েল করতে হবে। টাকার পরিমান ডায়েল করে আপনার নগদ পিন ডায়েল করলেই আপনার কাঙ্খিত বিলটি পরিশধ হয়ে যাবে ।

নগদ ইএমআই পেমেন্ট/EMI Payment: এই অপশন ব্যবহার করে ইএমআই পেমেন্ট করতে পারবেন। আপনাকে ৬ ডায়েল করে অপশন গুলো থেকে আপনার কাঙ্খিত কম্পানির নাম টি নির্বাচর করতে হবে। পরের ধাপে টাকার পরিমান ডায়েল করে আপনার নগদ পিন ডায়েল করলেই আপনার কাঙ্খিত বিলটি পরিশধ হয়ে যাবে ।

নগদ একাউন্ট চেক / নগদ একাউন্ট টাকা দেখার নিয়ম

মাই নগদ/My Nagad: এই অপশন থেকে আপনি আপনার ব্যালেন্স চেক থেকে শুরু করে অনেক কাজ করতে পারবেন করতে পারবেন। ব্যালেন্স চেক করতে আপনাকে ৭ ডায়েল করে বেশ কিছু অপশন দেখতে পাবেন সে গুলো থেকে আপনি ১ নির্বাচন করে গুলো আপনার নগদ পিন ডায়েল করলেই আপনার একাউন্টে কত টাকা আছে তা দেখতে পাবেন ।

নগদ পিন রিসেট/Pin Reset: এই অপশনে আপনি আপনার পিন ভুলে গেলে নতুন পিন বা পাসওয়ার্ড দিতে রিসেট করতে পারবেন।

অ্যাপের মাধ্যমে নগদ অ্যাকাউন্ট দেখার নিয়ম:

নগদ গ্রাহকদের সুবিধা বাড়াতে এসেছে নগদ অ্যাপ। নগদ অ্যাপ হল একটি নিরাপদ ডিজিটাল আর্থিক পরিষেবার অ্যাপ যা আপনার দৈনন্দিন আর্থিক লেনদেনের প্রয়োজনীয়তা যেমন ক্যাশ ইন, ক্যাশ আউট, টাকা পাঠানো, মোবাইল রিচার্জ ইত্যাদিকে আরও সহজ করে তোলে।

নগদ অ্যাপের মাধ্যমে নগদ অ্যাকাউন্ট দেখার আরেকটি বিকল্প উপায় রয়েছে। আপনি নগদ অ্যাকাউন্ট আরও সহজে চেক করতে নগদ অ্যাপ ব্যবহার করতে পারেন।

নগদ অ্যাকাউন্ট ব্যালেন্স চেক করার নিয়ম

নগদ অ্যাপটি খুলুন এবং 4 সংখ্যার গোপন পিন লিখুন।

আপনার অ্যাকাউন্টে কত টাকা আছে তা দেখতে ট্যাপ ফর ব্যালেন্স বোতামে ক্লিক করুন।

আপনি নগদ অ্যাপ ব্যবহার করে সহজেই ক্যাশ আউট, ক্যাশ ইন, মোবাইল রিচার্জ, বিল পে, অ্যাড মানি, লেনদেন অ্যাকাউন্ট ইত্যাদি সব কিছু দেখতে পারেন।

নগদ একাউন্টের সুবিধা

নীচে সমস্ত সুবিধার একটি তালিকা রয়েছে যা আপনি নগদ অ্যাকাউন্ট ব্যবহারকারী হিসাবে উপভোগ করতে পারেন৷

ক্যাশ আউট চার্জ:  বর্তমানে দেশের সর্বনিম্ন নগদ ক্যাশ আউট চার্জ প্রতি হাজারে মাত্র ৯.৯৯ টাকা হওয়ায় অনেক মানুষ এখন বড় লেনদেন নগদে করছেন।

আপনি এই সম্পর্কে জানেন কি?  আপনি একটি নগদ অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে বাংলাদেশে সর্বনিম্ন মোবাইল ব্যাংকিং ক্যাশ আউট চার্জ উপভোগ করতে পারেন?

যদি না জানেন, তাহলে নগদ অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে আপনি কীভাবে সর্বনিম্ন ক্যাশ আউট চার্জ উপভোগ করতে পারেন তা নিচে দেখুন।

USSD কোড ডায়াল করে নগদ অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করার ক্ষেত্রে এবং নগদ অ্যাপ ব্যবহার করার ক্ষেত্রে ক্যাশ আউট চার্জ ভিন্ন ভিন্ন রয়েছে।

“অ্যাপ ৯.৯৯ টাকা এবং ভ্যাট সহ ১১.৪৯ টাকা মাত্র।”
“USSD কোড ১২.৯৯ টাকা এবং ভ্যাট ১৪.৯৪ টাকা মাত্র।”

অ্যাপট ব্যবহার করে বা USSD কোড ডায়াল করে, আপনি উপরে উল্লিখিত ক্যাশ আউট চার্জের মাধ্যমে ক্যাশ আউট করতে পারবেন।

কার্ড এবং ব্যাঙ্ক থেকে এডমানিঃ আপনি চাইলে ব্যাঙ্ক এবং যেকোনো ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ড থেকে টাকা নগদে যোগ করতে পারেন। যেকোনো গুরুত্বপূর্ণ সময়ে আপনার অ্যাকাউন্টে টাকা ফুরিয়ে গেলে, আপনি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট এবং কার্ড থেকে টাকা যোগ করতে পারেন।

নগদে মোবাইল রিচার্জঃ আপনার যদি কোনো গুরুত্বপূর্ণ সময়ে আপনার মোবাইল রিচার্জ করার প্রয়োজন হয়, আপনি নগদ অ্যাকাউন্ট থেকে আপনার মোবাইল রিচার্জ করতে পারেন। নগদ অ্যাকাউন্ট থেকে মোবাইল রিচার্জ করার ক্ষেত্রে, আপনি যদি নগদ অ্যাপ ব্যবহার করে মোবাইল রিচার্জ করেন, তাহলে আপনি খুব সহজেই মোবাইল রিচার্জ করতে পারবেন।

নগদে বিল পেমেন্টঃ আপনি একটি নগদ অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে আপনার বিদ্যুৎ বিল, পানির বিল, ইন্টারনেট বিল এবং আরও অনেক কিছু পরিশোধ করতে পারেন। তাই আপনি যদি ঘরে বসেই যেকোনো ধরনের বিল পরিশোধ করতে চান তাহলে নগদ অ্যাকাউন্ট এর এই সেবা নিতে পারেন।

নগদে টাকা সঞ্চয়ঃ আপনি চাইলে নগদ অর্থ ব্যবহার করে অর্থ সঞ্চয় করতে পারেন এবং আপনি এই অর্থ সংরক্ষণের পরিবর্তে সুদ উপভোগ করতে পারেন। মূলত, আপনি যদি নগদ অ্যাকাউন্ট টাকা সঞ্চয় করতে চান তবে আপনি বিভিন্ন উপায়ে অর্থ সঞ্চয় করতে পারেন এবং আপনি বিভিন্ন পরিমাণ অর্থের জন্য বিভিন্ন লাভের হার উপভোগ করবেন।

নগদ একাউন্টের মুনাফা

নগদ অ্যাকাউন্ট লাভের হার হিসাবে সর্বাধিক লাভের মার্জিন হল ৭.৫%। এছাড়াও, আপনার টাকার পরিমাণের উপর নির্ভর করে, আপনার লাভের মার্জিন পরিবর্তিত হতে পারে। আর এই সমস্ত সুবিধার পাশাপাশি, নগদ অ্যাকাউন্ট সুবিধার মতো আরও বিভিন্ন সুবিধা রয়েছে, যা আপনি নগদ আসার পরে অনুভব করবেন।

নগদে আয়কর প্রদানের সুযোগঃ আপনি যদি ঘরে বসে নগদ অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে আয়কর দিতে চান, তাহলে আপনি সরকার কর্তৃক আরোপিত আয়কর পরিশোধ করতে পারেন। কোনো জটিলতা ছাড়াই কয়েকটি ধাপ অনুসরণ করে, আপনি সহজেই নগদ অ্যাকাউন্ট সুবিধা হিসেবে এই আয়কর পরিশোধ করতে পারেন।

নগদ একাউন্টে থেকে বিকাশে টাকা ট্রান্সফারঃ নগদ অ্যাকাউন্টের আরও একটি সুবিধা রয়েছে এবং তা হল আপনি চাইলে সহজেই নগদ থেকে বিকাশে অর্থ স্থানান্তর করতে পারেন। লক্ষ্য করলে দেখা যাবে, বাংলাদেশের সব মোবাইল ব্যাংকিং অপারেটর, এক থেকে অন্যকে অগ্রিম অর্থ প্রদান করা যাচ্ছে না।

তবে, নগদ অ্যাকাউন্টের বিশেষ সুবিধা হিসাবে, আপনি নগদ থেকে বিকাশে অর্থ স্থানান্তরের সুবিধা পাবেন। কিন্তু বিকাশ থেকে নগদে টাকা পাঠাতে পারবেন না। এর মানে হল যে আপনি চাইলেই নগদ থেকে বিকাশে অর্থ স্থানান্তর করতে পারবেন আপনি বিকাশ থেকে নগদে অর্থ স্থানান্তর করতে পারবেন না।

নগদে নিরাপত্তাঃ লেনদেন ব্যবস্থা গুলোতে নগদ গ্রাহক নিরাপত্তা ব্যবস্থা সবসময় সর্বোচ্চ রাখে। এটি অধিকতর নিরাপদ কারন নগদ একটি সরকারি সেবা হওয়ায় অন্যান্য লেনদেন ব্যবস্থা থেকে বেশি নিরাপদ।

“ডিজিটাল লেনদেন ব্যবস্থার জনপ্রিয়তা বাড়ার সাথে সাথে বেড়েছে ফ্রড ও অসাধু লোকদের আনাগোনা। তাই নগদ ব্যবহারে বাড়তি সতর্কতা মেনে চলা উচিত।” নগদ কতৃক প্রদত্ত নির্দেশনাসমুহ হলোঃ

নগদ একাউন্টের হেল্প লাইন

নগদ কখনো গ্রাহকের কাছে ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড (ওটিপি) বা একাউন্টের পিন জানতে চাইবে না। তাই কেউ ওটিপি বা একাউন্টের পিন চাইলে ধরেন নিবেন, আপনি কোনো ফ্রড এর পাল্লায় পড়েছেন। ১৬১৬৭ বা ০৯৬ ০৯৬ ১৬১৬৭ – শুধুমাত্র এই দুইটি নাম্বার থেকেই নগদ ব্যবহারকারীদের সাথে যোগাযোগ করে। বাকি কোনো নাম্বার থেকে কলের মাধ্যমে কোনো নির্দেশনা পেলে মনে করবেন সেটি ভুয়া। এছাড়াও নগদ সংক্রান্ত কোনো সমস্যা বা প্রশ্ন থাকলে কল করতে পারেন এই দুইটি নির্দিষ্ট নাম্বারে – ১৬১৬৭ অথবা ০৯৬ ০৯৬ ১৬১৬৭।

বিকাশ বা অন্যদের অপেক্ষাকৃত কম চার্জঃ কম খরচে একই ধরনের সেবা, যেমন বিকাশ এ ক্যাশ আউট ফি থেকে নগদের ক্যাশ আউট ফি কম।

নগদ অফারঃ নগদ নতুন ব্যবহারকারীদের একাউন্ট খুলে লাখপতি হওয়ার মত অফার দিয়েছে নগদ। নতুন অফার বা আপডেট পেতে নগদ জানতে অফিশিয়াল ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

আমাদের আরও পোস্টঃ

  1. বন্ধু নিয়ে স্ট্যাটাস ক্যাপশন
  2. চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

  3. প্রেমিকার জন্য রোমান্টিক কথা

  4. দীপিকা পাডুকোন-Deepika Padukone

  5. ভোটার আইডি কার্ড চেক

  6. কিভাবে ফেসবুকে প্রতিদিন 500 আয় করা যায়

নগদ অ্যাকাউন্ট ব্যবহারের শর্তাবলী

একটি নগদ অ্যাকাউন্ট তৈরি করার আগে প্রতিটি ব্যবহারকারীর জন্য কিছু শর্ত প্রযোজ্য। নগদ অ্যাকাউন্ট নিবন্ধনের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য উল্লেখযোগ্য শর্তগুলি হল:

১। দেশের প্রচলিত আইন ও ডাক বিধি অনুসরণ করে নগদের কার্যক্রম পরিচালিত হয়। প্রতিটি নগদ গ্রাহককে অবশ্যই এই নীতিগুলি মেনে চলতে হবে।

২। যদি ভুল নগদ নম্বরে কোনো ধরনের আর্থিক ক্ষতির জন্য স্বীকার করা হয়, তাহলে দায় নগদ দ্বারা বহন করা হবে না।

৩। একটি নগদ অ্যাকাউন্টে লেনদেন করার সময় সমস্ত গ্রাহকদের জন্য চার্জ বাধ্যতামূলক৷ পর্যাপ্ত ব্যালেন্সের অভাবে লেনদেন সম্পন্ন না হলে পুরো দায়ভার গ্রাহকের ওপর বর্তায়।

৪। ক্যাশ ইন/ক্যাশ আউট/পেমেন্ট ইত্যাদির ক্ষেত্রে গ্রাহককে তার লেনদেনের গ্রহণযোগ্যতা যাচাই করতে হবে। এই সম্পর্কিত কোনো অভিযোগের জন্য নগদ দায়বদ্ধ হবে না।

৫। নগদ ব্যবহার করে লেনদেনের সময় প্রেরিত অর্থ এবং প্রাপকের সঠিকতা নিশ্চিত করা ব্যবহারকারীর দায়িত্ব। মিথ্যা তথ্য প্রদানে আপনার কোনো ক্ষতি বা ভুল উপস্থাপনা হলে নগদ দায়বদ্ধ হবে না।

৬। নগদ ব্যবহারের সাথে সম্পর্কিত মূল্য এবং খরচ নিয়ম অনুযায়ী সময়মতো অ্যাকাউন্ট থেকে কেটে নেওয়া হবে।
মানি লন্ডারিং প্রিভেনশন অ্যাক্ট-2012, অ্যান্টি-টেরোরিজম অ্যাক্ট-2009, বাংলাদেশ ডাক বিভাগ কর্তৃক জারি করা নীতি অনুসারে, গ্রাহক তার নগদ সংক্রান্ত তথ্য চাওয়ার সাথে সাথে নগদে প্রদান করতে বাধ্য।

৭। নগদ গ্রাহকের অ্যাকাউন্ট এবং লেনদেনের তথ্যের গোপনীয়তা বজায় রাখবে তবে, আদালতের আদেশ বা আইন দ্বারা অনুমোদিত ব্যক্তি নগদে তথ্য প্রকাশ বা প্রদান করতে পারে।

৮। একজন গ্রাহক কখনই তার নগদ অ্যাকাউন্টের পিন নম্বর কোনো পরিস্থিতিতে কাউকে প্রকাশ করতে পারবেন না। PIN নম্বরের গোপনীয়তা হারানোর কারণে কোনো আর্থিক ক্ষতি হলে, ব্যবহারকারীর একমাত্র দায়বদ্ধতা।

৯। আপনি যদি আপনার সিম বা ফোন হারিয়ে ফেলেন, আপনি অবিলম্বে ক্যাশ হেল্পলাইনে (16167) কল করতে পারেন এবং আপনার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করতে পারেন৷

১০। আর্থিক লেনদেন সম্পর্কিত লেনদেন নগদ অ্যাকাউন্ট ব্যবহার নীতির বাইরে। নগদ এই ধরনের কোনো কাজের ক্ষেত্রে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার ক্ষমতা রাখে।

১১। সমস্ত নগদ গ্রাহক সর্বদা নগদ দ্বারা প্রেরিত যে কোনও নির্দেশ অনুসরণ করতে বাধ্য।

১২। ‘নগদ’ গ্রাহককে প্রচারমূলক ফোন কল বা SMS পাঠানোর অধিকার সংরক্ষণ করে।

১৩। নগদ ব্যবস্থায় সংরক্ষিত লেনদেন সম্পর্কিত তথ্য যেকোন দ্বন্দ্ব সমাধানে প্রাথমিক প্রমাণ হিসাবে বিবেচিত হবে।

1 thought on “নগদ একাউন্ট দেখার নিয়ম”

Leave a Comment