কোন গেম খেলে টাকা আয় করা যায়

আজকাল বাংলাদেশে অনেক ধরনের গেম আছে যেগুলো থেকে আপনি খুব সহজেই টাকা আয় করতে পারেন। বর্তমানে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় গেমগুলোর মধ্যে ফ্রি ফায়ার এবং PUBG সবচেয়ে বেশি মানুষ খেলে। এই ভিডিও গেম গুলি এত জনপ্রিয় যে লোকেরা এই গেমগুলি খেলতে সময়ের সাথে বিপুল পরিমাণ অর্থ পর্যন্ত ব্যয় করে ফেলে।

বিশেষ করে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় স্কুলগামী ছাত্র-ছাত্রীদের পুরো সময় খেলায় নষ্ট হয়। কিন্তু তারা চাইলে এই গেম গুলি খেলার মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে পারে। আজকে আমি আপনাদের বলব কিভাবে এই ধরনের কিছু গেম খেলে সহজেই টাকা আয় করা যায়। তাই আমাদের এই পোস্টটি সম্পূর্ণ মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। কারণ আপনি যদি গেম খেলে সহজেই অর্থ উপার্জনের উপায় খুঁজে থাকেন তবে এই পোস্টটি আপনার জন্য খুব প্রয়োজনীয় হবে।

এই পোস্টের মাধ্যমে আপনি যাতে আপনার সময় গুলো গেম খেলে নষ্ট না করে, গেম গুলি ব্যবহার করে খুব সহজেই গেম খেলে অর্থ উপার্জন করতে পারেন এমন বিষয় নিয়ে বিস্তারীত আলোচনা করব। তাই সময় নিয়ে সম্পুর্ন পোস্টটি পড়ুন। এবং সেখান থেকে আপনার পছন্দের ক্যাটাগড়ী বেচে নিয়ে কাজ শুরু করতে পারবেন।

অনলাইনে আয় সম্পর্কে কিছু কথা

কোন গেম খেলে টাকা আয় করা যায়
কোন গেম খেলে টাকা আয় করা যায়

অনলাইনে আয় করতে চান এমন হাজার মানুষ রয়েছেন কিন্তু না আছে তাদের কোন কাজের উপর দক্ষতা বা ট্রেনিং না আছে দীর্ঘ সময় নিয়ে অনলাইনে ফ্রি বা পেইড ভিডিও কোর্স করে কাজ শেখার ইচ্ছা আমি সব সময় তাদের জন্য বলে থাকি আসলে অনলাইনে অর্থ উপার্জনের কোনও সহজ উপায় নেই। এটি কেবল ইন্টারনেট নয়, অর্থো উপার্জনের কোনও সহজ উপায় পৃথিবীতে নেই। আপনার অবশ্যই দক্ষতা থাকতে হবে যা আপনাকে আপনার দক্ষতার উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন উপায়ে বা মাধ্যমের অর্থ উপার্জনের পথ দেখাবে।

এক কথায় বলা যায় অভিজ্ঞতা ছাড়া কোনও কাজ করা যায় না। সেটা অনলাইন বা অফলাইন যেখানেই হোক। কোন একটি বিষয়ে সঠিক দক্ষতা ছাড়া অনলাইন বা অফলাইন যে কোন উপায় থেকে টাকা আয় করা সম্ভব নয় সুতরাং আপনি গেম খেলার মাধ্যমে যদি অর্থ উপার্জন করতে চান তাহলে আপনার অবশ্যই গেমিংয়ের উপরে একটি ভাল অভিজ্ঞতা থাকা জরুরী।

আজকের আলোচনা শুরুর আগে আমি আমার ব্যক্তিগত একটা কথা আপনাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই তাহলো- অনলাইনে গেম খেলে টাকা ইনকাম করার চিন্তা বাদ দিয়ে কিছু শেখার চেষ্টা করুন। বিভিন্ন ভিডিও কোর্স পাওয়া যায় সে গুলো ও করতে পারেন। এক কথায় আমি বলতে চাই এমন কিছু করা উচিৎ যাতে কিছু শিখতে পারবেন এবং নিজের দক্ষতা বাড়বে সাথে অর্থ উপার্জন হবে।

তাই আমি বলি এখন ইউটিউবে সব ধরনে কাজের জন্য বাংলা ভাষায় হাজার হাজার ভিডিও টিউটোরিয়াল পাওয়া যায় । আপনার ইচ্ছা মত নিদিষ্ট একটি বিষয় সিলেক্ট করে সেটির উপর কাজ শেখার চেষ্টা করুন এক দিন সফল হবেন। হয় কিছু সময় আপনাকে সেখারে খরচ করতে হবে।

কেউ যদি অনলাইনে অর্থ উপার্জনের আকর্ষণীয় লোভনীয় উপায় দেখায় তবে আপনি কখনই এটি বিশ্বাস করবেন না। এর কারণ হ’ল এই পৃথিবীতে কোনও সংস্থা বা পরিষেবা তাদের লাভ ছাড়াই আপনাকে অর্থ প্রদান করবে না। লাভ বলতে বুঝিয়েছি তাদের কাজ না করলে তারা আপনাকে কেন অর্থ দিবে।

সে কারণেই আমি বলি কেউ যদি অনলাইনে সহজেই অর্থ উপার্জনের জন্য আপনাকে আকর্ষণীয় অফার দেয় তবে তা গ্রহণ করবেন না। এমনও হবে পারে সে আপনাকে মিথ্যা বলে প্রতারনা ফাদে ফেলবে।

তাই একবার আপনি যদি ঠাণ্ডা মস্তিষ্কে বসে চিন্তা করেন যে ব্যক্তি, পরিষেবা বা সংস্থা আপনাকে অর্থ দেবে কিন্তু কেন দেবে? যদি আপনি উত্তর অনুসন্ধান করেন তবে আপনি নিজেই তার সঠিক উত্তর পেয়ে যাবেন।

আমার অনেক বকর বকর শুনলের এবার চলুন মূল আলোচনা দিকে হাটা শুরু করি-

গেম খেলে টাকা আয়

গেইম খেলতে যেহেতু আপনাকে দক্ষতা অর্জন করতে হবে তাহলে আপনি প্রথমে কি গেইম খেলবেন তা ঠিক করে নিন। এবং প্রাথমিক ধারণা নিতে কিভাবে গেইমটি খেলতে হয় সেই সম্পর্কে ইউটিউবে ভিডিও দেখুন। অথবা গুগল হতে জেনে নিন। এছাড়া কেউ এই গেইমটি আগে খেললে তার কাছ থেকে প্রাথমিক ধারণা নিয়ে শিখে নিন কিভাবে খেলে। খেলা শুরু করলে আপনি একসময় দক্ষ হয়ে উঠবেন ।

এরপর আসা যাক কি মোবাইল প্রয়োজন হবে গেম খেলার জন্য বা কি কম্পিউটার হলে কেমন কম্পিউটার হতে হবে? এখানে বলে রাখা ভালো যে দক্ষ গেমার হতে শুধু মোবাইল ফোনে যথেষ্ট নয়। মোবাইল ফোনে আপনার খেলতে যেমন অসুবিধা হবে তেমনি আপনার চোখেরও অনেক ক্ষতি হবার সম্ভবনা থাকে। তাই গেইম খেলতে আপনি একটি ভালো কনফিগারেশন কম্পিউটার ব্যবহার করতে। এক্ষেত্রে গেইমিং পিসি নিতে পারলে খুব ভালো হয়।

গ্রাফিক্স কার্ড ব্যবহারের মাধ্যমে হাই রেজুলেশনের গেইম গুলো আপনি খুব সহজে খেলতে পারবেন। এবং খেলে অর্থ উপার্জনও করতে পারবেন। গেইমিং দিয়ে টাকা ইনকাম করতে হলে বেশি করে খেলতে হবে এবং দক্ষ খেলোয়াড়ের মত খুঁটিনাটি ভালো ভাবে বিস্তারিত জানতে বিশদ ধারনা থাকতে হবে।

এখানে বলে রাখা ভালো আপনি মোবাইল দিয়ে গেইম খেলতে চাইলে তা কোন দামি ব্রান্ডের ফোন হতে হবে।নতুবা ভারি গেইম গুলো আপনার মোবাইল ফোনের ধারণ ক্ষমতার বাইরে হলে তা মোবাইলের ক্ষতির কারন হয়ে দাড়াবে।

গেম খেলে অর্থ উপার্জনের উপায়

এখানে আমি বিভিন্ন পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করব যার মাধ্যমে আপনি গেম খেলে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। চলুন দেখে নেওয়া যাক এই পদ্ধতিগুলো কি-

ইউটিউবে গেম ভিডিও দিয়ে অর্থ উপার্জন করুন

অনলাইন গেম খেলে অর্থ উপার্জনের সেরা জনপ্রিয় উপায় হল YouTube। ইউটিউবে একজন ভালো গেমার এখন খুব সহজেই অনলাইনে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। এছাড়াও, ইউটিউবে গেম ভিডিও গুলি অনেক আগে থেকেই জনপ্রিয়। যদি আপনি একটি গেমিং চ্যানেল তৈরি করেন এবং সেখানে নিয়মিত ভিডিও আপলোড করেন তাহলে সহজেই আয় করতে পারেন।

বর্তমানে বাংলাদেশে অনেক গেমিং ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে। তারা প্রতিনিয়ত গেম খেলে সেই গেমিং রেকোর্ড করা ভিডিও ইউটিউব চ্যানেলে প্রচার করে প্রচুর অর্থ উপার্জন করছে। তাই আপনি চাইলে ইউটিউবে গেম খেলে সহজেই টাকা আয় করতে পারেন। এখানে একটি মজার বিষয় হল যে আপনাকে অন্যান্য ইউটিউবারদের মত কঠিন কনটেন্ট তৈরি করতে হচ্ছে না খুব সহজেই একটি ভিডিও কনটেন্ট হয়ে যায় গেম খেলে।

যেখানে অন্য ইউটিউবার একটি কনটেন্ট তৈরীতে ২ থেকে ১০ দিন সময় লাগিয়ে ফেলে। আপনি মজা করার জন্য গেম খেলার সময় স্ক্রিন রেকর্ড করবেন এবং সেই ভিডিও গুলি আপলোড করে ক্রমাগত অর্থ উপার্জন করতে পারেন। ইউটিউব থেকে গেম খেলে টাকা ইনকাম করতে সবার আগে ইউটিউবে একটি চ্যানেল খুলতে হবে। কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল খুলবেন তা আমাদের এই পোস্টে কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল খুলবো আলোচনা করেছি দেখে নিতে পারেন।

একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলুন এবং আপনার পছন্দের গেমগুলি নিয়মিত খেলুন এবং স্ক্রিন রেকর্ডারের সাহায্যে রেকর্ড করে আপনার চ্যানেলে আপলোড করুন। একজন গেমার ইউটিউব থেকে খুব সহজেই দুটি উপায়ে অর্থ উপার্জন করতে পারে একটি ভিডিও আপলোড করে এবং দ্বিতীয়টি মনিটাইজেশন করে তবে মনিটাইজেশন করে খুব সহজেই টাকা ইনকাম করা যায় যা ভিডিও আপলোড করে ইনকাম এর চাইতে অনেক সহজ।

যাইহোক, আমি ইউটিউবের কথা বলছি কারণ এই ভিডিও সাইটটি অন্যান্য দেশের গেমার সহ সকল ধরণের মানুষের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। তাই গেমিং থেকে আয় করার জন্য আমাদের কাছে প্রথম পরামর্শ হল আপনি একটি YouTube চ্যানেল খুলুন।

আপনি যদি সত্যিকারের গেমার হন, তাহলে আপনি দেখতে পাবেন যে চীন, রাশিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বড় গেমারদের ইউটিউবে হাজার হাজার জনপ্রিয় গেমার চ্যানেল রয়েছে। আমাদের সাব কন্টেন্ট গেমিংয়ের এই জগতে পিছিয়ে নেই আপনি ইউটিউব খুলে বাংলাদেশ ও ভারতীয় খেলোয়াড়দের চ্যানেল দেখতে পারেন। এই ক্ষেত্রে আপনি প্রথমে একটি স্ক্রিন রেকর্ডার দিয়ে গেমের কঠিন ধাপগুলি রেকর্ড করবেন এবং আপনার ভয়েস দেবেন যাতে ভিডিও আরও আকর্শনীয় হয়ে উঠে। তবেই আপনি সহজেই দর্শক পাবেন।

অন্যান্য গেমাররা আপনার চ্যানেলে আসবে এবং কঠিন স্তরকে হারানোর নিয়ম শিখবে এটি আপনাকে YouTube থেকে উপার্জনের সহজ উপায় উয়ে দাড়াবে। টি-সিরিজ একটি মিউজিক চ্যানেল কিন্তু এখন এর একটি গেমিং চ্যানেলও রয়েছে। এটি ভারত দ্বারা পরিচালিত হয়। তাদের চ্যানেলে গেলে দক্ষ গেমারদের ভিডিও দেখতে পাবেন। কিভাবে তারা ভয়েস দিয়ে ভিডিও আপলোড করেছে। আপনি তাদের অনুকরণ করে একই কাজ করতে পারেন এবং গেমিংয়ের মাধ্যমে উপার্জন করতে পারেন।

Pewdiepie নামের একটি YouTube চ্যানেল যেটি তাদের চ্যানেল থেকে $500,00 এর বেশি আয় করে প্রতি মাসে। দেখুন তাদের চ্যানেলে কতজন সাবস্ক্রাইবার আছে। তারা দক্ষ গেমারদের দিয়ে খেলা গুলো ইউটিউবে আপলোড করে। এবং এখন দিনি দিন এই গেমিং ভিডিও গুলো জনপ্রিয় হয়ে উঠছে, লোকেরা তাদের ভিডিও দেখে গেম খেলা শিখছে।

তাই আমার পরামর্শ হবে একটি নির্দিষ্ট গেম ভালোভাবে শিখে নিন এবং দক্ষ হয়ে উঠুন এবং ধীরে ধীরে আপনার ইউটিউব চ্যানেল আয় করুন।

আরও পড়ুনঃ

গেম ব্লগিং করে টাকা আয় করুন

গেম খেলে অর্থ উপার্জনের আরেকটি জনপ্রিয় উপায় হল ব্লগিং করে অর্থ উপার্জন করা। ব্লগ বা ওয়েবসাইটে যদি আপনার বিভিন্ন ধরণের গেম সম্পর্কে ভাল অভিজ্ঞতা থাকে এবং আপনি যদি সেগুলি সুন্দরভাবে লিখনির মাধ্যমে শেয়ার করতে পারেন তবে আপনি সেখান থেকে প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

অথবা আপনি একটি গেম রিভিউ ওয়েবসাইট তৈরী করতে পারেন এবং সেখানে গেম রিভিউ লিখতে পারেন এবং ব্লগিংয়ের মাধ্যমে হাজার হাজার ডলার উপার্জন করতে পারেন। আপনি চাইলে একটি ফ্রি ওয়েবসাইট এবং ব্লগ তৈরি করতে পারেন অথবা ডোমেইন হোস্টিং কিনে একটি ভাল মানের ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন। আপনি যদি আপনার ওয়েবসাইটে ভাল মানের গেমিং আর্টিকেল লিখতে পারেন তবে আপনি প্রতি মাসে প্রচুর আয় করতে পারেন।

ফেসবুকে গেম ভিডিও দিয়ে টাকা আয় করুন

ফেসবুকে গেমিং ভিডিও এবং কন্টেন্ট আপলোড করে দ্রুত অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। আমরা প্রতিনিয়ত ফেসবুকে সময় নষ্ট করি কিন্তু আমরা যদি একটু চেষ্টা করি তবে আমরা সহজেই ফেসবুকের মাধ্যমে এবং গেম খেলে আরও বেশি অর্থ উপার্জন করতে পারি। আপনি কিভাবে Facebook থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারেন সে সম্পর্কে আমাদের এই পোস্টে ফেসবুকে কিভাবে টাকা আয় করা যায় বিস্তারিত আলোচনা পাবেন সেখান থেকে দেখে নিতে পারেন। এই পোস্টে আর সেই বিষয়ে আলোচনা করলাম না। যেহেতু আমরা এখানে শুধুমাত্র পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করেছি। ফেসবুকে আপনার পছন্দের গেম ভিডিও আপলোড করে আয় করতে পারেন।

টুর্নামেন্ট গেম খেলে অর্থ উপার্জন করুন

বর্তমানে সব অনলাইন গেমিং টুর্নামেন্ট চলছে। এই কিমি টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করে আপনি সহজেই আরও বেশি অর্থ উপার্জন করতে পারেন। বাংলাদেশের জনপ্রিয় গেম ফ্রি ফায়ার ও Pubg গেম গুলোর টুর্নামেন্ট অব্যাহত রয়েছে। এই বিভিন্ন টুর্নামেন্টে যোগদানের মাধ্যমে আপনি জিতলে অর্থ উপার্জন করতে পারেন । এটি গেম খেলে অর্থ উপার্জনের সবচেয়ে সহজ উপায়। এতে আপনার কোনো অতিরিক্ত টাকা খরচ হবে না এবং সময়ও নষ্ট হবে না।

আপনি সরাসরি অংশগ্রহণ করতে এবং গেমটি খেলতে পারেন এবং জিতলে, আপনি পুরস্কার হিসাবে বিকাশের অর্থ পেতে পারেন। কিন্তু একটা সমস্যা হল আপনাকে ভালো মানের খেলোয়াড় হতে হবে। কারণ খেলাটা ভালো না খেলতে পারলে জেতার কোনো সুযোগ নেই। এবং যদি আপনি না জিতেন, আপনি কোন অর্থ উপার্জন করবেন না। কিন্তু উপরের পদ্ধতিগুলো মেনে চললে আপনি অবশ্যই অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

ই-স্পোর্টস হতে পারে আপনার আয়ের সবচেয়ে বড় উৎস – অনলাইনে গেম খেলে অর্থ উপার্জন করুন

ই-স্পোর্টস গত দশকে বিশ্বের দ্রুততম বর্ধনশীল শিল্পগুলির মধ্যে একটি। সারা বিশ্বের লক্ষ লক্ষ মানুষ ই-স্পোর্টসকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছে কারণ আয়ের দিক থেকে, ই-স্পোর্টস অনেক উচ্চ-পদস্থ চাকরির চেয়ে বেশি উপার্জন করে।

অনলাইন কম্পিউটার বা মোবাইল গেমিং টুর্নামেন্টকে ইলেকট্রনিক স্পোর্টস বা ই-স্পোর্ট বলা হয়। পশ্চিমা দেশগুলিতে, এই টুর্নামেন্টগুলি গ্র্যান্ড হল এবং স্টেডিয়ামে আয়োজিত হয়। যারা টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করে তাদের পেশাদার ই-স্পোর্টস প্লেয়ার বলা হয়।

তারা দলগতভাবে বা ব্যক্তিগতভাবে টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করতে পারবে। অনেক ক্ষেত্রে এসব টুর্নামেন্টের প্রাইজমানি অনেক বড় স্পোর্টস টুর্নামেন্টের প্রাইজমানির চেয়েও বেশি। বিখ্যাত ফুটবল, ক্রিকেট, বাস্কেটবল খেলোয়াড়দের মতোই ই-স্পোর্টসম্যানরাও জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। যদিও আমাদের অনেক প্রতিবেশী দেশ ই-স্পোর্টসকে স্বীকৃতি দিয়েছে, বাংলাদেশ এখনও এই নতুন শিল্পের সাথে পুরোপুরি খাপ খাইয়ে নিতে পারেনি।

তবে বাংলাদেশে কিছু জাগ্রত তরুণের হাত ধরেই দেশে পরিচিতি পাচ্ছে ই-স্পোর্টস শিল্প। বিশ্বের সবচেয়ে বিখ্যাত দুটি অনলাইন গেম, PUBG এবং ফ্রি ফায়ারের মাধ্যমে বাংলাদেশ ই-স্পোর্টস শিল্পের সাথে কাজ করার সুযোগ পেয়েছে। কয়েক বছরের মধ্যেই দুই খেলার বিশ্বকাপ নামে পরিচিত এই প্রতিযোগিতার ফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশি তরুণরা। বাংলাদেশি দল ‘এ-ওয়ান’ ইস্পোর্টস PUBG বিশ্বকাপ খেলতে দুবাই গিয়েছিল।

অন্যদিকে ফ্রি-ফায়ার বিশ্বকাপে করোনা ভাইরাসের কারণে সিঙ্গাপুরে যেতে পারেনি দল ‘দাঙ্গা’। দুটি টুর্নামেন্টেরই প্রাইজমানি ছিল ১৬ থেকে ১৭ কোটি টাকা। এই ধরনের ই-স্পোর্টস প্রতিযোগিতা বাংলাদেশেও শুরু হয়েছে, যেখানে PUBG মোবাইল ক্যাম্পাস চ্যাম্পিয়নশিপ-পিএমসিসি নামে দুটি টুর্নামেন্ট আয়োজন করছে। প্রতিযোগিতার প্রাইজমানি ছিল ২৫ লাখ টাকা।

উপরে লেখা সমস্ত তথ্য থেকে, এটা স্পষ্ট যে একজন পেশাদার হিসাবে আরও উপার্জন করার অনেক উপায় রয়েছে। আপনাকে কেবল অনুশীলনের সাথে আরও বেশি দক্ষ হতে হবে। আবার, দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতা ছাড়া আপনি অনলাইন গেম খেলে কোনো অর্থ উপার্জন করতে পারবেন না।

গেমিং স্টার গেম খেলে অর্থ উপার্জন

আপনি যখন একটি গেম খেলতে পারদর্শী হয়ে উঠবেন এবং নিজেকে এই গেমের একজন মাস্টার মনে করবেন, তখন আপনি যে কোনো মার্কেট প্লেসে ভাড়ায় গেম খেলতে পারবেন। এতে আপনাকে Fibre, Upwork এর মত সাইটে গিয়ে আপনার প্রোফাইল অ্যাডজাস্ট করতে হবে।

আপনি যখন আপনার প্রোফাইলে একজন দক্ষ ও জান্তা গেমার হিসাবে নিজেকে পরিচয় করাতে পারবেন তখন আপনাকে টুর্নামেন্টে খেলার জন্য বিভিন্ন দেশের মানুষ নিয়োগ করা হবে। অর্থাৎ আপনাকে ভাড়ায় খেলার জন্য ডাকা হবে আপনি তা থেকেও মোটা অংকের টাকা কামাতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ

কোন গেম খেলে অর্থ উপার্জন করা যায়?

নতুন প্রজন্ম যারা নতুন গেম খেলছে, কোন গেম থেকে অর্থ উপার্জন করা যায় তাদের জন্য এটি অবশ্যই একটি বড় প্রশ্ন। অনলাইনে এবং অফলাইনে বলতে গেলে এটাই সত্যি। গেম বা যেকোনো কার্যকলাপের মাধ্যমে প্রকৃত পক্ষে অর্থ উপার্জন করা সহজ নয়। আগেই বলা হয়েছে, অন্য লোকের টাকা নিজের পকেটে তুলতে বিশেষ দক্ষতা লাগে। আর এটা একদিনে অর্জন করা সম্ভব নয়।

দক্ষতা বা অভিজ্ঞতার একটি মূল্য আছে। কেউ আপনাকে এভাবে এমনি এমনি টাকা দেবে না। তাই কেউ যখন বলে গেম খেলতে পাড়লে টাকা দেবে, তখন বুঝবে এর পেছনে কিছু লাভ আছে বলে সে আপনাকে টাকা দিতে চায়।

ফ্রি ফায়ার, পাবজি গেম এখন খুব জনপ্রিয়। পোলাপান এসবে নিজের নাম করার জন্য পাগল। তাই গেম খেলে টাকা আয় করতে গেলে এই গেমগুলো সবার আগে মাথায় আনতে হবে।

গেমিং এ অর্থ উপার্জন করতে কতদিন সময় লাগে?

আপনি কখনই ভাবেন না যে আপনি আজকে শুরু করে কাল গেম থেকে হাজার হাজার উপার্জন শুরু করতে পারবেন। আপনি যদি তা করেন তবে আমাকে ভাবতে হবে আপনি একজন বোকা। তাই তাড়াহুড়া করবেন না এবং এটিতে লেগে থাকবেন। কারণ আপনাকে মনে রাখতে হবে এটি লুডোর মতো কোনো খেলা নয় যেখানে আপনি একটি ম্যাচে বাজি ধরে অনেক টাকা আয় করতে পারবেন।

বরং যথেষ্ট ধৈর্য নিয়ে খেলতে হবে। কারণ প্রথমে আপনাকে একটি গেমিং আইডি খুলতে হবে। আপনি আপনার Google Play এর মাধ্যমে আপনার আইডি সংরক্ষণ করতে পারেন। তা না হলে যেকোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। আপনার ফোন হারিয়ে যেতে পারে বা আপনি যে গেমটি খেলেন সেটির অ্যাপ আনইনস্টল হয়ে যেতে পারে। তাহলে আপনার আম ও খোসা দুটোই চলে যাবে।

কিন্তু যদি আপনার আইডি Google Play Games প্রোফাইলে সংরক্ষিত থাকে, তাহলে আপনি যেকোনো সময় আপনার গেম অ্যাপ ডাউনলোড করতে পারবেন এবং আগের জায়গা থেকে খেলতে আপনার আইডিতে লগইন করতে পারবেন। তাই এটার সাথে লেগে থাকুন। দক্ষতা বৃদ্ধি করুর।

কারা গেম খেলে আয় করতে পারে?

আসুন এবার একটি কঠিন সত্য কথা বলি, সবাই গেম খেলে আয় করতে পারে না। এটি অনলাইনে আয় করার অনেক উপায়ের মধ্যে একটি হলেও এটি এত সহজও নয়। যেকোন অনলাইন আয়ের জন্য প্রচুর বুদ্ধিমত্তার প্রয়োজন হয়। কম্পিউটার বা মোবাইলে অনেক সময় ব্যয় হয়। এতে যেমন মাথা ধরে, তেমনি চোখের সমস্যাও হতে পারে। তাই সবাই এটা করতে পারে না। কারন সবার ধৈর্য তো আর একই রকম না।

যে কোন কাজ করার দক্ষতা অর্জন ছাড়ার আয় করা সম্ভব না। গেমিং আলাদা নয়। গেমিং থেকে আয় করার জন্য আপনাকে এটি ভালো ভাবে আয়ত্ত করতে হবে। খেলার শুরুটা জানতে হবে। নইলে মানুষ কেন শুধু আপনার অনলাইন সাইট বা ইউটিউব চ্যানেল দেখবে? তাই গেমিং করে মাসে হাজার হাজার ডলার আয় করা সম্ভব তখনি যখন আপনি এটিতে দক্ষ হয়ে উঠবেন। এবং অধ্যবসায় এবং এর পিছনে সময় বিনিয়োগ করবেন.।

অর্থ উপার্জনের জন্য আমাদের ব্লগ গেম অ্যাপস সম্পর্কে আপনার কেমন লেগেছে, অনুগ্রহ করে আপনার মতামত কমেন্ট বক্সে জানাবেন।

গেম খেলে টাকা আয় করার অ্যাপস

অর্থ উপার্জনের জন্য সেরা কিছু অ্যাপ/গেম এই অর্থ উপার্জনের গেম অ্যাপগুলি ব্যবহার করে আপনি আপনার প্রিয় গেম খেলে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

এছাড়াও, কিছু অ্যাপ রয়েছে যা আপনাকে গেম খেলার পাশাপাশি অন্যান্য ক্রিয়াকলাপের জন্য অর্থ প্রদান করে। আবার, এমন অনেক অ্যাপ রয়েছে যেখানে আপনি আপনার বন্ধু এবং অন্যান্য লোকেদের আমন্ত্রণ জানিয়ে রেফারেল করে উপার্জন করতে পারেন।

আপনি যে গেম বা অ্যাপ পছন্দ করেন না কেন, আপনি এটি আপনার মোবাইলে ডাউনলোড করতে পারবেন চলুন আস্তে আস্তে সে দিকে যাওয়া যাক-

এমপিএল – মোবাইল প্রিমিয়ার লীগ

MPL মোবাইল প্রিমিয়ার লিগ মুলত একটি (জুয়া খেলার অ্যাপস) যদিও sahajjobd.com কখনোই খারাব কোর পরামর্শ দেয় না তারপরও পোস্টে খাতিরে এই অ্যাপস গুলো সম্পর্কে বলতে হচ্ছে। অনেকেই এমপিএল – মোবাইল প্রিমিয়ার লীগ ব্যবহার করেন এবং অনেক লোককে এখানে গেম খেলে আয় করতে দেখা যায়। আপনি গুগল প্লে স্টোর থেকে এই অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করতে পারবেন না। কারণ, গুগল প্লে স্টোর এই জুয়ারী অ্যাপগুলো রাখে না। তবে প্লে স্টোরে না থাকলেও, মোট প্রায় ১০০ মিলিয়ন+ ডাউনলোড mpl হয়ে গেছে। কারন বুঝতেই পারছেন মানুষ খারাবের দিকে বেশি ছুটে।

এই এমপিএল অ্যাপে আপনি বিভিন্ন গেম পাবেন। এখানে আপনি 40+ বিভিন্ন গেম যেমন লুডো, রামি, পোকার, PUBG, ফ্রি ফায়ার ইত্যাদি পাবেন। প্রতিটি গেম খেলে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব, তবে আপনাকে শুধুমাত্র গেম খেলেই জিততে হবে না।

এখানে আপনি ভারতের Paytm, বাংলাদেশর মোবাইল Bank, Upi, Amazon Pay-এর মাধ্যমে টাকা জমা করতে পারবেন এবং বিজয়ী টাকাও তুলতে পারবেন। আপনি যদি একটি টুর্নামেন্টে যোগ দেন এবং অনেক লোকের সাথে গেম খেলেন, এবং টুর্নামেন্ট জিতেন, আপনি প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারেন সেখান থেকে।

এছাড়াও, আপনি 1 V/s 1 হিসাবে অন্য লোকেদের সাথে গেম খেলে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। স্পিন এবং হুইল সহ আপনি প্রতিদিন কিছু উপহার পাবেন, উদাহরণস্বরূপ, টোকেন ইত্যাদি। অবশেষে, যদি অন্য লোকেরা তাদের মোবাইলে MPL অ্যাপ ডাউনলোড করে সাইন ইন করে আপনার রেফারেল কোড ব্যবহার করে তাহলে, আপনি প্রতিটি রেফারেলের জন্য ৫০ থেকে ১৩০ টাকা উপার্জন করতে পারেন।

“এমপিএল – মোবাইল প্রিমিয়ার লীগ” এর জন্য একটি গুগল অনুসন্ধান করুন আপনি তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটটি পাবেন যেখানে আপনি অ্যাপটি ডাউনলোড করতে পারবেন। আপনি বলতে পারেন যে গেম খেলে অর্থ উপার্জন করা অ্যাপগুলির মধ্যে এটি খুব জনপ্রিয়।

এমন আরও অনেক অ্যাপস রয়েছে কিন্তু সেগুলোর বিষয়ে আলোচনা করলাম না কারন আমরা শুধু মাত্র লিগাল ও মানুষের উপকারে আসে এমন বিষয় নিয়ে আলোচনা করে থাকি তাই ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

উপসংহার:

উপরের উল্লিখিত উপায় গুলির মধ্যে সবচেয়ে সহজ হল ভিডিও রেকর্ড করে আপলোড করা। যাইহোক, আপনি যদি আপনার সময় ও দক্ষতাকে কাজে লাগাতে পারেন, তাহলে আপনি আমরা যেভাবে উল্লেখ করেছি সে ভাবে কাজ করলে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। আশা করি আপনি গেম খেলে অর্থ উপার্জন করার জন্য অ্যাপস এবং আপনার অনুসন্ধান অনুসারে অর্থ উপার্জনের অন্যান্য উপায় সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। আজকের মত এখানেই কথা হবে নতুন কোন পোস্টে নতুন কোন বিষয়ের আলোচনায়।

Sharing Is Caring:

2 thoughts on “কোন গেম খেলে টাকা আয় করা যায়”

Leave a Comment