আঙুর ও কিসমিসের মধ্যে স্বাস্থ্যের জন্য কোনটি বেশি উপকারী?

যদিও আঙুর শুকিয়ে কিসমিস তৈরী  করা হয় । তবুও দুটোর পুষ্টিগুণ ভিন্ন ভিন্ন হয়। তাই আঙুর ও কিসমিসকে এক ভেবে ভুল করা ঠিক হবে না।

আঙুর ও কিসমিসের মধ্যে স্বাস্থ্যের জন্য কোনটি বেশি উপকারী?
আঙুর ও কিসমিসের মধ্যে স্বাস্থ্যের জন্য কোনটি বেশি উপকারী?

 আঙুর ও কিসমিসের মধ্যে স্বাস্থ্যের জন্য কোনটি বেশি উপকারী?

 

 

মুলত আঙুর শুকানোর সময়ই পুষ্টিগুণ পালটে যায়। তাই কারও জন্য আঙুর ভালো আবার অন্য দিকে কারও জন্য কিসমিস। জেনে নিন আপনি কোনটি খাবেন আপনি?

 

ক্ষতিকারক দিক- ‘কিসমিস শুকিয়ে তৈরি করা হয়’ যাতে চিনির পরিমাণ বেড়ে যায়। এ কারণেই এটি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত মানুষের জন্যে ক্ষতিকারক হতে পারে। এছাড়াও আঙ্গুর খাওয়ার সময় ডায়াবেটিস রোগীদের ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া জরুরি

ক্যালোরির পরিমাণ-  ‘আঙুরের চেয়ে কিসমিসের ক্যালোরি অনেক বেশি থাকে’। আঙ্গুর শুকানোর পরে এর মিষ্টি অনেক বাড়ায় তাই ক্যালরির পরিমাণও বাড়ে।

ওজন- আবার ক্যালোরি বেশি হলেও ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে কিসমিস।

অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের- অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ঘনত্ব শরীরকে সুস্থ রাখতে এবং শরীর থেকে দূষক পদার্থ দূর করতে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। যেহেতু কিসমিসগুলি আঙ্গুরের চেয়ে অনেক শুষ্ক তাই এন্টি-অক্সিডেন্টগুলির ঘনত্বের পরিমাণও প্রায় 3 গুণ বেশি।

প্রত্যেকের দেহের ধরণ আলাদা। এই হিসাবে, আপনার পক্ষে সবচেয়ে ভাল কি তা আপনার বুঝতে হবে। আপনি যদি অ্যান্টি-অক্সিডেন্টগুলিকে গুরুত্ব দিতে চান তবে আপনি ‘কিসমিস’ খেতে পারেন।

অন্যদিকে উচ্চ রক্তচাপ বা ডায়াবেটিসের ক্ষেত্রে আপনি চিকিত্সক বা পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিয়ে ‘আঙ্গুর বা কিসমিস’ খেতে পারেন।

নারীর স্তনের-রমনীর স্তনের প্রতি কেন আকৃষ্ট হন পুরুষরা? জানুন অজানা ১০টি কারণ

 এবার আসুন জেনে নেই আঙ্গুরের আশ্চর্যজনক ১৪টি স্বাস্থ্য উপকারগুলি :

১. ক্যান্সার নিরাময়ে আঙুর : আঙুর সাধারণত রস দিয়ে খাওয়া হয়। এই আঙ্গুরের রসে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস এবং অ্যান্টিইনফ্লেমেটরির মতো গুরুত্বপূর্ণ উপাদান রয়েছে যা আমাদের অঙ্গগুলির প্রদাহ থেকে মুক্তি দেয়। সাধারণত এই প্রদাহ ক্যান্সারের অন্যতম প্রধান কারণ।


২. ত্বককে সুরক্ষায় আঙুর : আঙ্গুরের ফাইটোকেমিক্যালস এবং ফাইটোনিট্রিয়েন্টস আমাদের ত্বককে সুরক্ষায় বিশেষ ভূমিকা পালন করে। এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে এটি আমাদের ত্বকের উজ্জ্বলতা বজায় রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

৩. বয়সের ছাপ আড়াল করতে আঙুর : আমাদের দেহে ফ্রি র‌্যাডিকেলগুলি ত্বকে কুঁচকে যায়। আঙ্গুরের ভিটামিন সি এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্টগুলি এই ফ্রি র‌্যাডিক্যালগুলির বিরুদ্ধে লড়াই করে, আমাদের ত্বককে সুস্থ রাখে এবং দেহে বার্ধক্যজনিত প্রভাব প্রতিরোধ করে।

৪. কিডনি ভাল রাখতে আঙুর : আঙ্গুরের সমস্ত ভিটামিন উপাদান ক্ষতিকারক ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রাকে সহনীয় করে তোলে। একই সাথে এটি আমাদের কিডনিজনিত রোগের বিরুদ্ধে কাজ করে এবং আমাদের শরীরকে সুস্থ রাখে। এ ছাড়া আঙ্গুর আমাদের মাইগ্রেনের সমস্যা রোধ করে।

৫. নিয়মিত রক্ত সঞ্চালনে আঙুর : সাধারণভাবে যারা রক্ত সঞ্চালনের ভারসাম্যহীনতায় ভোগেন তাদের জন্য আঙ্গুরের রস খুব কার্যকর useful আঙ্গুরের ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস যা আমাদের দেহের রক্ত সঞ্চালন নিয়ন্ত্রণ করতে এবং ইনসুলিন বাড়ায় সহায়তা করে।

৬. ভুলে যাওয়া রোগ নিরাময়ে আঙুর : আমাদের মধ্যে অনেকে ছোট জিনিস খুব দ্রুত ভুলে যায়। আবার দেখা যায় যে কোনও শব্দ অজানা স্মৃতি থেকে মুছে ফেলা হয়। প্রকৃত অর্থে এটি এক ধরণের রোগ। এই ভুলে যাওয়া রোগ নিরাময়ে আঙ্গুর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারে।


৭. স্তন ক্যান্সার নির্মূলে আঙুর : স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকিযুক্ত মহিলারা নিয়মিত আঙ্গুর খেতে পারেন। কারণ গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে আঙ্গুরের উপাদানগুলি পুরোপুরি স্তন ক্যান্সার সৃষ্টিকারী কোষগুলির বিরুদ্ধে কাজ করতে সক্ষম।

৮. চুলের যত্নে আঙুর : এমন অনেক লোক আছেন যারা একটু যত্ন না করে আমাদের চুলকে খুশকিতে ভরিয়ে দেন। এটি আরও দেখা যায় যে চুলের প্রান্তটি ছেঁড়া হয়ে যায় এবং রুক্ষ, ধূসর বর্ণের হয়ে যায় এবং শেষ পর্যন্ত চুল পড়ে যায়। এই সমস্যাগুলি সমাধান করতে আপনি আঙ্গুর খেতে পারেন।

৯. কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে আঙুর : আঙ্গুরে সাধারণত টরোস্টেলবেন নামে একটি যৌগ থাকে যা আমাদের দেহে কোলেস্টেরলের মাত্রা হ্রাস করতে সহায়তা করে

১০. দেহের হাড়কে শক্তিশালী করতে আঙুর : আঙ্গুর মধ্যে তামা, আয়রন এবং ম্যাঙ্গানিজ জাতীয় খনিজ প্রচুর পরিমাণে রয়েছে, যা আমাদের দেহের হাড় গঠনে এবং হাড়কে শক্তিশালী করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

১১. মাথা ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য আঙুর : মাথাব্যথা হঠাৎ শুরু হয়ে গেলে আপনি কোনও ওষুধ না খেয়ে আঙ্গুর খেতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন।

১২. চোখের স্বাস্থ্য রক্ষায় আঙুর : আমাদের চোখকে সুস্থ রাখতে আঙ্গুর অনেক বেশি কার্যকর। যারা বয়স সম্পর্কিত সমস্যার কারণে চোখের সমস্যায় ভুগছেন তাদের পক্ষে এই ফলটি অনেক বেশি উপকারী।

১৩. হাঁপানি রোধে আঙ্গুর: আঙ্গুর অনেক ষধি গুণ রয়েছে। আঙ্গুরের অষুধী গুণাবলীর কারণে এটি আমাদের হাঁপানির ঝুঁকি থেকে রক্ষা করে এবং আমাদের ফুসফুসে আর্দ্রতার পরিমাণ বাড়ায়।

১৪. বদহজম দূর করতে আঙুর : আঙুর যদি নিয়মিত খাওয়া হয় তবে বদহজম হ্রাস পায়। বদহজম নিরাময়ে আঙ্গুরও বেশ কার্যকর।

 

এবার জেনে কিশমিশের ৫টি উপকারিতা :

১. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াযতে কিসমিস

‘আপনি যদি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে চান তবে নিয়মিত ভেজা কিশমিশ’ এবং এর পানি খান। ‘এটা অন্তর্ভুক্ত অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টস, যা রোগ বা প্রতিরোধ ক্ষমতা লড়াই করার ক্ষমতা বাড়ায়’।

 

২. দেহকে বিশৃঙ্খল রাখে কিসমিস

‘শরীরকে ডিটক্সাইফ করতে নিয়মিত কিসমিস খান। খালি পেটে সকালে ভিজিয়ে কিশমিশ খাওয়া আপনার চারপাশের দূষণ দ্বারা বিরক্ত হয়ে শরীরকে ডিটক্স করবে ভেজানো কিশমিশের পাশাপাশি আপনি জলে ভেজানো কিশমিশও খেতে পারেন’।

 

৩. কোষ্ঠকাঠিন্য হ্রাস করে কিসমিস

‘নিয়মিত কিসমিস খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য কম হয়। আপনি যদি নিয়মিত পেটের সমস্যায় ভুগেন তবে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে ভেজানো কিশমিশ খান। যারা কোষ্ঠকাঠিন্যে ভুগছেন তারা ওষুধের পরিবর্তে নিয়মিত কিসমিস চেষ্টা করতে পারেন’।

 

৩. রক্তচাপকে বশীভূত করে কিসমিস

‘উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের অন্যতম প্রাকৃতিক পদ্ধতি কিসমিস’। এতে থাকা পটাসিয়াম উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে।

 

৪. রক্তাল্পতা হ্রাস করে কিসমিস

রক্তস্বল্পতা কমাতে কিশমিশ যথেষ্ট উপকারী। নিয়মিত খেলে এতে আয়রন হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়ে। এছাড়াও এটিতে তামা রয়েছে যা রক্তে রক্তের লাল কোষ তৈরি করতে সহায়তা করে।

 

৫. হজমশক্তি বাড়ায় কিসমিস

কসুস্থ থাকার জন্য ভাল হজম জরুরি। এক্ষেত্রে কিসমিস হজমশক্তি বাড়াতে সহায়তা করে। প্রতি রাতে এক গ্লাস জলে কিসমিস ভিজিয়ে রাখুন। পরদিন সকালে সেই কিসমিস খান। তারপরে পনের দিন পরে ফলাফলটি আপনার জন্য লক্ষ্য করুন।

তবে কিসমিস খাওয়া ঠিক যেমন উপকারী তেমনি প্রচুর পরিমাণে কিসমিস খাওয়া স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকারক। কিশমিশে ফ্রুকটোজের পাশাপাশি গ্লুকোজ সমৃদ্ধ। যা ওজন বাড়ায়। অতিরিক্ত খেলে শ্বাসকষ্ট, বমিভাব, ডায়রিয়ার মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে, তাই প্রতিদিন অল্প করে কিসমিস খেতে পারেন।

 

 

আরও পড়ুনঃ  শারীরীক মিলনের সময় দ্রুত বী’র্যপাত সমস্যা দূরীকরণে নতুন কার্যকর সমাধান জেনে নিন

 

Leave a Comment