মাথা ব্যাথার ঘরোয়া চিকিৎসা

কখনো মাথা ব্যথা হয না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া অসম্ভব। আর একবার মাথা ব্যথা হলে তা সহজে যায় না। এ অবস্থায় একাগ্রতার সঙ্গে কোনো কাজ করাও সম্ভব হয় না। মাথা ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে মাঝে মাঝে ওষুধ খেতে হয় কম বেশি সবাইকে।

পৃথিবতে এমন কাউকে খুঁজে পাওয়া কঠিন যার জীবনে কখনও মাথাব্যথা হয়নি। বিভিন্ন কারণে মাথাব্যথা হয়। এর মধ্যে রয়েছে দুশ্চিন্তা, মাইগ্রেন, অতিরিক্ত ধূমপান, ব্যথানাশক ওষুধের অতিরিক্ত ব্যবহার, পানিশূন্যতা ইত্যাদি।

মাথা ব্যাথার ঘরোয়া চিকিৎসা
মাথা ব্যাথার ঘরোয়া চিকিৎসা

মাথাব্যথা প্রায়ই মানসিক চাপ এবং বিশ্রামের প্রভাবের কারণে হয়। যাই হোক যদি মাথা ধরে থাকে বা ব্যাথা করে তাহলে একটু সময় ঘুমাতে হবে দেখবেন এমনিই চলে যাবে। আর যদি দিন দিন মাথাব্যথা বাড়তে থাকে তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

তবে একটা কথা মাথায রাখতে হবে তা হল মাথাব্যথা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ব্যথানাশক ওষুধ খাওয়া ঠিক নয়। এই ব্যথানাশক ওষুধের অনেক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে।

অনেক কথা বলে ফেললাম এবার মূল আলোচনায় যাওয়া যাক, আজকের পোস্টের মূল আলোচনার বিষয় হলে মাথা ব্যাথার ঘরোয়া চিকিৎসা,  তাহলে আসুন জেনে নিই ব্যাথার কারন ও ঘরে বসে মাথা ব্যাথা দূর করার উপায়।

শুরুতে জেনে নেই মাথা ব্যাথা হওয়ার কারন কি কি?

আলোচনার বিষয় সমূহঃ

মাথাব্যথার কারণ কি

মাথা ব্যাথার ঘরোয়া চিকিৎসা আগে মাথাব্যথার কারণ জানা জরুরি। মাথা ব্যথার কারণগুলো জানা থাকলে এ বিষয়ে আরও সচেতন হতে পারেন। আমাদের পূর্বের পোস্টে এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে চাইলে মাথা ব্যাথা কোন রোগের লক্ষণ  পোস্টটি পড়ে আসতে পারেন। তারপরও এখানে মাথাব্যথার সম্ভাব্য কিছু কারণ উল্লেক্ষ করা হ।

  • মাইগ্রেন
  • সর্দি বা ফ্লু
  • ব্রেন টিউমার
  • ডিহাইড্রেশন
  • মানসিক চাপ
  • সাইনোসাইটিক
  • অ্যালকোহল সেবন করা
  • মাসিকের সময় ও মেনোপজের সময়
  • দৃষ্টিশক্তির সমস্যা জনিত কারণে মাথাব্যথা।

মাথা ব্যাথা হলে করণীয়

মাথাব্যথা একটি দৈনন্দিন সমস্যা যা আমাদের দৈনন্দিন জীবনকে দুর্বিষহ করে তোলে। ছোট-বড় প্রায় সবাই বিভিন্ন কারণে বিভিন্ন সময়ে মাথাব্যথার সমস্যায় পরেন। অনেকে আবার মাইগ্রেন সমস্যায় ভোগেন।

এই ধরনের ব্যথা হঠাৎ শুরু হয় এবং ৩-৪ দিন পর্যন্ত স্থায়ী হযতে পারে। ব্যথা উপশমের জন্য অনেকে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন, অনেকে ব্যথানাশক ওষুধ খান। কিন্তু আপনি কি জানেন? কিছু প্রাকৃতিক উপায়ে মাথা ব্যাথার ঘরোয়া চিকিৎসা রয়েছে যা খুব সহজেই এই মাথাব্যথার সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে। চলুন দেখে নেই সেই উপায়গুলো কী কী।

মাথাব্যথা উপশমে আদা ও আদা চা

মাথাব্যথা উপশমে আদার কোন জুড়ি নেই। কারণ এটিতে রয়েছে ‘প্রোস্টাগ্ল্যান্ডিন সিনথেসিস’ যা অ্যাসপিরিন যা ব্যথানাশক ওষুধে ব্যথানাশক হিসাবে ব্যবহার করা হয়। তাই মাথাব্যথা শুরু হলে আদা খান খেতে পারে প্রয়োজনে এক টুকরো আদা নিয়ে চিবিয়ে খেতে পারেন। এটি দ্রুত মাথা ব্যথা উপশম করবে। এ ছাড়া এক কাপ পানি ফুটিয়ে তাতে সামান্য আদা মিশিয়ে সামান্য মধু দিয়ে ফুটিয়ে আদা চা পান করতে পারেন। এতে মাথা ব্যথা থেকেও দ্রুত মুক্তি মিলবে।

এক পিস টাটকা আদা চিবুতে পারেন এতে ৬০ সেকেন্ডে মাথা ব্যথা দূর হবে। আদা একটু বাজে গন্ধের হলেও পদ্ধতিটি কাজের।

মাথাব্যথা উপশমে বরফের ব্যাগ

বাজারে অনেক সাইজের আইস ব্যাগ পাওয়া যায়। একটি বরফের ব্যাগে বরফ ভরে কিছুক্ষণ মাথার ত্বকে রাখুন। দেখবেন মাথা ব্যথার উপশম হবে। তবে যাদের হঠাৎ করে ঠান্ডা লাগার প্রবণতা রয়েছে তাদের এই পদ্ধতি অনুসরণ করা কোন ভাবেই উচিত হবে না।

মাথাব্যথা উপশমে মিষ্টি কুমড়ার বীজ

মিষ্টি কুমড়ার বীজ খেলে মাথা ব্যথার সমস্যা থেকে দ্রুত মুক্তি পাওয়া সম্ভব। কারণ মিষ্টি কুমড়ার বীজে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম সালফেট, যা মাথাব্যথা দূর করতে কাজ করে। তাই মাথাব্যথা উপশমে মিষ্টি কুমড়ার বীজ খেতে পারেন।

মাথাব্যথা উপশমে চিনাবাদাম

কখনো কখনো আবহাওয়া, ধুলোবালি মাথাব্যথা করে, আবার কখনো কখনো মানসিক চাপের কারণেও মাথাব্যথা হয়। এই ধরনের ব্যথা কমাতে এক মুঠো চিনাবাদাম চিবিয়ে খেতে পারেন। বাদামে রয়েছে ‘স্যালিসিন’ যা ব্যথা উপশমকারী হিসেবে কাজ করে এবং ব্যথা দ্রুত নিরাময় করে।

মাথাব্যথা উপশমে গান শুনুন

মন ভালো করার পাশাপাশি গান শোনা মাথাব্যথা দূর করার সবচেয়ে ভালো উপায়। জার্নাল অফ পেইন-এ প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে গান শোনার ফলে ব্যথা প্রায় 1১৭% কমে যায়। কারণ মনোযোগ সহকারে গান শোনার সময় আমাদের মনোযোগ মাথাব্যথা থেকে দূরে থাকে যা প্রায়শই আমাদের মাথা ব্যথার কথা ভুলিয়ে দেয়। এতে মাথাব্যথা নিরাময় হয়।

মাথাব্যথা উপশমে ম্যাসাজ

আঙুলের ডগা দিয়ে ঘাড়ের দুই পাশের রগে কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করলে আরাম পাবেন এবং ক্লান্তি দূর হবে। ক্লান্তির কারণে মাথা ধরলে এই ম্যাসাজটি খুবই উপকারী।

অথবা আঙুলের ডগায় এসেনশিয়াল অয়েল লাগান এবং কপাল ও শিরা ম্যাসাজ করুন। ল্যাভেন্ডার বা পেপারমিন্টের মতো সুগন্ধযুক্ত স্বাদযুক্ত তেল দিয়ে ম্যাসাজ করা মাথাব্যথা কমাতে সাহায্য করতে পারে।

আলো কমিয়ে মাথাব্যথা উপশম

অতিরিক্ত আলো প্রায়ই মাথাব্যথার কারণ হয়। তাই মাথাব্যথা হলে ঘরের আলো কমিয়ে দিন। পারলে ঘুমানোর চেষ্ট করুন।

মাথাব্যথা উপশমে স্ক্রীন থেকে দূরে থাকুন

খুব রেশি মাথাব্যথা হলে কম্পিউটার স্ক্রীন, ল্যাপটপ বা মোবাইল ফোন থেকে দূরে থাকুন। বাইরে গেলে ভালো সূর্যের আলো থেকে বাচতে মানের সানগ্লাস পরুন।

আরও পড়ুনঃ

মাথাব্যথা উপশমে চা ও কফি

আপনি চা এবং কফি খেতে পারেন। চা বা কফিতে উপস্থিত ক্যাফেইন মাথাব্যথা কমাতে ভালো কাজ করে। আর কালো চায়ে আদা-লবন ও মধু মিশিয়ে খেলে মাথা ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

মাথাব্যথা উপশমে লবণযুক্ত আপেল

ব্যথা যদি বেশি হয় তবে এই ঘরোয়া পদ্ধতিটি চেষ্টা করে দেখতে পারেন।এক টুকরো আপেল চিবুতে পারেন তবে এতে একটু লবণ ছিটিয়ে নেবেন। এটা দ্রুত ব্যথা মুক্ত করতে সাহায্য করবে।

মাথাব্যথা উপশমে পানি পান করুন

এক চুমুক পানিও আপনাকে এক মিনিটের মধ্যে মাথাব্যথা থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করবে। আপনি যে পরিমাণ পানি গ্রহণ করেন তার চেয়ে বেশি পানি শরীর থেকে বের হয়ে গেলে মাথাব্যথা হতে পারে। আমরা অনেকেই বুঝতে পারি না কখন শরীরে পানির ঘাটতি হয়। শুধু বমি বা ডায়রিয়া নয় অতিরিক্ত ঘাম পর্যাপ্ত পানি পানিশূন্যতা হতে পারে। তাই পানি পান করা জরুরী শরীর আর্দ্র হয়ে গেলে ব্যথা ধীরে ধীরে কমে যায়। মাথা ব্যথা সারাতে পানি পান করতে পারেন।

সমাধান: দিনে অন্তত দুই লিটার পানি পান করুন। মাথাব্যথা হলে আরোও প্রচুর পরিমানে পানি পান করার চেষ্টা করুন।

মাথাব্যথা উপশমে আকুপ্রেসার

অনেকেই বছর ধরে মাথাব্যথা দূর করতে আকুপ্রেসার ব্যবহার করে আসছেন মানুষ। এই ছোট্ট ঘরোয়া উপায়টি আপনাকে এক মিনিটের মধ্যে মাথাব্যথা থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করবে।

অন্য হাতের বুড়ো আঙুল ও তর্জনী দিয়ে বাম হাতের বুড়ো আঙুলের মাঝখানে টিপুন এবং বৃত্তাকার গতিতে ম্যাসাজ করুন। ডান হাত দিয়ে একই কাজ করুন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটি করলে এক মিনিটের মধ্যে মাথাব্যথা সেরে যাবে বলে আশা করা চায়।

বেশি ঘুমের কারণে মাথাব্যথা

আপনি সারা সপ্তাহে দিনে ১০ ঘন্টা কাজ করেন এবং সুস্থ থাকেন, তবে ছুটির দিনে দীর্ঘ ঘুমানোর পরে মাথা ব্যথা নিয়ে জেগে ওঠেন। এর কারণ হলো, হঠাৎ করে মানসিক চাপ কমে গেলে মাথায় এক ধরনের হরমোন কমে যায়। আপনার যদি এমন মাথাব্যথা হয় তবে আতঙ্কিত হবেন না। এটা শুধু আপনার একা ঘটবে না.

সমাধান: যদি আপনার ছুটিতে অতিরিক্ত ঘুমানোর প্রলোভন থাকে তবে তা প্রতিহত করুন । আট ঘণ্টার বেশি ঘুমালে এই মাথাব্যথা হতে পারে।

ঘুমের অভাবে মাথাব্যথা

অনেকের কম ঘুমালে মস্তিষ্কে ব্যথা অনুভব করার ক্ষমতা বেড়ে যায় হালকাতেই মাথাব্যথা অনুভূত হয়। এমন হলে মাথাব্যথা দেখা দিতে পারে। আর ঘুম কম হলে বারবার মাথাব্যথা দেখা দিতে পারে। তাই পর্যাপ্ত ঘুমান।

কিছু খাবার মাথাব্যথার কারণ হতে পারে

চা, কফি, কোকাকোলা বা কোমল পানীয় এই ধরনের মাথাব্যথার কারণ হতে পারে। কারণ এতে ক্যাফেইন থাকে যা মাথাব্যথার কারণ হতে পারে।

সমাধান: আপনি যদি এই পানীয়গুলি পান করার পরে নিজেকে হালকা মাথাব্যাথা অনুভব করেন তবে সেগুলি কম পান করুন।

মাথাব্যথার কারণ হতে পারে অনিয়মিত খাওয়া-দাওয়া

অনিয়মিত খাওয়া-দাওয়া বা খাবার না খাওয়ার কারণে মাথাব্যথা হতে পারে। আমরা যে খাবার খাই তা থেকে শরীর এক ধরনের চিনি তৈরি করে। এটি মস্তিষ্কের খাদ্য। না খেলে এই সুগার রক্তে কমে যায়। এবং এটি মাথাব্যথার কারণ হতে পারে। এখানে যে চিনির কথা বলেছি তা চা তৈরির চিনি নয়।

সমাধান:  সময়মতো খাবার খাওয়া বাদ দেওয়া যাবে না। মাথাব্যথা থাকলেও সময়মতো খাবার খেতে হবে।

সারাদিন শুয়ে থাকার কারনে মাথাব্যথা হতে পারে

আপনার পরিশ্রম কম হলে মাথাব্যথা হতে পারে। আপনি সমাধান বুঝতে পারেন। নিয়মিত ব্যায়াম করতে পারেন।

টেনশনের কারনে মাথাব্যথা

এই মাথাব্যথা একটি খুব সাধারণ সমস্যা। কোনো কিছু নিয়ে চাপের কারণে মাথাব্যথা হতে পারে। তাই আপনি যে বিষয়ে টেনশন করছেন তা সমাধান করতে হবে।

আরও পড়ুনঃ

মাথা ব্যাথার ওষুধ

তবে একটা কথা মাথায রাখতে হবে তা হল মাথাব্যথা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ব্যথানাশক ওষুধ খাওয়া ঠিক নয়। এই ব্যথানাশক ওষুধের অনেক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে।

ওষুধ খাওয়ার আগে একটা জিনিস জেনে নিন। আপনার মাথাব্যথা কি কারণে হয়?  মাইগ্রেনের মাথাব্যথা নাকি অন্য কারনে জানতে মাথা ব্যাথা কোন রোগের লক্ষণ পোস্টটি পড়ুন আমরা যে ধরণের উদ্বেগ মাথাব্যথার কথা বলছি তা হালকা থেকে মাঝারি ব্যথা যা খুব তীব্র নয়। যে ব্যাথা নিয়ে দিনের স্বাভাবিক কাজকর্ম করতে পারেন। এই ধরনের মাথাব্যথার সময় সাধারণত বমি বমি ভাব বা বমি হয়। হাঁটলে মাথা ব্যথা উপশম হয় না। এগুলো থাকলে মাইগ্রেশনের কারণে মাথাব্যথা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। যাই হোক খুব বেশি মাথাব্যাথা হলে ডাক্টারের পরামর্শ নিয়ে ঔষধ সেবন করতে পারেন।

আমাদের কথা

আমরা আজকে আর্টিক্যালে মাথা ব্যাথার ঘরোয়া চিকিৎসা নিয়ে বিস্তারিত আলেচনা করার চেষ্ট করেছি। আশা উপকৃত হয়েছেন। আজকের মত এখানেই কথা হব নতুন কোন পোস্টে।

Sharing Is Caring:

Leave a Comment