কলার উপকারিতা

সুচিপত্র

কলার উপকারিতা ও অপকারিতা

ক্যালরির চাহিদা মেটাতে সবচেয়ে সহজলভ্য ফল হল কলা। এ ফলের ক্যালরির পরিমাণ ১০০। এতে খনিজ, ভিটামিন এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে। যা আমাদের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে সাহায্য করে। অনেকেই সকালের নাস্তায় কলা খান। কেউ কেউ দিনের অন্য সময়ে কলা খান। তবে বিশেষজ্ঞরা সকালে কলা খাওয়ার পরামর্শ দেন।

কলার উপকারিতা
কলার উপকারিতা

কলা খাওয়ার উপকারিতা কি?

কলা সবচেয়ে সস্তা কিন্তু সবচেয়ে ভালো মানের খাবার। খেতেও দারুণ। অনেকের প্রিয় একটি খাবার বা ফল হল কলা। এটি ভিটামিন ও অন্যান্য পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ একটি ফল। এর মধ্যে রয়েছে ভিটামিন, মিনারেল, ফাইবার ইত্যাদি। এসব উপাদান শরীরের জন্য খুবই উপকারী। এবার জানবো কলার উপকারিতা।

কলার সাস্থ্য উপকারীতা

১ শরীরের শক্তি বৃদ্ধিতে এর গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে। শরীরে দুর্বলতা থাকলে এই ফলটি খাওয়া যেতে পারে। এটি শরীরে শক্তি সরবরাহ করতে পারে।
২ ফলস্বরূপ, এতে পটাসিয়ামের সাথে ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে। আর এই দুটি উপাদান শরীরের হাড়কে মজবুত করে।
৩ এতে থাকা ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করে।
৪ ছোট বাচ্চাদের নতুন শক্ত খাবার খাওয়ানোর সময় চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ফল হিসেবে কলা খাওয়ানো যেতে পারে।
৫ কলা পেট পরিষ্কার রাখার পাশাপাশি হজমশক্তি বাড়ায়। এতে থাকা ফাইবার এই কাজে সাহায্য করে।
৬ কলাতে ক্যারোটিনয়েড এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্টও রয়েছে। এগুলো শরীরের জন্যও অনেক উপকারী।
৭ কলা পটাশিয়াম সমৃদ্ধ। শরীরের পটাশিয়ামের চাহিদা মেটাতে প্রতিদিন একটি করে কলা খেলে উপকার পাওয়া যায়।
৮ কলা একটি মিষ্টি ফল। তবে মিষ্টি হলেও এই ফল চিনি বাড়ায় না। এর জিআই মান বেশ ভালো তাই ডায়াবেটিস রোগীরা আত্মবিশ্বাসের সাথে খেতে পারেন।

সকালে কলা খেলে শরীরে শক্তি বৃদ্ধি পায়। তবে খালি পেটে কলা খাওয়া ঠিক নয়। সকালে কলা খেলে অন্যান্য উপকারিতা হল-

সকালের নাস্তায় কলা: অনেকেই ডিম, টোস্ট বা কর্নফ্লেক্স দিয়ে সকালের নাস্তায় কলা খান। এটি পেট ভরানোর মতো পুষ্টিও সরবরাহ করে। যারা নিয়মিত ব্যায়াম করেন তারা অবশ্যই সকালের নাস্তায় কলা খান। হজমের সমস্যা থাকলেও কলা খেতে বলছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে সব সময় স্বাস্থ্যকর চর্বিযুক্ত কলা খাওয়া উচিত। পিনাট বাটার, দই বা পারমেসান দিয়ে কলা খেতে পারেন।

হার্ট সুস্থ রাখতে কলার উপকারিতা

আমরা অনেকেই হার্টের সমস্যায় ভুগি। হার্ট সুস্থ রাখতে কলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। পাকা কলা পটাসিয়াম সমৃদ্ধ, সেইসাথে অন্যান্য কিছু সক্রিয় উপাদান। ফলস্বরূপ, আপনি যদি প্রতিদিন 2/3টি ভাল কলা খেতে পারেন তবে আপনার হার্ট সুস্থ এবং সক্রিয় থাকবে। পাশাপাশি হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। তাই হার্টকে সুস্থ ও সচল রাখতে চাইলে নিয়মিত কলা খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে।

ওজন নিয়ন্ত্রণে কলার উপকারিতা

অনেকেই মনে করেন কলা খেলে ওজন বাড়ে। আর তাই অনেকেই তাদের ওজন নিয়ন্ত্রণে খাবার থেকে কলা বাদ দেন। তবে কলা খুবই পুষ্টিকর একটি ফল। রক্তচাপ ঠিক রাখা থেকে শুরু করে হার্টের সমস্যা সবই দূরে রাখে কলা। পাকা হলুদও অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে সমৃদ্ধ এবং এর অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে।

কিডনি সুস্থ রাখতে কলার উপকারিতা

বিভিন্ন কারণে কিডনি অসুস্থ হয়ে পড়ে। উদাহরণস্বরূপ, কিডনির ক্ষতির 46 শতাংশ নেফ্রাইটিসের কারণে, 36 শতাংশ ডায়াবেটিসের কারণে এবং 11 শতাংশ উচ্চ রক্তচাপের কারণে। বিভিন্ন সমস্যার কারণেও কিডনি রোগ হয়। কিডনি সুস্থ রাখতে অনেক ধরনের খাবার রয়েছে, তার মধ্যে একটি হল পাকা কলা। অর্থাৎ প্রতিদিন ১/২ ঘণ্টা ভালো ও পরিষ্কার পাকা কলা খেতে পারলে এই সমস্যা অনেকটাই দূর করা যায়। কারণ এতে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে শর্করা, প্রোটিন এবং আরও কিছু উপাদান।

পানির চাহিদা মেটাতে কলার উপকারিতা

আগের রাতে বেশি তৈলাক্ত মশলাদার খাবার খেলে পরের দিনও এর প্রভাব পড়ে। কলায় প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম থাকে যা এই সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। এছাড়াও, কলা এবং মধু দিয়ে তৈরি স্মুদি স্নায়ুর উত্তেজনা কমায়। এ কারণে সুস্থ থাকতে কলা স্মুদি খাওয়ার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।

শরীরে শক্তি জোগাতে কলার উপকারিতা

কলার উপকারিতা যথেষ্ট, তবে এটি শক্তি বৃদ্ধিতেও অনন্য ভূমিকা পালন করে। কলা শক্তি বৃদ্ধিতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। কারণ এতে ক্যালসিয়াম রয়েছে ৭৫ মি. গ্র. ফসফরাস 50 মি. গ্র. লোহা 0.6 মি. গ্র. ভিটামিন-সি, ভিটামিন-বি কমপ্লেক্স – 8 মিলিগ্রাম। মোট ক্যালোরি 116. এছাড়াও জল 60.1 মিগ্রা. মাংস 1.2 মিলিগ্রাম। চর্বি 0.3 মিলিগ্রাম। খনিজ লবণ 0.8 মিলিগ্রাম। ফাইবার 0.4 মিলিগ্রাম। এবং চিনি 6.2 মিলিগ্রাম। সেখানে. যা শরীরে প্রচুর শক্তি জোগাতে সাহায্য করে। যে কোনো বয়সের মানুষ নিয়মিত পাকা কলা খেতে পারেন এবং পর্যাপ্ত শক্তি স্থানান্তর করা খুবই সহজ।

আরও পড়ুনঃ ভাই বোনের কষ্টের স্ট্যাটাস

বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কলার উপকারিতা

উপরোক্ত কলার উপকারিতা ছাড়াও এটি বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। পাকা কলা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সাহায্য করে, উচ্চ রক্তচাপ কমাতে ভূমিকা রাখে এবং কোষের পর্যাপ্ত ক্ষতি রোধ করার পাশাপাশি বিভিন্ন কোষের রোগ প্রতিরোধ করে। তাহলে বুঝবেন, এই সামান্য খাবারটি যে আমরা অনেকেই অবহেলা করি, নিয়মিত খাই না, এর গুণ কী! শরীরকে সুস্থ, সবল, সবল ও ফিট রাখতে পাকা কলা অবশ্যই খেতে হবে সবাইকে, বিশেষ করে অতিরিক্ত প্রতিটি ছেলে-মেয়েকে।

কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যায় কলার উপকারিতা

পেট পরিষ্কার না থাকলে শরীরে নানা সমস্যা দেখা যায়। এ কারণে সকালে ঘুম থেকে উঠেই খেয়াল রাখতে হবে যাতে পেট পরিষ্কার থাকে। যাদের আলসারের মতো সমস্যা রয়েছে, যারা কোষ্ঠকাঠিন্যে ভুগছেন তাদের জন্য নিয়ম মাফিক প্রতিদিন একটি করে কলা খাওয়া উচিত।

খাবার হজম করতে কলার উপকারিতা

কলা খাবার হজমে বিশেষ ভূমিকা রাখে। অনেক চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের মতে, একটি ভালো মানের পাকা কলায় এমন কিছু কার্যকরী উপাদান থাকে যা খাবার হজমে সাহায্য করে। কারো যদি হজমের সমস্যা থাকে বা খাবার হজমে কোনো সমস্যা থাকে তাহলে নিয়মিত ১/২টি পাকা কলা খান, কিছুক্ষণ পর দেখবেন এই সমস্যার সমাধান হয়ে গেছে। তবে, এটি অবশ্যই পরিষ্কার এবং ভালভাবে ধুয়ে ফেলতে হবে, যাতে অন্য কোনও সমস্যা না হয়। শরীর সুস্থ রাখতে প্রতিদিন কলা খাওয়া শুরু করুন।

ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে কলার উপকারিতা

ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে কলার উপকারিতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অন্যান্য খাবারের পাশাপাশি কলাও ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। সাম্প্রতিক কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণে পাকা কলা খেলে TNF-A নামক এক ধরনের যৌগ পাওয়া যায়, যা শরীরের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, যা শরীরের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ার পাশাপাশি শ্বেত রক্তকণিকার পরিমাণ বাড়ায়। আর এটি ব্লাড ক্যান্সারের ঝুঁকি অনেকাংশে কমায়। এছাড়াও, পাকা কলা খাওয়া আপনাকে অনেক ধরনের ক্যান্সার থেকে বাঁচাতে পারে। এটি শরীরের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে খুবই সহায়ক।

ত্বক সুস্থ ও সতেজ রাখতে কলার উপকারিতা

কলায় রয়েছে প্রায় ৭০.১% জল যা ত্বককে সুস্থ, সুন্দর, সতেজ এবং কোমল রাখতে সাহায্য করে। অনেকেরই অল্প বয়সে ত্বকের বুড়ো ছাপ পড়ে, ঠিকমতো যত্ন না নিলে নানা সমস্যা দেখা দেয়। ফলে ত্বকের সৌন্দর্য ও ঔজ্জ্বল্য নষ্ট হয় এবং বিভিন্ন রোগ দেখা দেয় যা শরীরের স্বাস্থ্যের জন্য হুমকিস্বরূপ। ভালো না দেখলে অনেক সমস্যা হবে। তাই আপনাকে অবশ্যই সঠিক উপায়ে আপনার ত্বকের যত্ন নিতে হবে এবং এমন সব খাবার খেতে হবে যা আপনার ত্বককে সুন্দর রাখে। আপেল, পেয়ারার পাশাপাশি ১/২ কলা খেতে পারেন, ভালো উপকার পাবেন। পাকা কলা নিয়মিত খেলে আপনার ত্বক সুস্থ ও সতেজ থাকবে।

পেটের আলসার এবং বুকজ্বালা প্রতিরোধে কলার উপকারিতা

অনিয়মিত, অস্বাস্থ্যকর এবং অপুষ্টির কারণে পেট ও অম্বল হতে পারে। তাই সবসময় নিয়মিত, স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে। আর তখন যাদের বিভিন্ন কারণে পেটের সমস্যা আছে তাদের জন্য পাকা কলা খুবই উপকারী হবে। অর্থাৎ পাকা কলা খেলে পেট সুস্থ ও পরিষ্কার থাকে। কলা পাকস্থলীতে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি রোধেও সাহায্য করে। তাহলে যারা পেটের আলসারে ভুগছেন? নাকি অম্বল থেকে আরাম পাচ্ছেন না? তাদের প্রতিদিন কলা খাওয়া উচিত। কলা প্রতিরক্ষামূলক শ্লেষ্মা স্তর বাড়িয়ে পাকস্থলীর পিএইচ স্তর বজায় রাখে, যা বুকজ্বালা এবং পেটের আলসার ভালো রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করবে।

মানসিক চাপ কমায় এবং ঘুম বাড়াতে কলার উপকারিতা

কলা আপনাকে স্ট্রেস কমাতে সাহায্য করবে এবং ভালো ঘুমাতে সাহায্য করবে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যারা বেশি মানসিক চাপে থাকেন তাদের নিয়মিত পাকা কলা খাওয়ার পাশাপাশি অন্যান্য ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। কারণ এতে রয়েছে অ্যামিনো অ্যাসিড ট্রিপটোফ্যান, যা সেরোটোনিনে রূপান্তরিত হয়। এবং সঠিক পরিমাণে সেরোটোনিন আপনার মেজাজ ঠিক রাখতে সাহায্য করবে যার ফলে মানসিক চাপ কমবে। আর মানসিক চাপ কম থাকলে ঘুম ভালো হবে, এটাই স্বাভাবিক। তাহলে কেন নিয়মিত কলা খান না। দামে সস্তা এবং যেকোন সময় পাওয়া যায়।

আরও পড়ুনঃ উপকারীর অপকার করে যে

রক্তশূন্যতা কাটিয়ে উঠতে কলার উপকারিতা

অনেকেই রক্তস্বল্পতায় ভুগছেন, তাই প্রাথমিক পর্যায়ে ডাক্তারের কাছে না গিয়ে পাকা কলা খেতে পারেন। কারণ পাকা কলা রক্তশূন্যতা দূর করতে বিশেষ ভূমিকা রাখে। আয়রনের অভাবে রক্তশূন্যতা হয় এবং কলাতেও যথেষ্ট পরিমাণ আয়রন থাকে। আয়রন শরীরে রক্তকণিকা এবং হিমোগ্লোবিন তৈরিতে কাজ করে। অর্থাৎ প্রতিদিন ১/২ মাস ভালো ও পরিষ্কার পাকা কলা খেতে পারলে রক্তশূন্যতার সমস্যা দূর হবে।

কাঁচা কলার ভর্তা উপকারিতা

কলা খাওয়ার উপকারিতা আগেই জানা আছে। কিন্তু শুধু কি পাকা কলা খাওয়া যায়? না। কলা কাঁচা বা পাকা উভয়ই খাওয়া যায়। পাকা কলার মতো কাঁচা কলাও খাওয়া যায় এবং এর অনেক পুষ্টিগুণ রয়েছে। কাঁচা কলাতেও রয়েছে নানা পুষ্টিগুণ। এটি মূলত সবজি হিসেবে খাওয়া হয়।

কাঁচা কলা উপকারিতা

সবুজ কলায় সবচেয়ে বেশি পরিমাণে প্রতিরোধী স্টার্চ এবং সবচেয়ে কম পরিমাণে চিনি থাকে। এছাড়াও এতে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে অ্যামিনো অ্যাসিড, ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন সি, আয়রন, ক্যালসিয়াম এবং ফসফরাস।

সহজলভ্য সবজির মধ্যে একটি হল কাঁচা কলা। এর মধ্যে রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন বি, ভিটামিন সি, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফেট, প্রোবায়োটিক ইত্যাদি। এটি বিভিন্নভাবে খাওয়া যায়। তরকারি বা ম্যাশ যে কোনোভাবেই খাওয়া যায়। কাঁচা কলার পেস্টের অনেক উপকারিতা রয়েছে। যেসব সুবিধা পাওয়া যায়:

১ কাঁচা কলার ভর্তা রয়েছে ফাইবার। এই ফাইবার দীর্ঘক্ষণ পেট ভরা রাখে। সহজে ক্ষুধা লাগে না। ফলে অন্য খাবার না খেলে ওজন কমে যায়।
২ এই পেস্ট/ভর্তা রক্তে চিনির পরিমাণ নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে। আঁশযুক্ত হওয়ায় এটি শর্করা নিয়ন্ত্রণ করে।
৩ এতে থাকা ভিটামিন বি৬ রক্তের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ করে এবং টাইপ-২ ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সাহায্য করে।
৪ আঁশযুক্ত হওয়ায় এই খাবার সহজে হজম হয়। পাশাপাশি এটি হজমশক্তি বাড়ায়।
৫ ডায়রিয়া ও পেটের বিভিন্ন সমস্যা দূর করতে কাঁচা কলা একটি উপকারী ও কার্যকরী খাবার।
৬ নিয়মিত কাঁচা কলা খেলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। এতে রয়েছে পটাশিয়াম যা হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।
৭ এটি কোলন সংক্রান্ত বিভিন্ন রোগ দূর করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধেও এটি খুবই কার্যকরী।

কলা কখন খাওয়া উচিত?

কলা সম্পর্কে বিভিন্ন ধারণার মধ্যে একটি হল কলা আসলে কখন খাওয়া উচিত। দিন বা রাত? নাকি অন্য কোন সময়? খালি পেট নাকি ভরা পেট?

এই সব প্রশ্নের উত্তর হল সকালে কলা খাওয়া উচিত। সারাদিন সকালে এটি খেলে উপকার পাওয়া যায়। তবে সকালে খালি পেটে খেলেও তা খাওয়া ঠিক নয়। কলা কোনোভাবেই খালি পেটে খাওয়া উচিত নয়। এটি সকালে অন্য কোন খাবারের সাথে মিশিয়ে বা অন্য কোন নাস্তার পর খেতে হবে। তবে এটি এমন কিছু নয় যা কেবল সকালে খাওয়া যায়। এটি দিনের অন্য সময়ে খাওয়া যেতে পারে। তবে সকালে খেলে উপকার বেশি হয়।

রাতে কলা খেলে কি হয়?

রাতে ফল, বিশেষ করে কলা খাওয়া নিয়ে সবারই ভিন্ন ভিন্ন মত রয়েছে। অনেকেই রাতে কলা খেতে নিষেধ করেন। এই ক্ষেত্রে, এটি সবার জন্য এক নয়।

মূলত যাদের ঠাণ্ডা বা হাঁপানির সমস্যা আছে, তাদের রাতে কলা না খাওয়াই ভালো। কারো সর্দি বা কাশি হলে রাতে না খাওয়াই ভালো। কারণ এটি একটি ঠাণ্ডা ফল। আর হজমেও অনেক সময় লাগে।

তবে যাদের সমস্যা নেই তারা রাতে খেতে পারেন। কারণ, এই ফল শরীরে প্রচুর শক্তি জোগায়। সারাদিনের ক্লান্তি দূর করতে এটি ভালো কাজ করে। এছাড়া রাতে ঘুমানোর আগে কলা খেলে শরীর ভালো ঘুমের জন্য প্রস্তুত হয়। তাই আপনি চাইলে রাতে কলা খেতে পারেন। এটা কোন সমস্যা না।

আরও পড়ুনঃ মধুমতি কোন নদীর শাখা নদী

কলা খেলে কি ওজন বাড়ে?

কলা খেলে ওজন বাড়বে নাকি কমবে তা নিয়ে অনেক ধোঁয়াশা রয়েছে। অনেকেই মনে করেন কলায় প্রচুর পরিমাণে শর্করা ও ক্যালরি থাকে, তাই এটি খেলে ওজন বাড়ে কারণ এই সব খাদ্য উপাদান সাধারণত ওজন বাড়ায়।

কিন্তু কলায় শুধু শর্করা বা ক্যালরি ছাড়াও আরও অনেক উপাদান থাকে। এই উপাদানগুলির মধ্যে একটি হল ফাইবার। এই ফাইবার মানুষের হজমশক্তি বাড়ায়। ফাইবার খাবার সহজে হজম করতে সাহায্য করে। পাশাপাশি এই ফাইবার থাকায় মানুষের পেট অনেকদিন ভরা থাকে। ফলে কলা খাওয়ার পর অনেকক্ষণ অন্য খাবার খেতে ইচ্ছে করে না। এতে ওজন বৃদ্ধির ঝুঁকি কমে। তাই বলা যায় কলা ওজন বাড়ায় না বরং কমায়।

খালি পেটে কলা খেলে কি হয়?

দিনের যেকোনো সময় কলা খাওয়া যায়। বিশেষ করে সকালে কলা খেলে ভালো হয়। কারণ এতে সারাদিন কাজ করার শক্তি বাড়ে। কিন্তু সকালে খালি পেটে খাওয়া কি ঠিক হবে? এই ফলটি খালি পেটে খেলে কী হয়?

এই ফলটি সকালে খালি পেটে খাওয়া উচিত নয়। কারণ এতে থাকা বিভিন্ন উপাদান খালি পেটে খেলে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হতে পারে। কলায় অত্যধিক চিনি খালি পেটে শরীরে খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। আবার এই ফলটি খালি পেটে খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে।

পাশাপাশি খালি পেটে এই খাবার খেলে এতে থাকা পটাশিয়াম পেটে অ্যাসিড তৈরি করতে পারে। খালি পেটে কলা খেলেও শরীরে ক্যালসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়ামের ভারসাম্য নষ্ট হতে পারে। তাই সব দিক বিবেচনা করে বলা উচিত যে খালি পেটে কলা খাওয়া উচিত নয়।

পাকা কলার উপকারিতা

কলা পাকার সাথে সাথে প্রতিরোধী স্টার্চ চিনিতে পরিবর্তিত হতে শুরু করে। তাই হলুদ কলায় চিনি বেশি থাকে। তবে এতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে। ডাঃ সুবর্ণা বলেন, “আমরা এখন ডায়াবেটিস রোগীদের কোনো ফল খেতে নিষেধ করি না, শুধুমাত্র পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করা হয়। কলার ক্ষেত্রেও তাই। একজন রোগীর খাবারে যদি ১০০-১৫০ গ্রাম ফল থাকে, তাহলে তার অর্ধেক অর্থাৎ ৫০-৬৫ গ্রাম কলা। খাওয়া যেতে পারে।কোষ্ঠকাঠিন্যে আক্রান্তদের পাকা কলা খাওয়া উচিত।এতে আছে ফাইবার যা পেট পরিষ্কার করতে সাহায্য করে।আবার পেট খারাপ হলে কাঁচকলা খেলে উপকার পাবেন।কলা পটাসিয়াম,খনিজ এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ। ফলে এটি খুবই স্বাস্থ্যকর একটি ফল।তবে পটাশিয়ামের মাত্রা বেশি থাকায় যাদের কিডনি ফেইলিওর হয়েছে বা কোনো অসুখের কারণে তাদের পটাসিয়াম গ্রহণ নিয়ন্ত্রণ করতে বলা হয়েছে, তাদের কলা না খাওয়াই ভালো। ভিটামিন ছাড়াও এবং কলায় খনিজ, অ্যান্টি-অক্সিডেন্টও পাওয়া যায়।”

কলায় ব্রাউন সুগারের পরিমাণ আরও বেশি। যত বেশি বাদামী দাগ, তত বেশি চিনির অণু এতে থাকে।

আস্ত বাদামী কলা মানে অতিরিক্ত পাকা কলা। এতে প্রচুর পরিমাণে শর্করা এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে।

বিভিন্ন ধরনের কলা

সিঙ্গাপুর, মর্টম্যান, কাঁঠাল- বিভিন্ন ধরনের কলা। পুষ্টিবিদ সুবর্ণা রায়চৌধুরী বলেন, সব ধরনের কলাই পুষ্টিগুণের দিক থেকে এক। সবকিছুই ভোজ্য। কোয়েল পাল চৌধুরী আরও বলেন, “সব কলা প্রায় সমান। তবে কাঁঠালের পুষ্টিগুণ একটু বেশি, হজম করাও সহজ। ”

আরও পড়ুনঃ চোখের নিচে কালো দাগ দূর করার উপায় 

কলার অপকারিতা

কলার কোন দোষ নেই। তবে খালি পেটে কলা খাওয়ার অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়। তাই খালি পেটে না খেয়ে অন্য কোনো শুকনো খাবারের সঙ্গে মিশিয়ে খেলে ক্ষতির বদলে উপকার পাবেন।

তবে ভারী খাবার বা খাবারের সঙ্গে কলা না খাওয়াই ভালো। খাওয়ার এক থেকে দেড় ঘণ্টা পর কলা খান। কলাতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। এই বিরতিতে খেলে শরীর সহজেই ফাইবার শোষণ করতে পারে।

অনেকেই সরাসরি কলা খেতে পছন্দ করেন না। আপনি স্বাদ পরিবর্তন করতে চাইতে পারেন। সেক্ষেত্রে কলার স্মুদি বানানোর পরামর্শ দিচ্ছেন ডাক্টাররা। কলা অন্যান্য ফলের স্মুদির সাথেও মেশানো যেতে পারে। কলা ও ওটমিল স্মুদিও খেতে পারেন। পেট ঠাণ্ডা রাখতে কলা ও সাবান খেতে পারেন। যারা অসুস্থতার কারণে তরল বা আধা-সলিড ডায়েটে আছেন তাদের জন্যও এই দুটি পদ্ধতি আদর্শ। এটি সুস্বাদু এবং পেট ভরবে।

এই ফলটি হাতের কাছে সবচেয়ে সহজ সমাধান কারণ এটি খুব সহজলভ্য এবং সস্তা, যা আপনাকে আপনার পুষ্টির চাহিদা মেটাতে সাহায্য করবে পাশাপাশি ক্ষুধাও মেটাতে সাহায্য করবে। পাশাপাশি সহজলভ্য সবজি হিসেবে খাদ্য তালিকার শীর্ষে রাখা যেতে পারে কাঁচা কলা। এতে আপনার পুষ্টির চাহিদা সহজেই পূরণ হবে।

অবশেষে

শরীরে শক্তি জোগাতে এবং সারাদিনের ক্লান্তি দূর করতে কলা খুবই উপকারী একটি ফল। সারাদিনের ক্লান্তি দূর করতে পারে একটি কলা।

কলার উপকারীতা সম্পর্কিত কিওয়ার্ড সমুহ

১ কলার উপকারিতা
২ কলার উপকারিতা ও অপকারিতা
৩ পাকা কলার উপকারিতা
৪ সেক্সে কলার উপকারিতা
৫ সাগর কলার উপকারিতা
৬ সাগর কলার উপকারিতা ও অপকারিতা
৭ বাংলা কলার উপকারিতা
৮ বিচি কলার উপকারিতা
৯ চাপা কলার উপকারিতা
১০ চম্পা কলার উপকারিতা
১১ কাঁচা কলার উপকারিতা ও অপকারিতা
১২ চিনি চম্পা কলার উপকারিতা
১৩ দেশি কলার উপকারিতা
১৪ পাকা কলার উপকারিতা ও অপকারিতা
১৫ কাঁঠালি কলার উপকারিতা
১৬ কাঁচা কলার উপকারিতা
১৭ সরবি কলার উপকারিতা
১৮ কাচ কলার উপকারিতা
১৯ কলার উপকারিতা কি
২০ আটিয়া কলার উপকারিতা
২১ মদনা কলার উপকারিতা
২২ কলার উপকারিতা অপকারিতা
২৩ সবরি কলার উপকারিতা
২৪ চাম্পা কলার উপকারিতা
২৫ চুলের জন্য কলার উপকারিতা
২৬ দুধ কলার উপকারিতা
২৭ কাচা কলার উপকারিতা
২৮ সিঙ্গাপুরি কলার উপকারিতা
২৯ আনাজি কলার উপকারিতা
৩০ কাঁঠালী কলার উপকারিতা
৩১ কলার উপকারিতা কি কি
৩২ কাচা কলার উপকারিতা ও অপকারিতা
৩৩ কাঁচ কলার উপকারিতা
৩৪ লাল কলার উপকারিতা
৩৫ চুলে কলার উপকারিতা

আরও পড়ুনঃ চোখের জন্য উপকারী খাবার

৩৬ কলার উপকারিতা
৩৭ কলার উপকারিতা ও অপকারিতা
৩৮ কলার উপকারিতা কি কি
৩৯ kolar upokarita
৪০ kolar upokarita ki
৪১ পাকা কলার উপকারিতা
৪২ কাঁচা কলার উপকারিতা
৪৩ কলার মোচার উপকারিতা
৪৪ কলার উপকারিতা কি
৪৫ কলার উপকারিতা ও
৪৬ কলার উপকারিতা কী
৪৭ কলার উপকারিতা সৌন্দর্য
৪৮ কলার উপকারিতা অপকারিতা
৪৯ সাগর কলার উপকারিতা ও অপকারিতা
৫০ কাঁচা কলার উপকারিতা ও অপকারিতা
৫১ কাচা কলার উপকারিতা ও অপকারিতা
৫২ বিচি কলার উপকারিতা ও অপকারিতা
৫৩ বাংলা কলার উপকারিতা ও অপকারিতা
৫৪ কলার আনাজের উপকারিতা
৫৫ আটিয়া কলার উপকারিতা
৫৬ আনাজি কলার উপকারিতা
৫৭ কলা উপকারিতা ও অপকারিতা
৫৮ কাচা কলার উপকারিতা কি
৫৯ কাঁঠালি কলার উপকারিতা কি
৬০ পাকা কলার উপকারিতা কি
৬১ কলার মোচার উপকারিতা কি
৬২ কলার থোড়ের উপকারিতা কি
৬৩ কাঁচ কলার উপকারিতা কি
৬৪ কলার কি উপকারিতা
৬৫ কলার খোসার উপকারিতা
৬৬ কলা খাওয়ার উপকারিতা
৬৭ কলা খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা
৬৮ কলা খাবার উপকারিতা
৬৯ কলা খেলে উপকারিতা
৭০ কলার মোচা খাওয়ার উপকারিতা
৭১ কলার থোর খাওয়ার উপকারিতা
৭২ খালি পেটে কলার উপকারিতা
৭৩ কলা গাছের উপকারিতা
৭৪ কলার গুনাগুন ও উপকারিতা
৭৫ গর্ভাবস্থায় কলার উপকারিতা
৭৬ চম্পা কলার উপকারিতা
৭৭ চাপা কলার উপকারিতা
৭৮ চিনি চম্পা কলার উপকারিতা
৭৯ চুলের জন্য কলার উপকারিতা
৮০ চুলের যত্নে কলার উপকারিতা
৮১ চুলে কলার উপকারিতা
৮২ কলার ছোলার উপকারিতা
৮৩ কলার ছালের উপকারিতা
৮৪ কলার জুসের উপকারিতা
৮৫ ত্বকের যত্নে কলার উপকারিতা
৮৬ কলার থোড়ের উপকারিতা
৮৭ কলার পাতার উপকারিতা
৮৮ কলা পাতার উপকারিতা
৮৯ কলা ফলের উপকারিতা
৯০ কলার উপকারিতা বাংলা
৯১ বিচি কলার উপকারিতা
৯২ মদনা কলার উপকারিতা
৯৩ লাল কলার উপকারিতা
৯৪ শবরী কলার উপকারিতা
৯৫ সবরি কলার উপকারিতা
৯৬ সাগর কলার উপকারিতা
৯৭ সিঙ্গাপুরি কলার উপকারিতা
৯৮ সে-ক্সে কলার উপকারিতা

3 thoughts on “কলার উপকারিতা”

Leave a Comment